লালদীঘির বৃক্ষমেলায় ১২ দিনে  ২ লক্ষ চারা বিক্রি

মালটাসহ ১টি চারা ৩২ হাজার টাকা

শনিবার , ১১ আগস্ট, ২০১৮ at ৪:৩৬ পূর্বাহ্ণ
43

লালদীঘি ময়দানে পক্ষকালব্যাপী বৃক্ষমেলার ১২ দিন অতিবাহিত হয়েছে। দ্বাদশ দিনেও ক্রেতাদর্শকের মধ্যে নারী শিশুদেরও কমতি ছিল না। ছাত্রছাত্রীরাও কিনছে পছন্দের গাছের চারা। দিন দিন ক্রেতা দর্শক বাড়ছে। বন বিভাগের তথ্যকেন্দ্র সূত্রে জানা যায়, মেলায় বিভিন্ন নার্সারিতে ১২ দিনে প্রায় ২ লক্ষ বিভিন্ন প্রজাতির চারা বিক্রি হয়েছে। গত বছরের তুলনায় এ বছর মেলায় বেশী চারা বিক্রি হচ্ছে। মেলায় ১২ দিনে ৬২ হাজার ১ শত ৩০টি বনজ, ৫৭ হাজার ৪ শত ২৫টি ফলদ, ২০ হাজার ৮ শত ৪৭ টি ঔষধি বা ভেষজ, ২৯ হাজার ৩ শত ৭২টি শোভা বর্ধক ও ৩০ হাজার ৩ শত ৫৭ টি লতা, গুল্ম, অর্কিড, ক্যাকটাস, বনসাঁই, কলমচারা, দেশীবিদেশী প্রজাতির চারা ও অন্যান্য শ্রেণিরর চারা বিক্রি হয়েছে।

চট্টগ্রাম উত্তর বন বিভাগের শহর রেঞ্জ কর্মকর্তা রেজাউল আলম ফরেস্ট রেঞ্জার জানান, মেলায় দূরদূরান্ত হতে ক্রেতারা আসছে। চারা কেনার সাথে সাথে নার্সারি মালিকরা অর্ডার বুক করছে। এ মেলায় হরেক রকম দেশীবিদেশী প্রজাতির চারা পাওয়া যাচ্ছে। কসমো নার্সারির স্বত্বাধিকারী আবুল কালাম আজাদ জানান, দৃষ্টি নন্দন মালটাসহ ১ টি চারা ৩২ হাজার টাকা এবং একটি কমলার চারা ৩০ হাজার টাকায় বিক্রি করেছেন। চারা বিক্রেতা কফিল উদ্দিন জানান, হালিশহর এলাকার এক ব্যক্তি ছাদের জন্য এ চারা ২টি ৫২ হাজার টাকায় ক্রয় করেন। শহরের কেন্দ্রবিন্দুতে এ মেলার সুবাদে ছাদে লাগানোর জন্য দৃষ্টিনন্দন চারার চাহিদা ক্রেতাদের মধ্যে বেশী। চট্টগ্রাম মহানগর নার্সারি মালিক সমিতির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মুক্তিযোদ্ধা স্বপন কান্তি শীল জানান, ইউনিসেফের সহায়তায় তৈরী করা চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের জৈব সার চারার সাথে প্রচুর বিক্রি হচ্ছে। দৈনিক গড়ে দেড়/দুই শত কে. জি সার বিক্রয় ছাড়াও বেশ কিছু সারের বুকিং পাওয়া গেছে। এ সার ব্যবহারে চারা দ্রুত বৃদ্ধি পায়, জমিতে ফলন বাড়ে, জমির উর্বরতা বৃদ্ধি করে। চট্টগ্রাম মহানগর নার্সারী মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক বাহাদুর নার্সারির স্বত্বাধিকারী আবুল হোসেন জানান, মেলায় সর্বনিম্ন ৫ টাকায়ও চারা পাওয়া যাচ্ছে। এবারের মতো চারা বিক্রয় অতীতে হয়নি। এ মেলায় বন বিভাগের ব্যবস্থাপনা ভালো। মেলায় সুন্দর বনের মধু, কালো জিরার তৈল বিক্রেতা মুহাম্মদ নুরুল হক জানান, ১২ দিনে ৩৬ কেজি মধু বিক্রয় হয়েছে। কালি জিরার তৈলও বেশ বিক্রয় হচ্ছে।

মেলায় চট্টগ্রাম উত্তর বন বিভাগের নিয়ন্ত্রণ ও তথ্য কেন্দ্র, বন্যপ্রাণী ও প্রকৃতি সংরক্ষণ বিভাগ, বাংলাদেশ বন গবেষণা ইনস্টিটিউট, চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন, সিএমপি পুলিশ কন্ট্রোলরুম, ব্র্যাক নার্সারিসহ সরকারী, বেসরকারী ৫০টি স্টল স্থাপন করা হয়েছে। এ মেলা কাল ১২ আগস্ট পর্যন্ত চলবে। প্রতিদিন মেলা সকাল থেকে রাত ৯টা পর্যন্ত উন্মুক্ত থাকবে। খবর বিজ্ঞপ্তির।

x