‘শিল্পের উন্নতিতে চাই মালিক-শ্রমিক সুসম্পর্ক’

শুক্রবার , ৪ মে, ২০১৮ at ৫:০৫ পূর্বাহ্ণ
53

চট্টগ্রাম বিভাগীয় শ্রম দপ্তর, শিল্প সম্পর্ক শিক্ষায়তন, শ্রম কল্যাণ কেন্দ্র এবং কলকারখানা ও প্রতিষ্ঠান পরিদর্শন অধিদপ্তর চট্টগ্রামের উদ্যোগে মহান মে দিবস উদযাপন উপলক্ষে গতকাল ডিসি হিল হতে চট্টগ্রামস্থ মুসলিম ইনস্টিটিউট মিলনায়তন পর্যন্ত এক র‌্যালি বের করা হয়। পরে মুসলিম ইনষ্টিটিউট মিলনায়তনে মে দিবসের তাৎপর্য “শ্রমিকমালিক ভাই ভাই, সোনার বাংলা গড়তে চাই” শীর্ষক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন চট্টগ্রাম সিটি মেয়র আলহাজ্ব আ জ ম নাছির উদ্দিন, বিশেষ অতিথি ছিলেন জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ ইলিয়াছ হোসেন। এতে সভাপতিত্ব করেন চট্টগ্রাম বিভাগীয় শ্রম দপ্তরের পরিচালক মো. গিয়াস উদ্দিন। উপস্থিত ছিলেন কলকারখানা ও প্রতিষ্ঠান পরিদর্শন অধিদপ্তরের উপমহা পরিদর্শক (সাঃ) মো. আবদুল হাই খান এবং মালিক ও শ্রমিক প্রতিনিধিগণ। অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন চট্টগ্রাম বিভাগীয় শ্রম দপ্তরের সহকারী পরিচালক মোশাররফ হোসেন। এতে স্থানীয় শ্রমিক নেতৃবৃন্দ, মালিক পক্ষ এবং বিভিন্ন নেতৃবৃন্দ বক্তব্য রাখেন। বিভাগীয় শ্রম দপ্তরের প্রাক্তন সহকারী শ্রম পরিচালক অরুণ কান্তি দাসসহ অনুষ্ঠানে প্রায় ১৫০০ জন শ্রমিক উপস্থিত ছিলেন।

শ্রমিক নেতৃবৃন্দের মধ্যে চিটাগাং এশিয়ান এ্যাপারেলস লিমিটেড শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি আঁখি আকতার, গার্মেন্টস শ্রমিক কর্মচারী লীগ চট্টগ্রামের সাধারণ সম্পাদক নাসরিন রহমান, চট্টগ্রাম মহানগর শ্রমিক লীগের সহসভাপতি কামাল উদ্দিন চৌধুরী, ইউনাইটেড ফেডারেশন অব গার্মেন্টস ওয়ার্কার্স চট্টগ্রামের সাধারণ সম্পাদক মো. জাহাঙ্গীর আলম, জাতীয় শ্রমিক লীগ পাহাড়তলী অঞ্চলের সভাপতি শফি বাঙ্গালী, জাতীয় শ্রমিক পার্টি, চট্টগ্রাম বিভাগের সভাপতি আলহাজ্ব এম.. সাত্তার, শ্রমিক নেতা মাহাবুব মিন্টু, জাতীয় শ্রমিক লীগ চট্টগ্রাম মহানগরের সভাপতি মো. বখতিয়ার উদ্দিন এবং জাতীয় শ্রমিক লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির যুগ্ম সম্পাদক মো. শফর আলী বক্তব্য রাখেন। বক্তারা বলেন শ্রম আইন ২০০৬ ও শ্রম বিধিমালা ২০১৫ যদি সঠিকভাবে মেনে চলা হয় তাহলে মালিক ও শ্রমিকের মধ্যে সম্পর্কের উন্নতি ঘটবে। শ্রমিক নেতৃবৃন্দ আরো বলেন অধিকাংশ গার্মেন্টস প্রতিষ্ঠানে এখনো সরকার ঘোষিত নিম্নতম মজুরী বাস্তবায়ন করা হয়নি। তাই শ্রমিকগণ তাদের ন্যায্য সুযোগ সুবিধা হতে বঞ্চিত হচ্ছে। মালিকপক্ষের প্রতিনিধি চট্টগ্রাম চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাষ্ট্রিজের পরিচালক অহিদ সিরাজ চৌধুরী (স্বপন) বলেন মালিক ও শ্রমিক ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করলে কারখানায় উৎপাদন বৃদ্ধি পাবে এবং ২০২১ সালের মধ্যে বাংলাদেশ একটি উন্নত দেশে পরিণত হবে। সরকার পক্ষে বক্তব্য রাখেন উপ মহা পরিদর্শক (সাঃ) মো. আবদুল হাই খান। তিনি বলেন সরকার শ্রমিক বান্ধব সরকার। শ্রমিকদের ন্যায্য পাওনাদি পরিশোধের জন্য তারা কারখানা মালিকদেরকে বিভিন্নভাবে চাপ ও পরামর্শ দিচ্ছেন এবং যে কোন সমস্যা দেখা দিলে তাৎক্ষণিকভাবে উহা আলোচনার মাধ্যমে সমাধানের চেষ্টা করেন।

প্রধান অতিথি বলেন মালিক ও শ্রমিকের মধ্যে সৌহার্দ্যপূর্ণ পরিবেশ সৃষ্টির মাধ্যমে শিল্পের উন্নতি সম্ভব। তিনি আরও বলেন বর্তমান সরকার শ্রমিক বান্ধব সরকার। শ্রমিকের উন্নতির জন্য সরকার বিভিন্ন পদক্ষেপ গ্রহণ করেছেন। তাই শ্রমিকদেরকেও কলকারখানায় উৎপাদন বৃদ্ধির লক্ষ্যে আন্তরিক হতে হবে। শেষে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। প্রেস বিজ্ঞপ্তি।

x