শিশু স্বাস্থ্য

প্রফেসর ডা. প্রণব কুমার চৌধুরী

শনিবার , ২৩ জুন, ২০১৮ at ৫:৩৩ পূর্বাহ্ণ
79

শিশুর অ্যাজমা অ্যাটাক কমাতে

. বেশির ভাগ অ্যাজমা আক্রান্ত শিশুতে কোনো একটা অ্যালার্জেন থাকে, তা সময়ে সময়ে তাকে মারাত্মক অ্যাজমা অ্যাঁকে ঠেলে দেয়। এরূপ দায়ী অ্যালার্জেন শনাক্তকরণ ও তা হতে শিশুকে যতটা সম্ভব দূরে রাখার পদক্ষেপ গ্রহণ অবশ্য কর্তব্য।

  • শিশুর মেডিকেল হিস্ট্রি নিয়ে সম্ভাব্য অ্যালার্জিঘটিত উৎস চিহ্নিত করা যেতে পারে। যদিও দেখা যায় দীর্ঘ মেয়াদীভাবে শিশু অ্যাজমা রোগে ভুগলেও অনেক মাবাবা কি কারণে বা কিসের সংস্পর্শ ঘটলে অ্যাজমা অ্যাটাকে শিশু পড়ছে তা নির্ণয় করতে পারেন না।
  • সে কারণে দীর্ঘমেয়াদী অ্যাজমাতে পড়া শিশুদের জন্য অ্যালার্জিক টেস্ট করিয়ে নেওয়া হতে পারে।
  • শিশু মারাত্মকভাবে যেসব অ্যালার্জিজনিত উৎস হতে অ্যাজমা অ্যাটাকে যায় তাদের মধ্যে প্রধান হলো :
  • ধূমপান ও অটো মোবাইলের ধোঁয়া
  • কুকুর, বেড়াল, ইঁদুর ও পাখির পালক বা সংস্পর্শ
  • ধুলাবালি
  • তেলাপোকা
  • কাঠ পোড়ানো ধোঁয়া
  • তীব্র গন্ধযুক্ত কেমিক্যালসণ্ড ঘরের বাসন কোসন পরিচ্ছন্ন করার কেমিক্যালস।

. এছাড়া শিশুর সাথে থাকা আরও দু’একটা অসুখ শিশুকে অ্যাজমা অ্যাটাকে নিয়ে যায় যেমন:

  • রাইনাইটিস
  • সাইনোসাইটিস
  • জিই রিফ্লাক্স।

সুতরাং শিশুর অ্যাজমা অ্যাটাক থাকলে এই দুই বিষয়ে চিকিৎসককে গুরুত্ব দিতে হবে।

লেখক : বিভাগীয় প্রধান, শিশু স্বাস্থ্য বিভাগ

চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল

x