শিক্ষার আলোকে ব্যক্তিত্বের বিকাশ

আফতাব চৌধুরী

শুক্রবার , ৫ অক্টোবর, ২০১৮ at ৫:৪৫ পূর্বাহ্ণ
61

‘শিক্ষাই জাতির মেরুদণ্ড’-শিক্ষা সভ্যতার বিকাশ ঘটায়। শিক্ষাই মানুষকে বন্য জীবন থেকে সভ্যতার আলোয় ফিরিয়ে দিয়েছে। শিক্ষাই মানুষকে মানুষ হিসেবে তৈরি করে। বিশেষ করে আমাদের মানব সমাজে সবাই ঘাঁর উঁচু করে, পিঠ টান করে মানে মেরুদণ্ড সোজা করে বাঁচতে চায়। মেরুদণ্ডহীন হয়ে বাঁচার শখ বা স্বাদ আমাদের কার নেই। আমরা অনেকেই ‘শিক্ষিত’ বলে গর্ব করি, কিন্তু শিক্ষার আসল রোপ কী হওয়া উচিত সে সম্বন্ধে আমরা অবগত নই। সেজন্যই আমাদের মধ্যে এডুকেশন পদ্ধতি, আবার কেউ কেউ ইনস্টিটিশন পদ্ধতি অবলম্বন করি সে যাই হোক , নিজের মেরুদন্ডকে সোজা ও সুদৃঢ়রূপে গড়ে তুলতে আমরা জীবনের প্রায় এক-তৃতীয়াংশ সময় ওই প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষা অর্জনে ব্যয় করি। এর পর নানা কষ্টে অর্জিত শিক্ষাকে পদে পদে তার সত্যতা প্রমাণের জন্য অগ্নিপরীক্ষা দিই।
আমাদের জানা দরকার, এডুকেশন পদ্ধতি মানুষের জ্ঞানের বিকাশ ঘটায়, মানুষের চেতনার মানকে উন্নত করে, সৃষ্টিশীল চিন্তাধারাকে ত্বরান্বিত করে, মানুষকে নতুন কিছু তৈরি করতে সাহায্য করে। একটা দেশের সব বিভাগে যদি স্রষ্টা-সংখ্যা না বাড়ে তাহলে সমাজ বা দেশের উন্নতি হয় না। যদি বিশ্বমানের শিল্প-সাহিত্য না হয়, যদি বিজ্ঞানের অগ্রগতি না হয়, যদি ভাল অর্থনীতিবিদ না থাকেন, খেলাধুলার ক্ষেত্রে যদি বিশ্বমানের খেলোয়াড় না হয় তাহলে দেশের অগ্রগতি রুদ্ধ হয়ে যাবে। দেশের অর্থনীতি, শিল্প-সাহিত্য, মানবিক প্রবৃত্তি সবকিছুই পিছিয়ে পড়বে। একটা দেশকে চেনা যায় সে-দেশের বিজ্ঞান ও সংস্কৃতি দেখে। এসব তৈরি করতে পারে দেশের সঠিক এডুকেশন পদ্ধতি। ভাল সাহিত্য না পড়লে সৃষ্টিশীল চিন্তা বা উদ্ভাবনী ক্ষমতা বাড়ে না। মানবিক মূল্যবোধও তৈরি হয় না। মানবিক মূল্যবোধ তৈরি না হলে কল্যাণকর চিন্তাও আসবে না, আত্মকেন্দ্রিক প্রবণতাই কেবল বাড়তে থাকবে। তাহলে এখন প্রশ্ন আসতে পারে, আমাদের দেশে কি কোন শিল্পী, সাহিত্যিক, বিজ্ঞানী তৈরী হচ্ছে না? বিভিন্ন বিষয়ে যারা সাফল্য পাচ্ছেন তারা নিজেদের চেষ্টায়, নিজেদের ক্ষমতার পাচ্ছেন। দেশের শিক্ষাব্যবস্থার অগ্রগতি এ সমস্ত বিষয় অধিক মানুষের সাফল্যে সাহায্য করে, মানবিক মূল্যবোধকে বাড়িয়ে তোলে, ইতিবাচক চিন্তা বিকাশ ঘটায়। শিক্ষাব্যবস্থার