শেষ দফায় সুযোগ পাচ্ছে ভর্তির বাইরে থাকা শিক্ষার্থীরা

১০ জুলাই থেকে বাছাইকৃত কলেজে ম্যানুয়ালি ভর্তির আবেদন

রতন বড়ুয়া

সোমবার , ৮ জুলাই, ২০১৯ at ১০:২৬ পূর্বাহ্ণ
183

একাদশ শ্রেণিতে এখনো ভর্তির বাইরে থাকা শিক্ষার্থীরা শেষ দফায় সুযোগ পাচ্ছে। বাছাইকৃত কলেজগুলোতে বুধবার (১০ জুলাই) থেকে ম্যানুয়ালি (কলেজে গিয়ে) আবেদনের সুযোগ পাবে এসব শিক্ষার্থী। আগামী ১৬ জুলাই পর্যন্ত এ আবেদন করা যাবে। এর আগে আজ সোমবার আসন শূন্য থাকা কলেজগুলোর মধ্য থেকে বাছাই করে আবেদনযোগ্য কলেজের একটি তালিকা প্রকাশ করবে আন্তঃশিক্ষাবোর্ড সমন্বয় সাব-কমিটি। চট্টগ্রাম শিক্ষাবোর্ডের ওয়েবসাইটেও এ তালিকা প্রকাশ করা হবে। তালিকায় বাছাইকৃত কলেজগুলোতে গিয়ে নির্ধারিত যোগ্যতা থাকা সাপেক্ষে শিক্ষার্থীরা আবেদনের সুযোগ পাবে। গতকাল রোববার ঢাকা শিক্ষাবোর্ড মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত একাদশ শ্রেণির ভর্তি সংক্রান্ত এক সভায় এ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।
আন্তঃ শিক্ষাবোর্ড সমন্বয় সাব-কমিটির সভাপতি ও ঢাকা শিক্ষাবোর্ডের চেয়ারম্যান প্রফেসর মু. জিয়াউল হকের সভাপতিত্বে সকল বোর্ডের কলেজ পরিদর্শকগণ সভায় অংশ নেন। আন্তঃ শিক্ষাবোর্ড সমন্বয় সাব-কমিটির সিদ্ধান্ত মতে- সংশ্লিষ্ট কলেজে গিয়ে লিখিত আবেদনের মাধ্যমে এ আবেদন করতে হবে শিক্ষার্থীকে। আবেদনের সাথে একাডেমিক ট্রান্সক্রিপ্টের একটি ফটোকপি সংযুক্ত করে দিতে হবে। তবে আবেদন বাবদ শিক্ষার্থীকে কোন ফি দিতে হবেনা। আবেদন গ্রহণ শেষে মেধার ভিত্তিতে ১৮ জুলাই মনোনীতদের একটি তালিকা প্রকাশ করবে কলেজগুলো। তালিকায় মনোনীত শিক্ষাথীরা ২০ থেকে ২৭ জুলাইয়ের মধ্যে ভর্তির সুযোগ পাবে। তবে ভর্তি ফি প্রদানকালীন ম্যানুয়াল ভর্তি ফি বাবদ অতিরিক্ত ৪৪৫ টাকা পরিশোধ করতে হবে শিক্ষার্থীদের। ম্যানুয়াল ভর্তি ফি’র মধ্যে আবেদন ফি-১৫০ টাকা, বোর্ডের রেজিস্ট্রেশন ফি-১৯৫ টাকা ও ডাটা এন্ট্রি ফি-১০০ টাকা ধার্য্য করা আছে। কলেজে ভর্তির ক্ষেত্রে ভর্তি ফি’র সাথে এই ৪৪৫ টাকা অতিরিক্ত দিতে হবে শিক্ষার্থীকে।
