শাড়ির সঠিক যত্ন নিন

মেহজাবীন পায়েল

রবিবার , ৩ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ at ৬:২৮ পূর্বাহ্ণ
56

আপনার আলমারিটি নিশ্চয়ই শাড়ি দিয়ে ভর্তি! তবে শুধু শাড়ি কিনে আলমারিতে ভরলেই হবে? যে শাড়ি নারীকে সুন্দর বানায় সেই শাড়িরও তো যথোপযুক্ত সম্মান মানে যত্ন দরকার। আপনি আলমারিতে শাড়ি রেখে ভাবছেন শাড়ি আপনার ভালোই থাকবে। কিন্তু আলমারির ভেতরেও যদি ঠিক মতো না রাখা হয় তাহলেও কিন্তু আপনার শাড়ি নষ্ট হয়ে যেতে পারে। তাই বাড়িতে শাড়ির যত্ন কীভাবে নেবেন তার কিছু টিপস রইলো আপনাদের জন্য।
শাড়ি খারাপ হওয়ার কারণ
শাড়ির যত্ন ঠিক মতো না নিলে কিন্তু শাড়ি নষ্ট হয়ে যাওয়ার সম্ভাবনা থেকে যায়। যেমন, বর্ষাকালে শাড়িতে ফাঙ্গাস হয়ে যায়, ভাঁজে ভাঁজ পরে শাড়ি ছিঁড়ে যায়, অনেক সময় অনেকদিন ধরে একভাবে থাকতে থাকতে শাড়ির রঙও নষ্ট হয়ে যায়।
তাহলে উপায়? শাড়ির ধরণ যেমন আলাদা, তেমনি তার যত্নের ধরণও কিন্তু আলাদা। তবে ঘাবড়ানোর মতো কিছুই নেই। খুব সহজেই আপনি আপনার শাড়ির যত্ন বাড়িতেই করে ফেলতে পারবেন।
সুতির শাড়ির যত্ন
সুতির শাড়ির কিন্তু বেশ একটা আঁতেল আঁতেল ভাব আছে। কিন্তু তা ম্যাড়মেড়ে হয়ে গেলে সব কায়দাই শেষ! তাই সুতির শাড়ির রঙ এবং কাপড় যাতে একেবারে কড়কড়ে থাকে তা কিন্তু খুব জরুরি।
পদ্ধতি
১. যেহেতু এই শাড়ি বাড়িতেই ধুয়ে ফেলা যায় তাই প্রথম বার যখন শাড়ি ধোবেন তখন উষ্ণ গরম পানিতে খানিকটা বিট লবণ মিশিয়ে ১৫-২০ মিনিট শাড়িটি ভিজিয়ে রাখবেন। এতে শাড়ির রঙটি একেবারে পাকা থাকবে পরবর্তীকালে বারবার ধোবার পরেও।
২. ঘেমে নেয়ে বাড়ি এসে যদি শাড়ি ধুতে না ইচ্ছে করে তাহলে পানিতে অল্প রিঠা মিশিয়ে শাড়ি কিছুক্ষণ ভিজিয়ে মেলে দিন। এতে শাড়ি অনেকদিন অবধি ফ্রেশ এবং দীর্ঘজীবি হয়।
৩. সুতির শাড়ি প্রতিবার ধুতে যাওয়ার সময় অবশ্যই তাতে হালকা করে মাড় দেওয়া জরুরি। এছাড়া সুতির শাড়ি প্রতিবার পরার পর যদি আয়রন করে ভাঁজ করে হ্যাঙ্গারে ঝুলিয়ে আলমারিতে রাখতে পারেন তাহলে কিন্তু অনেকদিন অবধি আপনার শাড়ি ভালো থাকবে।
শাড়ি যদি হয় সিল্কের
সিল্কের শাড়ির কিন্তু অভিজাত্যই আলাদা। এই আভিজাত্যে যাতে কোনো দাগ-ছোপ না পড়ে সেদিকে কিন্তু বিশেষ নজর দেওয়া উচিত।
পদ্ধতি
১. সিল্কের শাড়ি কোনোভাবেই মেটালের হ্যাঙ্গারে ঝোলানো উচিত নয়। এতে শাড়িতে মরচের দাগ পড়ে যেতে পারে।
২. বাড়িতে না ধুয়ে ড্রাই ওয়াশ-ই বেস্ট অপশন।
৩. সিল্কের শাড়িগুলোকে মাঝে মাঝেই বাইরে বের করে ছায়ায় রাখা উচিত। এতে শাড়িতে ফাঙ্গাস বা বাজে গন্ধ বেরোবে না।
৪. সিল্কের শাড়ি মাঝে মাঝেই ভাঁজ পাল্টে সুতির কাপড়ে মুড়িয়ে সরাসরি আলমারির শেল্ফে রাখলে তা বেশি ভালো থাকবে। এছাড়া আলমারিতে ন্যাপথলিন রাখলে ভালো তবে তা সরাসরি শাড়ির সাথে না রেখে অন্য কোথাও রাখলেই ভালো।
এমব্রয়ডারি বা জরির কাজ করা জর্জেট বা সিল্কের
শাড়ির যত্ন
এরকম শাড়ি সবার একটা বা দুটো থাকে। তাই এদের খেয়াল একটু বেশি করেই রাখা ভালো।
পদ্ধতি
১. এই শাড়ি যেহেতু বেশি কাজ বা জরির ভারে ভারী হয় তাই এদের কোনোভাবেই হ্যাঙ্গারে না রেখে মলমলের কাপড়ে মুড়িয়ে আলমারির তাকে রাখলে সব থেকে বেশি ভালো থাকে। বিশেষ করে এর জরির পাড়গুলো যেন মলমলে মোড়ানো থাকে।
২. ২-৩ মাস অন্তর এই শাড়িগুলো খুলে নতুন করে ভাঁজ করা প্রয়োজন। না হলে জর্জেট এবং সিল্ক দুইয়েরই ছিঁড়ে যাবার ভয় থাকে। মনে রাখবেন এর জরির পাড় বা কাজ করা অংশ যেন ভাঁজের ভেতরের দিকে থাকে।
৩. এই ধরণের শাড়িগুলো যদি আপনি বাড়িতে আয়রন করতে চান তাহলে শাড়ির ওপর কোনো নরম সুতির কাপড় রেখে তার ওপর দিয়ে আয়রণ করা উচিত।
শাড়ি পরে শুধু স্টাইল করলে আর শাড়ির যত্ন না নিলে কিন্তু দ্বিতীয় বার আর স্টাইল ঠিক জমবে না। বারে বারে যাতে শাড়িতে আপনি সুন্দরী নারী হয়ে উঠতে পারেন তার জন্য এখন থেকেই শাড়ির যত্নে লেগে পড়ুন আর শাড়িতেই হয়ে উঠুন অনন্যা!

- Advertistment -