শুধু দেশে নয় বিদেশেও উন্নতি চায় বিসিবি

ক্রীড়া প্রতিবেদক

রবিবার , ২৫ আগস্ট, ২০১৯ at ১১:১৯ পূর্বাহ্ণ
18

আগের দিন রাত তিনটায় দেশে ফিরে সকাল বেলায় অনুশীলনে যোগ দেন সাকিব আল হাসান। ব্যাটিং অনুশীলনের পর দুপুরে বিসিবি ক্রিকেট পরিচালনা বিভাগের সঙ্গে বসেন মিটিংয়ে। সেখানে দেশের বাইরে ভালো করতে টেস্ট ও টি-টোয়েন্টি অধিনায়কের চাহিদা জানতে চেয়েছে বোর্ড। মিরপুর শের-ই-বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে শনিবার মিটিংয়ে ছিলেন ক্রিকেট পরিচালনা বিভাগের প্রধান আকরাম খান, দুই নির্বাচক মিনহাজুল আবেদীন ও হাবিবুল বাশার, প্রধান কোচ রাসেল ডমিঙ্গো ও সাকিব। পরে আকরাম জানান, আগামী দিনের পরিকল্পনা ঠিক করতে প্রাথমিক কিছু আলোচনা করেছেন তারা। ‘বিশ্বকাপের পর আমাদের কোচিং প্যানেলে অনেক পরিবর্তন এসেছে। নির্বাচক, অধিনায়ক, কোচ আমরা সবাই আগামী দিনের পরিকল্পনা নিয়ে আলাপ-আলোচনা করেছি।’ ‘আলোচনার মূল বিষয় ছিল, কিভাবে দেশে ও বাইরে ভালো করা যায়। আগে যেমন কেবল দেশের কথা চিন্তা করতাম। এখন দেশের বাইরে কিভাবে ভালো করা যায় সেদিকটা নিয়ে আলোচনা হয়েছে। সেখানে নির্বাচকদের কি ভূমিকা থাকবে, অধিনায়কের কি চাহিদা থাকবে এই সব নিয়ে আলোচনা হয়েছে।’ দেশের বাইরে বাংলাদেশের পারফরম্যান্সের উন্নতি নিয়ে নতুন প্রধান কোচ যে গভীর মনোযোগ দিয়ে ভাবছেন তাতে মুগ্ধ সাবেক অধিনায়ক আকরাম। ‘দেশে ও দেশের বাইরে আমরা সমানতালে এগোতে চাই। দেশে যেমন ভালো খেলি, দেশের বাইরেও যেন তেমন ভালো খেলি সেটা নিশ্চিত করতে চাই। ডমিঙ্গো অনেক গভীরভাবে এই ব্যাপারগুলো নিয়ে ভাবছে। সে নির্বাচকদের কথা শুনেছে।’
এদিকে দেশের মাটিতে স্পিন সহায়ক পিচে বিদেশীদের মোকাবেলা করে আসছে বাংলাদেশ এ পর্যন্ত। তা থেকে কি বের হয়ে আসতে চাইছে তারা। স্পিনারদের জন্য প্রবল সহায়তা আছে, দেশের মাটিতে এমন উইকেটে বছর তিনেক ধরে টেস্ট খেলছে বাংলাদেশ। তবে শক্তিশালী স্পিন আক্রমণের জন্য পরিচিত আফগানিস্তানের বিপক্ষে কেমন উইকেট বানানো হবে, তা নিয়ে শুরু হয়ে গেছে আলোচনা। সমাধান গড়াচ্ছে পেস সহায়ক উইকেটের দিকে। বিসিবির ক্রিকেট পরিচালনা বিভাগের প্রধান আকরাম খান জানান, চট্টগ্রাম টেস্টের উইকেটে দেখা যেতে পারে সবুজের ছোঁয়া। আগামী ৫ সেপ্টেম্বর জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে শুরু হবে একমাত্র টেস্ট। এমনিতে চট্টগ্রামের উইকেটে বেশির ভাগ সময় সুবিধা পেয়ে থাকেন ব্যাটসম্যানরা। কখনও কখনও সহায়তা থাকে স্পিনারদের জন্যও।
কিন্তু এবার সেই উইকেটের ভিন্ন চেহারা দেখা যেতে পারে বলে জানালেন আকরাম। ‘দেশের মাটিতে যখন খেলা, তখন আমরা তো অবশ্যই চাইব সুবিধা কাজে লাগাতে।… ট্রু উইকেটে খেলার পরিকল্পনা আছে আমাদের। উইকেটে যেন ঘাস থাকে, পেসাররা যেন একটু সুবিধা পায়, তেমন উইকেটে আমরা খেলতে চাই।’বাংলাদেশে উইকেটের মান নিয়ে আলোচনা-সমালোচনা চলে আসছে বছরের পর বছর ধরে। প্রতি মৌসুম শুরুর আগে উইকেটের মান বাড়ানো নিয়ে বিসিবি অনেক আশ্বাস দিলেও বাস্তবে সেসবের প্রতিফলন পড়ে সামান্যই।
আকরামের দাবি, তারা চেষ্টা করে যাচ্ছেন। ‘গত দুই বছর ধরে আমরা উইকেটের মান উন্নয়ন করেছি। এটা খুব কঠিন একটা কাজ ছিল। এখন কিন্তু আগের তুলনায় আমাদের পেসারও অনেক বাড়ছে।’

x