শিলংয়ে চতুর্থবারের মতো পেছালো সালাহ উদ্দিনের রায়

মঙ্গলবার , ১৬ অক্টোবর, ২০১৮ at ৬:৩১ পূর্বাহ্ণ
10

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য সালাহ উদ্দিন আহমেদের বিরুদ্ধে ভারতে অবৈধ অনুপ্রবেশের মামলায় রায় চতুর্থবারের মত পিছিয়ে গেছে। শিলংয়ের বিচারিক হাকিম ডি জি খারশিংয়ের আদালতে সোমবার এই রায় ঘোষণার কথা থাকলেও বিচারক রায় না দিয়ে ৯ নভেম্বর নতুন তারিখ রাখেন বলে সালাহ উদ্দিন আহমেদের আইনজীবী এপি মহন্তে জানান। শিলং থেকে বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে তিনি বলেন, রায় প্রদান কিংবা পেছানোর বিষয়টি সম্পূর্ণ বিচারকের এখতিয়ার। তবে কয়েক দফা রায় পেছানোয় আমি হতাশ হচ্ছি, আমার মক্কেলও হতাশ হচ্ছেন। এর আগে গত ২৮ সেপ্টেম্বর রায়ের তারিখ থাকলেও বিচারক তা পিছিয়ে ১৫ অক্টোবর নতুন তারিখ রেখেছিলেন।
বৈধ কাগজপত্র ছাড়া ভারতে ঢোকার অভিযোগে ফরেনার্স অ্যাক্টের ১৪ ধারায় তিন বছর ধরে এ মামলা চলছে সালাহ উদ্দিনের বিরুদ্ধে। অভিযোগ প্রমাণ হলে এ আইনে সর্বোচ্চ পাঁচ বছর কারাদণ্ডের বিধান রয়েছে।
ঢাকা থেকে ‘উধাও’ হওয়ার দুই মাস পর ২০১৫ সালের ১১ মে ভারতের মেঘালয় রাজ্যের রাজধানী শিলংয়ে হদিস মেলে সালাহ উদ্দিনের। ভ্রমণের কাগজপত্র দেখাতে না পারায় পুলিশ তাকে গ্রেপ্তার করে থানায় নিয়ে যায়। কিছুদিন কারাগার ও হাসপাতালে কাটানোর পর স্বাস্থ্যের অবস্থা বিবেচনায় জামিন পান সালাহ উদ্দিন। কিন্তু ভারত ছাড়ার অনুমতি না থাকায় স্ত্রী ও কয়েকজন স্বজনের সঙ্গে শিলং শহর থেকে আট কিলোমিটার দূরে একটি বাড়ি ভাড়া করে থাকতে শুরু করেন। ২০১৬ সালে অসুস্থতার কারণে দিল্লি গিয়ে চিকিৎসা করিয়ে আসেন এই বিএনপি নেতা। পরিবার তাকে চিকিৎসার জন্য সিঙ্গাপুরে নিতে চাইলেও তাতে শিলংয়ের আদালতের সায় মেলেনি। ফরেনার্স অ্যাক্টের এ মামলার তদন্ত শেষে মেঘালয় পুলিশ ২০১৫ সালের ৩ জুন সালাহ উদ্দিনের বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র দেয়। সেখানে বলা হয়, ভারতে এই বিএনপি নেতার আকস্মিক উপস্থিতি ‘উদ্দেশ্য প্রণোদিত’। বাংলাদেশে বেশ কয়েকটি অভিযোগের বিচার এড়াতে তিনি ভারতে এসেছেন। ওই অভিযোগপত্রের ভিত্তিতে ২০১৫ সালের ২২ জুলাই শিলংয়ের আদালত সালাহ উদ্দিন আহমেদকে অভিযুক্ত করে তার বিচার শুরু করে।

x