শীতের ফ্যাশন

মেহজাবীন পায়েল

রবিবার , ৩০ ডিসেম্বর, ২০১৮ at ৬:৪৬ পূর্বাহ্ণ
42

এবারও শীতের পোশাকে এসেছে বেশ বৈচিত্র্য। পুরানো ও নতুন ফ্যাশনের সংমিশ্রণে জমে উঠেছে পোশাকের বাজার। হয়তো অনেক আগেই দোকানিদের কাছে শীতের আগমনি বার্তা পৌঁছে গিয়েছিল, তাই দোকানে গরম পোশাকের যেন কমতি নেই। শীতকে কেন্দ্র করে নানা রঙ আর ঢঙ এর পোশাক আসে বাজারে।
ফ্যাশন সচেতন তরুণ-তরুণীরা শীতকালে নিত্যনতুন ফ্যাশনের সাথে ভিন্ন মাত্রার ফ্যাশনের মিশেল ঘটানোর সুযোগ পায়। প্রতিনিয়তই তরুণ-তরুণীদের ফ্যাশন পরিবর্তন হচ্ছে; তাই তাদেরকে যদি নতুন কোন চেহারায়, নতুন কোন রূপে দেখা যায়, তাহলে এতে মোটেই অবাক হবার কিছু নেই।
শীতের ফ্যাশন কেমন হতে পারে তা ডিজাইনারদের মতে অনেকটা এমন যে, দেশীয় ফ্যাশন হাউসগুলো সব সময়ই দেশি উপকরণ নিয়ে কাজ করে। সেলোয়ার কামিজ পরা মেয়েদের জন্য আছে লং জ্যাকেট, পঞ্চ। ফুলহাতা উজ্জ্বল রঙের লম্বা পাঞ্জাবিও আছে। যা চুড়িদার পায়জামার সাথে পরে তার ওপর একটা শাল জড়িয়ে নিলে ফ্যাশনও হবে, হবে আরামও।এখন তরুণীরা পছন্দ করছে মোটা কাপড়ের টপস, লেগিংস আর বাহারি ডিজাইনের কার্ডিগেন। শাড়ির ক্ষেত্রে ফুলস্লিভ ব্লাউজ আর শাড়ির সাথে মিলিয়ে শাল জড়িয়ে হয়ে উঠতে পারেন অনন্য। টি শার্ট বা শার্ট পরলে উপরে পরতে পারেন হাতা কাটা সোয়েটার। অথবা একটু ঢিলেঢালা পুলওভার।
ছেলেদের জন্য শীত উপলক্ষে জ্যাকেটের পাশাপাশি ফুলহাতা টিশার্ট, ফুলহাতা শার্ট, খদ্দর কাপড়ের আরামদায়ক ট্রাউজারও আছে।এবারে শীতে আঁটসাঁট নয় বরং ঢিলেঢালা পোশাকই পরতে আগ্রহী কিশোরী আর তরুণীরা। পশমি বা উলের ক্রুসকাটার কাজ করা সোয়েটার পরছেন অনেকেই। সোজা কাটের পোশাকের সাথে বেছে নিতে পারেন হাঁটু পর্যন্ত লম্বা ব্লেজার।
জ্যাকেট আর ব্লেজারের সংমশ্রিণে তৈরি নতুন ধরনের শীতের পোশাক উঠে আসছে তরুণদের পছন্দের তালিকায়। অফিসের প্রয়োজনে ব্লেজার পরতে পারেন। তবে আগের মত আর সাদা, কালো বা ছাই রঙের ব্লেজার নয়। এবার বেছে নিতে পারেন গাঢ় মেরুন, কালো হলুদের মিশ্রণ, বেগুনি, রঙের ব্লেজার। এ ছাড়া হুডি জ্যাকেটও ধরে রাখছে হাল ফ্যাশনের আবেদন। আর মাফলার তো আছেই। ছেলে-মেয়ে সবার পছন্দের উঠে এসেছে রঙিন মাফলার।
এই শীতে লেগিংসের জনপ্রিয়তা বেড়েই চলেছে। ঢিলেঢালা সোয়েটারের সাথে লেগিংস আর পা ঢাকা জুতোয় দারুণ মানাবে যে কোন তরুণীকেই। ভি আকৃতির টিশার্টের সাথে সোয়েটার আর একটা স্কার্ফ জড়িয়ে নিলেও দেখতে ভালো লাগবে। এখন চেক শার্টও তরুণীদের পছন্দের তালিকায় রয়েছে।শীতকাল হলো আঁটসাট চাপা জিন্স পরার উপযুক্ত সময়। এক্ষেত্রে গাঢ় রঙ এর প্রাধান্য দেওয়া উচিত। বিভিন্ন রঙ এর শার্টের সাথে অল্প কিছু গয়না কিংবা গয়না না পরে কেবলমাত্র স্কার্ফ ব্যবহার করা যায়। স্কার্ফ এমন একটা ফ্যাশন অনুসঙ্গ, যা কি না শীত বা গ্রীষ্ম যে কোন ঋতুতে যে কোন পোশাককেই দারুণ আকর্ষণীয় করে তোলে। সাদা টপ আর প্লেইন জিন্সের সাথে একটা স্কার্ফ জড়িয়ে নিলেই ভীষণ মার্জিত আর স্টাইলিশ দেখাবে। এটাই স্কার্ফ ব্যবহারের সুবিধা।
কোথায় পাবেন: ফ্যাশন হাউজ, দেশিদশ, নিত্য উপহার, মেঘ, সমীরণ, বার্ডস আই, বিন্দু, অঞ্জনস এ পাবেন শীতের পোশাক।
দরদাম: ডিজাইনের উপর পোশাকের দামেরও ভিন্নতা আছে। বিভিন্ন ধরণের চামড়ার নকশা করা জ্যাকেট কেনা যাবে ১৮০০-৫০০০ টাকায়। ক্যাজুয়াল ব্লেজারের দাম পড়বে ১৫০০-৪০০০ টাকা। হুডি জ্যাকেট বা সোয়েটার দোকান ভেদে দাম পড়বে ৯০০-২৫০০ টাকা। আর উলের সোয়েটার ৭০০-২৮০০ টাকা পর্যন্ত দামে পাওয়া যাচ্ছে।
তাঁতের শালগুলোর দাম পড়বে ৮০০-১৫০০ টাকা। আর বিভিন্ন ধরণের কাজ করা শালের দাম ১২০০ থেকে ৩০০০ টাকা পর্যন্ত। অনেকের খদ্দরের শাল পছন্দ বলে বেশি শীতের জন্য খদ্দরের ভারী শালও আছে। হাল্কা, মাঝারি আর ভারী এই তিন ধরণের শালই বাজারে পাওয়া যায়।তবে হ্যাঁ আপনার পছন্দের ফ্যাশন হতে হবে আরামদায়ক এবং শীত নিবারণী।

x