ত্রুটিতেই মানুষের মূল্যবোধ ক্রমশ কমতে শুরু করেছে। মানুষ আর মানুষের কথা ভাবে না। তাই ফুটপাতে একটা অসুস্থ মানুষকে মরতে দেখেও আমরা সহযোগিতার হাতা বারাই না, পাশ কাটিয়ে চলে যাই। কেন এমন হচ্ছে? যদি সমাজের মানুষের কথা না ভাবি তাহলে আমরা কি ভালভাবে বাঁচতে পারব? এই নেতিবাচক শিক্ষা কখনও প্রকৃতি শিক্ষা হতে পারে না। শুধু বড় বড় ডিগ্রি পেলেই প্রকৃত শিক্ষিত হওয়া যায় না। শিক্ষার সঙ্গে থাকতে হবে সংস্কৃতি, রুচিবোধ, মানবতাবোধ। তবেই তো সে শিক্ষা হয়ে ওঠে প্রকৃত শিক্ষা। শিক্ষার জ্যোতি সমাজ ও দেশের মঙ্গল ঘটায়, মানুষের মঙ্গল করে, মানুষের কল্যাণ সাধিত করে। বিজ্ঞানীরাও নিজেদের কল্যাণের কথা ভেবে কোন আবিষ্কার করে না। বিজ্ঞানীর আবিষ্কারের মতো আমাদের শিক্ষককেও ভাবতে হবে। আমাদের শিক্ষা হবে নিজের জন্য এবং সমাজের কল্যাণ সাধনের জন্য, শুধুমাত্র অর্থ রোজগারের জন্য নয়।
আমি জানি এটাই শেষ নয়। এরপরেও অনেক কিছু জানার থাকে। যত জানা সম্ভব হবে তত আমাদের চিন্তা ও মনের দৃষ্টি কূলে যাবে, সৃষ্টিশীল মস্তিষ্কের বিকাশ ঘটবে। পিতৃ-মাতৃ পরিচয় যেমন সন্তানকে জানতে হয়, তেমনি এ পৃথিবীতে জন্ম লাভের পর পৃথিবীর ইতিহাস আমাদের জানতে হবে। কীভাবে একটা সভ্যতা এগিয়ে গেল, কিভাবে বিজ্ঞানের অগ্রগতি হলো, পৃথিবীর বিভিন্ন দেশের ক্লাসিক সাহিত্য যদি না জানি তবে আমাদের জ্ঞানের পরিধি গন্ডির মধ্যেই সীমাবদ্ধ থাকবে। নিজের দেশ পৃথিবী সম্বন্ধেও সঠিকভাবে জানা থেকে বঞ্চিত থাকব। ক্লাসিক সাহিত্যের মধ্যে সে-দেশের সমাজব্যবস্থা, দেশের মানুষের আচার-আচরণ,অর্থনৈতিক এবং ভৌগোলিক অবস্থানও। ক্লাসিক সাহিত্য পড়লে মানুষের চেতনা বাড়ে,জ্ঞান বৃদ্ধি হয়, সঠিক মূল্যবোধও তৈরি হয়। এর মাধ্যমে আমাদের ঘরের পরিবেশ সুন্দর হবে,পরিবারের লোকজনের মধ্যে রুচিবোধ তৈরি হবে,ব্যবহার উন্নত হবে। আমাদের চিন্তা,জ্ঞানের পরিধি এবং মনের গভীরতা বৃদ্ধি পাবে। তখন সত্যিই আমরা নিজেকে চিনতে ও জানতে পারব, আমরাও হয়ে উঠব শিক্ষিত,আমাদের মধ্যে মেকি শিক্ষা থাকবে না। হতাশা সহজে আমাদের গ্রাস করতে পারবে না। আমাদের আত্মমর্যাদা ও আত্মবিশ্বাস বেড়ে যাবে, চেহারার মধ্যে ফুটে উঠবে শিক্ষার ছাপ। তখন সহজেই আমরা লাভ করতে পারব মানুষের শ্রদ্ধা, সম্মান এবং ভালবাসা।