ভর্তি কার্যক্রম শেষে ৩০ জুলাইয়ের মধ্যে ভর্তিকৃত শিক্ষার্থীদের তালিকা শিক্ষাবোর্ডে জমা দিতে হবে কলেজগুলোকে। একই সময়ের মধ্যে শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে গ্রহণ করা ম্যানুয়াল ভর্তি ফি বাবদ ৪৪৫ টাকা হারে সোনালী সেবার মাধ্যমে বোর্ডে জমা দিতে হবে। অন্যদিকে ভর্তির সাথে সাথে শিক্ষার্থীরা সংশ্লিষ্ট কলেজের ক্লাশে অংশ গ্রহণ করতে পারবে।
সভায় অংশ নেয়া চট্টগ্রাম শিক্ষাবোর্ডের কলেজ পরিদর্শক প্রফেসর জাহেদুল হক আজাদীকে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। তিনি বলেন, অল্প সংখ্যক শিক্ষার্থী এখনো ভর্তির সুযোগ পায়নি। ভর্তির বাইরে থাকা এসব শিক্ষার্থীদের জন্য নতুন করে ম্যানুয়ালি আবেদনের এই সুযোগ দেয়া হচ্ছে। তবে আসন খালি না থাকা কোন কলেজ এ ভর্তি কার্যক্রমে অংশ নিতে পারবেনা। এজন্য বাছাইকৃত কলেজগুলোর একটি তালিকা শিক্ষাবোর্ডের ওয়েবসাইটে প্রকাশ করা হবে। তালিকার বাইরে কোন কলেজ ম্যানুয়ালি ভর্তি কার্যক্রমে অংশ নিতে পারবেনা। আর কোন কলেজ শিক্ষাবোর্ড কর্তৃক নির্ধারিত আসন সংখ্যার অতিরিক্ত শিক্ষার্থী ভর্তি করালে সংশ্লিষ্ট শিক্ষার্থীর রেজিস্ট্রেশন সংক্রান্ত কোন দায়-দায়িত্ব বোর্ড কর্তৃপক্ষ বহন করবে না। এর সম্পূর্ণ দায়ভার কলেজ কর্তৃপক্ষকেই নিতে হবে।
আন্তঃশিক্ষা বোর্ড সমন্বয় সাব-কমিটি সূত্রে প্রাপ্ত তথ্য অনুযায়ী-চট্টগ্রাম শিক্ষাবোর্ডের অধীন কলেজগুলোতে ভর্তির জন্য মোট ১ লাখ ২২ হাজার ১২৬ জন শিক্ষার্থী আবেদন করে। কিন্তু এসব আবেদনকারীর মধ্যে ১ম, ২য় ও ৩য় তালিকা প্রকাশের পর প্রাথমিক ভর্তি নিশ্চায়ন করেছে ১ লাখ ১৫ হাজার ৪৭৫ জন। হিসেবে আরো ৬ হাজার ৬৫১ জন শিক্ষার্থী তালিকার বাইরে রয়ে যায়। যারা কোন কলেজে ভর্তির জন্য মনোনীত হয়নি। ভর্তির বাইরে থাকা এসব শিক্ষার্থীর জন্য শেষ দফায় ম্যানুয়ালি আবেদনের এ সুযোগ দেয়া হলো।
ভর্তির বাইরে থাকলেও এসব শিক্ষার্থীদের উদ্বেগের কারণ নেই জানিয়ে চট্টগ্রাম শিক্ষাবোর্ডের কলেজ পরিদর্শক প্রফেসর জাহেদুল হক বলেন-চট্টগ্রামে বোর্ড অনুমোদিত কলেজ রয়েছে ২৬৬টি। এসব কলেজে মোট আসন সংখ্যা ১ লাখ ৪৬ হাজার ৯৫টি। বিপরীতে চট্টগ্রামের কলেজগুলোতে ভর্তির জন্য এবার মোট আবেদন করেছে ১ লাখ ২২ হাজার ১২৬ জন শিক্ষার্থী। তাই কোন শিক্ষার্থীর ভর্তি নিয়ে উদ্বেগের কিছু নেই। সবাই ভর্তির সুযোগ পাবে।

x