শেখ হাসিনা সরকার ক্ষমতায় এলে চাকরির বয়স ৩৫ করা হবে

রাউজান প্রেসক্লাবে ফজলে করিম এমপি

বৃহস্পতিবার , ৬ ডিসেম্বর, ২০১৮ at ৫:৫১ পূর্বাহ্ণ
5

আসন্ন নির্বাচনে আওয়ামী লীগের মনোনীত নৌকা প্রতীকের প্রার্থী ও রেলপথ মন্ত্রণালয় বিষয়ক সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি এবিএম ফজলে করিম চৌধুরী এমপি বলেন, মানুষের কাজ মানুষেরই উপকার করা। এজন্য যে যেখানেই থাকুন না কেন এটি করা প্রয়োজন বলে আমি করি। আর এ কারণে আমি সংসদ সদস্য হয়ে দেশের সকল মসজিদের ইমাম, মুয়াজ্জিনদের ভাতা প্রদান, চাকরির বয়স সীমা ৩৫ ও অবসর ৬৫ পর্যন্ত করার জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে লিখিত ভাবে প্রস্তাবনা দিয়েছি। যা ইতোমধ্যে নীতিগতভাবে সিদ্ধান্ত হয়েছে। সরকার পুনরায় ক্ষমতায় আসলে এসব বিষয় দ্রুত বাস্তবায়ন হবে। আসন্ন জাতীয় সংসদ নির্বাচন উপলক্ষে গতকাল বুধবার রাউজান প্রেসক্লাব কর্মকর্তাদের সাথে মতবিনিয়কালে তিনি এসব কথা বলেন। আগামীতে আওয়ামীলীগ সরকার ক্ষমতায় আসলে রাউজানের বেকারত্ব দুরীকরণের ব্যবস্থা, মেডিকেল কলেজ স্থাপন, প্রশিক্ষণ গ্রহণের মাধ্যমে দেশে ও বিদেশে চাকরির ব্যবস্থা করাসহ তিনি নানা পরিকল্পনা তুলে ধরেন।
তিনি আগামী নির্বাচনে বিজয়ের ব্যাপারে আশাবাদ ব্যক্ত করে বলেন, এলাকায় উন্নয়নমূলক কর্মকান্ড ও তৃণমূলের মানুষের সাথে নিবির সম্পর্কের কারণে অপ্রতিদ্বন্দ্বি প্রার্থীতে পরিণত হয়েছি। এছাড়া এলাকাকে আওয়ামীলীগের দুর্গে পরিণত করা, শান্তি ফেরানো ও ব্যাপক উন্নয়নের কারণেই তিনি রেকর্ড সংখ্যক ভোটের ব্যবধানে বিজয়ের ব্যাপারে আশাবাদী। রাউজানে নিজস্ব অর্থে এক ঘণ্টায় ৪ লক্ষ ৮৭ হাজার ফলদ গাছের চারা রোপণ, উপজেলায় বিদ্যুৎ সরবরাহ নিরবচ্ছিন্ন করতে নিজস্ব বিদ্যুৎ কেন্দ্র স্থাপন, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের শাহাদাত বার্ষিকীতে ১ হাজার ৮৪ ব্যাগ রক্ত সংগ্রহ ও ২০ হাজার মানুষের ভোজ, টুঙ্গী পাড়ায় ৫০ হাজার মানুষের কাঙ্গালি ভোজের দৃষ্টান্তের কথা তিনি তুলে ধরেন। এতে একজন প্রকৃতি ও মানবপ্রেমী হিসেবে তার এসব কর্মকাণ্ড ১৯৯৬ সালে রাজনীতিতে যোগদানের পর থেকে অব্যাহত থাকার কথা জানানো হয়। তিনি বলেন- বিগত ২২ বছরে এলাকায় প্রায় ১৫ হাজার কোটি টাকার উন্নয়ন কাজ হয়েছে। এছাড়া তার নেতৃত্বে উপজেলা ও পৌরসভা আওয়ামীলীগের স্থায়ী কার্যালয়সহ ১৪ ইউনিয়নে নির্মিত হচ্ছে দলের বহুতল ভবন। যা দেশের মধ্যে কোন উপজেলায় এটিই প্রথম। এতে নেতাকর্মীরা ঐক্যবদ্ধ হয়ে বিজয় সুনিশ্চিত করবে বলে তিনি মনে করেন। উপজেলার প্রাথমিক বিদ্যালয়গুলোতে ২২ হাজার শিক্ষার্থীর জন্য প্রতিদিন টিফিনের ব্যবস্থা, ২৬ মেগাওয়াটের বিদ্যুৎ কেন্দ্র নির্মাণ, প্রশাসনিক কার্যালয়ের বিভিন্ন স্থাপনা, শিল্পকলা একাডেমি, শিশু বিকাশ কেন্দ্র, কবি নবীন সেন কমপ্লেক্স, মাস্টার দা সূর্যসেন স্মৃতি ভবন, পাঠাগার ও চত্বর নির্মাণ, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান সরকারীকরণ, নতুন বিদ্যালয় প্রতিষ্ঠাসহ বিভিন্ন উন্নয়ন কর্মকাণ্ডের কথা তুলে ধরেন ফজলে করিম। তিনি বলেন, চুয়েট হয়ে কাপ্তাই পর্যন্ত রেললাইন, চট্টগ্রাম রাঙ্গামাটি সড়ক চার লেনে উন্নীতকরণ, অদুদিয়া সড়ক, হাফেজ বজলুর রহমান সড়কের প্রশস্তকরণ, আইটি পার্ক স্থাপনসহ কয়েক হাজার কোটি টাকার প্রকল্প বাস্তবায়নাধীন ও প্রস্তাবনায় রয়েছে। এগুলো বাস্তবায়নের পর রাউজান হবে দেশের মধ্যে একটি মডেল। এতে উপস্থিত ছিলেন রাউজান প্রেসক্লাবের সভাপতি তৈয়ব চৌধুরী, সহ সহ সভাপতি সাহেদুর রহমান মোরশেদ, এস এম ইউসুফ উদ্দিন, এম জাহাঙ্গীর নেওয়াজ, ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক এম.নেজাম উদ্দিন রানা, প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি শফিউল আলম, সাবেক সভাপতি জাহেদুল আলম, এম বেলাল উদ্দিন, এম রমজান আলী, গাজী জয়নাল আবেদীন প্রমুখ।

x