আসুন, শত কাজের মধ্যে ভালো সাহিত্য , ইতিহাস ও খ্যাতিমান মানুষদের জীবনী পাঠ করি, ধর্মীয় অনুশাসন মেনে চলি ভালো গান শুনি এতে আমাদের মনের উদারতা বাড়বে, কাজের উৎসাহ বাড়তে থাকবে। মনে রাখতে হবে সঠিক শিক্ষাই পারে মানুষকে সাফল্যের দিকে এগিয়ে নিয়ে যেতে,মানুষকে সাফল্য এনে দিতে। আসুন ডিগ্রির মোড়কে শিক্ষাকে আটকে রাখার চেষ্টা না করে সঠিক অর্থে নিজেদের শিক্ষিত করে তুলি। এই মনুষ্য জীবন আমরা একবারই পেয়েছি। এটাই প্রথম, এটাই শেষ। তাই শুধু ভোগ করলেই চলবে না, কিছু দান করতে হবে। এ পৃথিবী ছেড়ে চলে যাওয়ার আগে আমাদের প্রমাণ রেখে যেতে হবে যে, আমরা এককালে এরকম ছিলাম। যদি মানুষ আমাদের মনে না রাখে তবে এরূপ জীবনের কোন মূল্যই থাকবে না।
পশু আর মানুষের জীবনের মধ্যে তফাত রয়েছে। পশু বাঁচে প্রকৃতির দয়ায়, মানুষ বাঁচে নিজের ক্ষমতায়। মানুষের কিছু করার ক্ষমতা বা অধিকার রয়েছে। মানুষ কিছু করতে চায়। এই প্রবণতা থেকেই পৃথিবীর আজ এত অগ্রগতি। তাই সে কথা চিন্তা করে আমাদের শিক্ষাকে কাজে লাগাতে হবে। ‘শুধুমাত্র পরিবারের লোকগুলোর কথা ভেবে আপনি সম্পদ বাড়িয়ে চলেছেন। আপনি পৃথিবী ছেড়ে চলে গেলে বছর ঘুরতে না ঘুরতেই পরিবারের মানুষগুলোও আপনাকে ভুলে যাবে। আপনার কথা কেউ মনে রাখবে না।’ এটাই পৃথিবীর নিয়ম। মনে পড়ে রবীন্দ্রনাথের সেই পঙক্তিটি- ‘আমাদের শিক্ষাকে আমাদের বাহন করিলাম না, শিক্ষাকে আমরা বহন করিয়াই চলিলাম।’
সমাজকে নিয়েই মানুষ বাঁচে। সমাজকে নিয়েই মানুষের জীবন, মানুষের সুশৃঙ্খল জীবনের জন্যই সমাজের সৃষ্টি। সমাজকে বাদ দিয়ে মানুষ কখনও একা বাঁচতে পারে না। যে কোনও মানুষের সাফল্যের পেছনে থাকে মানুষের সাহায্য আর সামাজিক স্বীকৃতি। আমাদের জীবনের উদ্দেশ্য কী? জীবনে আমরা কী করতে চাই? আমাদের প্রত্যাশা এবং জীবনের লক্ষ্যগুলো নিয়ে আমাদের বিবেচনা করতে হবে। ভেবে দেখতে হবে জীবনের প্রত্যাশা এবং লক্ষ্য কি আমাদের ব্যক্তিকেন্দ্রিক, নাকি সমাজকেন্দ্রিক। যদি শেষোক্ত বস্তুটি হয় তাহলে জেনে রাখতে হবে, আমাদের সাফল্যে আমরা যেমন আনন্দিত হব মানুষও তেমনি আনন্দিত হবে। জীবনের দুটি দিক রয়েছে, নেগেটিভ এবং পজেটিভ। একটা মানুষের মধ্যে সম্পর্কে ব্যক্তিকেন্দ্রিক ধারণা মাথায় ঢুকে গিয়ে মানুষটা তখন আত্মকেন্দ্রিক হয়ে পড়ে। সে তখন সমাজ বা মানুষের কথা ভাবে না। এছাড়াও ছোটবেলার ধারণাগুলো চাপিয়ে দেওয়ার তার মানসিক অবস্থার সঙ্গে অতীতের ধারণা অঙ্গীভূত হয়ে যায়। কিন্তু পজেটিভ চিন্তার মানুষের ধারণা ছোট থেকেই অন্যভাবে তৈরি হয়। তাই সে শুধু নিজের কথা নিয়ে ভাবতে পারে না। ফলে বড় হয়ে সেগুলো মানসিক অবস্থার সঙ্গে অঙ্গীভূত হয়ে মানবিক আবেদনের চেহারা নেয়। সে তখন সমাজ বা মানুষের কথা ভাবতে শুরু করে। তাই আমাদেরও নিজের সিদ্ধান্ত নিজেকে নিতে হবে।
