লুৎফুন নাহার ভূঁইয়া (মোদের গরব মোদের আশা-আ-মরি বাংলা ভাষা)

শুক্রবার , ২৩ ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ at ৬:০০ পূর্বাহ্ণ
123

সেদিন আমরা অধিকার আদায়ে একত্রিত ছিলাম তাই আমাদের সবার একত্রিত সুর ২১ শে ফেব্রুয়ারিতে প্রতি বছর বেজে ওঠে একইভাবে সারা বিশ্বে, আমার ভাইয়ের রক্তে রাঙানো ২১ শে ফেব্রুয়ারি,আমি কি ভুলিতে পারি।

না, আমরা তোমাদের ভুলি নাই । অনেকে বলে আমাদের দেশে কবে একজন কেজরিওয়ালার

(দিল্লীর মুখ্যমন্ত্রী) জন্ম হবে? আমার তো মনে হয় সেই ৫২ তেই আমাদের কেজরিওয়ালার জন্ম হয়েছে । আমার ভাই, সালাম, রফিক, শফিক,বরকত, জব্বার ওরাই তো আমাদের কেজরিওয়ালা । ওরা ছাড়া আর কে পারে মাকে এমন করে ভালবাসতে? আমি স্বপ্ন দেখি স্বপ্নে বাঁধি ঘর /২১ থেকে একাত্তরে স্বপ্নে তাই আমি বিভোর। আমি ২১ কে নিয়ে তাই কাঁদতে আসিনি। আমি স্বপ্নকে সত্যি করতে এসেছি। কৃষ্ণচূড়ার তলে যারা প্রাণ দিয়েছে আমি তাদের কথা বলতে এসেছি। আমি হৃদয়ের কথাকে বোধে জাগাতে এসেছি । আমার ভাইরা যেখানে প্রাণ দিয়েছে আমি হাজার বছর পরেও সেখানে ফিরে আসব,গাইব ,আমার ভাইয়ের রক্তে রাঙানো একুশে ফেব্রুয়ারি। সেদিনের কাছে বাঙালি চির ঋণী /২১ তোমাকে আমরা আজো ভুলিনি। প্রায় ৬২ বছর পরে আমার দুঃখিনী ভাষা আজ আমার কাছে মনে হয় এক অবহেলিত, রুগ্ন এক ভাষা। সোশ্যাল মিডিয়াতে যেনতেন ভাবে ভাষাকে মর্যাদাহীন করা হচ্ছে । এর যেন কোন মান নেই, ব্যাকরণ নেই। স্কুলগুলোতে ভাষার কোন মর্যাদা নেই। মনে হচ্ছে বাংলায় একটু কথা বলতে পারলেই এর দায় শেষ । এরকম কেন হবে? ভাষার তো একটা কাঠামো আছে, তাকে রক্ষা করার দায়িত্ব কার অবশ্যই আমার /আপনার। ভাষাকে সুন্দর করে উপস্থাপন করতে হবে। প্রমিত ভাষায় কথা বলা, লেখা ,চর্চা করতে হবে। আমরা যারা দেশের বাহিরে আছি তারা ভাষার জন্য নিজেকে কিছুটা নিয়োগ করতে পারি। বাংলা স্কুল, পাঠাগার, কালচারাল প্রোগ্রাম এর মাধ্যমে বাংলা ভাষার চর্চা বাড়াতে পারি ভবিষ্যৎ প্রজন্ম বাংলায় শুধু কথা বলবে না, বাংলা লিখবে, শিখবে,বাংলাকে হ্রদয়ে ধারণ করবে অভিভাবকগণ এদিকে বিশেষ দৃষ্টি দিবেন, আমার বিনীত অনুরোধ রইল। ভাষাকে মর্যাদার সাথে, মায়ের মত করে ভালবাসবেন সবাই।

x