লোক থিয়েটারের বিজয় উৎসব

আনন্দন প্রতিবেদন

বৃহস্পতিবার , ১৭ জানুয়ারি, ২০১৯ at ৪:৪৩ পূর্বাহ্ণ
25

মহান মুক্তিযুদ্ধ বাঙালি তথা বাংলাদেশের উন্মেষকাল। পরাধীনতার শৃঙ্খল ভেঙে বাঙালি অতিক্রম করছে বিজয়ের ৪৮ বছর। এ উপলক্ষে লোক থিয়েটার গত ১৯ ডিসেম্বর, বুধবার চট্টগ্রাম জেলা শিল্পকলা একাডেমিতে আয়োজন করেছে বিজয় উৎসব।
ভারতীয় সহকারী হাই কমিশনের সহযোগিতায় আয়োজিত উৎসবের উদ্বোধনি পর্বে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ভারতীয় সহকারী হাই কমিশনার শ্রী অনিন্দ ব্যানার্জী।
বিকেল ৫ টায় শিল্পকলা একাডেমীর মুক্তমঞ্চে লোক থিয়েটারের প্রধান সমন্বয়ক মনসুর মাসুদের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন মোসলেম উদ্দিন সিকদার, নাট্যজন সাইফুল আলম বাবু।
বক্তারা বলেন, হাজার বছরের ঐতিহ্য সম্পদে সমৃদ্ধ বাংলা সংস্কৃতি। একাত্তরের রক্তক্ষয়ী মুক্তিযুদ্ধের মাধ্যমে অর্জিত স্বাধীনতা বাংলা সংস্কৃতিতে যুক্ত করেছে নতুন মাত্রা। বাংলা নাটক, গান, কবিতাসহ সংস্কৃতির সকল শাখায় উচ্চারিত হয়েছে মুক্তিযুদ্ধের বীরত্বগাথা।
বক্তারা মুক্তিযুদ্ধের বীর সেনানীদের প্রতি শ্রদ্ধা জ্ঞাপন করেন এবং আমাদের সৌহার্দ্য ও বন্ধুপ্রতীম রাষ্ট্র ভারতকে মহান মুক্তিযুদ্ধে অকৃত্রিম অবদানের জন্য কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন করেন। সুস্থ নাট্য চর্চায় নিয়োজিত লোক থিয়েটারকে এ ধরণের অনুষ্ঠান আয়োজনের জন্য ধন্যবাদ জানান।
এরপর মুক্ত মঞ্চে আবৃতি পরিবেশন করেন প্রমা আবৃত্তি সংগঠন, সঞ্চিতা দত্তের পরিচালনায় নৃত্য পরিবেশন করেন নাটরাজ নৃত্যাঙ্গন একাডেমি, একক সংগীত পরিবেশন করেন শিল্পী ইকবাল হায়দার।
সন্ধ্যা ৭ টায় মূল মিলনায়তনে লোক থিয়েটার পরিবেশন করে মুক্তিযুদ্ধের নাটক ‘সময়ের প্রয়োজনে’। জহির রায়হানের কালজয়ী এই গল্পের নাট্যরূপ দিয়েছেন ডাঃ মোহাম্মদ বারী, নির্দেশনা দিয়েছেন নাট্য নির্দেশক মনসুর মাসুদ।
মুক্তিযুদ্ধকালীন একটি যুদ্ধক্যাম্প পরিদর্শনে যান লেখক জহির রায়হান। ক্যাম্প কমান্ডারের সাথে লেখকের আলাপচারিতায় উঠে আসে যোদ্ধাদের বীরত্ব এবং প্রহসন কাহিনী। মুক্তিযোদ্ধা মামুনের লেখা ডায়রিতে চিত্রায়িত হয় সহযোদ্ধাদের হাসি, কান্না, প্রেম, এবং দেশকে মুক্ত করার প্রতিজ্ঞায় আবদ্ধ থাকার গল্প। সেই সাথে তারা স্বপ্ন দেখতে থাকে যুদ্ধ শেষে সুন্দর সোনার বাংলাদেশ।
সহযোদ্ধার মৃত্যু যেমন মঞ্চজুড়ে করুন আর্তি সৃষ্টি করে ঠিক তেমনই একজন পাক হানাদারকে মারতে পারলে তারা উল্লাসে ফেটে পড়ে। এই যে যুদ্ধ, এই যে রক্তপাত সবকিছু মূলত আবর্তিত হয়েছে সময়ের প্রয়োজনে। এবং এই যোদ্ধারাই, কালের সাহসী সন্তানেরাই সময়ের প্রয়োজনে অস্ত্র তুলে নিতে সদা প্রস্তুত। নাটকে বিভিন্ন চরিত্রে অভিনয় করেন মনসুর মাসুদ, কে এম সাইফুল ইসলাম, খোকন মাহী, রেহানা বেগম হেলেন, নিলীমা আহমেদ উপমা, শান্তা নন্দী, সুচীদেব, সৃজা দাশ, চৈতী কুন্ডু, আলাউদ্দীন আকাশ, সাইফুল ইসলাম, সজিব শীল, মোঃ সাহেদ, শাহীদ হোসেন প্রমুখ।

x