আমরাই নিজেদের নিয়ন্ত্রক। কোনটা গ্রহণ আর কোনটা বর্জন করতে হবে সেটা আমাদের দৃষ্টিভঙ্গি, চিন্তা ও মনের ওপর নির্ভর করবে। নিজের মনকে পরামর্শ দিতে হবে যে,একমাত্র সুন্দর গঠনমূলক পরামর্শ ছাড়া আর কোনও পরামর্শ আমরা নেব না।আনুন এবার নিজের কাজকর্মের সঙ্গে আমাদের দৃষ্টিভঙ্গি ঠিক করে ফেলি। জীবনযাত্রার যে ব্যাপারগুলো বদলানো দরকার সেগুলো আগে ঠিক করে নেই।এবার নিজের উন্নতির সঙ্গে সঙ্গে নিজের কথা ভাবি। নিজের মনকে বলি, মানুষের সাহায্য ছাড়া আমাদের উন্নতি সম্ভব নয়। সুতরাং মানুষের মঙ্গলময় দিকের কথা আমাদেরও ভাবতে হবে।আসুন নিজেদের মনোসংযোগ বাড়ানোর চেষ্টা করি। বেশি করে মানুষের সঙ্গে মেলামিশা করি, মানুষের সুখ-দুঃখে নিজেকে জড়িয়ে রাখি, অপরের ভাল কাজে উৎসাহ দেই। অপরের সাফল্যে আনন্দিত হই।, মুক্তকন্ঠে অভিনন্দন জানাই। অপরের বিপদে সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দিই। আসুন মানুষকে ভালবাসি , কারও দুঃখে ব্যথিত হই, সুখে আনন্দিত হই। সমাজসেবামূলক কাজে নিজেকে নিয়োজিত রাখি, মানুষের প্রতি বিশ্বাস জন্মাতে সচেষ্ট হই।একটি কথা মনে রাখতে হবে যে, পারস্পারিক সহযোগিতায় গড়ে ওঠে সুন্দর সমাজ, সুন্দর জীবন।
আসুন, আমরা নিজেদের কাছে প্রশ্ন করি – *সমাজে উন্নতির জন্য আমরা কি চেষ্টা করছি? * বিরোধিতা, অভিযোগ,সমালোচনা ছাড়া আমরা কোনও গঠনমূলক কাজ করেছি? * সমাজের মঙ্গলের জন্য আমরা কি কখনও কোনও কাজের নেতৃত্ব দিয়েছি? * আমাদের প্রতিবেশী ও সাধারণ মানুষের সঙ্গে আমরা কীরূপ আচার-আচরণ করি…ইত্যাদি। এই প্রশ্নগুলো নিজের কাছে রাখলে আমরা নিজেকে সঠিকভাবে চিনতে ও জানতে সক্ষম হব। আমাদের ভুল-ত্রুটি কাটিয়ে আমরা ত্রুটিমুক্ত হতে পারব, মানুষ হিসেবে আমাদের অবস্থান অনেক উন্নত পর্যায়ে গিয়ে পৌঁছুবে।
মানুষের সঙ্গে মানবিক সম্পর্ক গড়ে তুলতে পারলে মানুষও আমাদের সাফল্যে আনন্দিত হবে। আমরা মানুষের হৃদয় জয় করে নেব, তখনই মানুষ আমাদের গুণগান করবে। মনে পড়ে সেই কথা- ‘The best teachers of humanity are the lives of greatman।
লেখক : সাংবাদিক । বৃক্ষরোপণে জাতীয় পুরস্কার (১ম স্বর্ণপদক) প্রাপ্ত।

x