রেলে যুক্ত হচ্ছে অটো ওয়াশিং প্ল্যান্ট

মাত্র ২০ মিনিটে পরিষ্কার হবে ট্রেন, ঢাকা ও রাজশাহী স্টেশনে প্ল্যান্ট দুটি স্থাপনের চুক্তিমূল্য ৩২ কোটি ৪০ লাখ টাকা

শুকলাল দাশ

বৃহস্পতিবার , ১২ জুলাই, ২০১৮ at ৬:২৫ পূর্বাহ্ণ
142

দ্রুত যাত্রীসেবা প্রদানের লক্ষ্যে বাংলাদেশ রেলওয়েতে প্রথমবারের মতো যুক্ত হচ্ছে অটোমেটিক ট্রেন ওয়াশিং প্ল্যান্ট। মিটারগেজ এবং ব্রডগেজের দু’টি ইউনিটের মধ্যে প্রথম ইউনিট বসছে অক্টোবরে। এসব ওয়াশিং প্ল্যান্টে সম্পূর্ণ অটোমেটিক মেশিনে কোন প্রকার হাতের ছোঁয়া ছাড়াই মাত্র ২০ মিনিটেই একটি ট্রেন পরিষ্কার করা সম্ভব হবে।

রেলওয়ে পূর্বাঞ্চলের সংশ্লিষ্ট বিভাগ জানায়, বর্তমানে ঢাকা ও রাজশাহীতে অবস্থিত ওয়াশ ফিল্ডে সম্পূর্ণ ম্যানুয়াল পদ্ধতিতে হাত দিয়ে প্রতিটি ট্রেন পরিষ্কার করা হয়। এতে প্রতিটি ট্রেন পরিষ্কারে ন্যূনতম দেড় ঘণ্টা বা অতিরিক্ত বগিসম্পন্ন ট্রেনের ক্ষেত্রে ২ ঘণ্টা সময় ব্যয় হয়। এই ব্যাপারে প্রকল্প পরিচালক ও বাংলাদেশ রেলওয়ের প্রধান যান্ত্রিক প্রকৌশলী হারুনুর রশিদ আজাদীকে জানান, ঢাকার কমলাপুর এবং রাজশাহী স্টেশনে বসছে পৃথক দু’টি প্ল্যান্ট। রেল মন্ত্রণালয়ের ২০০টি মিটারগেজ ও ৫০টি ব্রডগেজ গাড়ি ক্রয় প্রকল্পের অধীনে এসব প্ল্যান্ট স্থাপন করা হবে। আমেরিকা থেকে ক্রয় করা এসব প্ল্যান্ট স্থাপনে চুক্তিমূল্য ধরা হয়েছে মোট ৩২ কোটি ৪০ লাখ টাকা।

রেলওয়ের সংশ্লিষ্ট বিভাগের কর্মকর্তারা জানান, যাত্রী সেবার মান বৃদ্ধির অংশ হিসেবে দেশে প্রথমবারের মতো ঢাকা কমলাপুর রেল স্টেশন ও রাজশাহীতে অটোমেটিক ট্রেন ওয়াশিং প্ল্যান্ট স্থাপন করা হচ্ছে। একই সাথে যাত্রীদের সময়মতো গন্তব্যে পৌঁছাতে ও পরিষ্কার পরিচ্ছন্নতার অঙ্গীকার নিয়েই রেলওয়েতে নতুন এই পদ্ধতির সংযোজন করা হচ্ছে।

প্রতিটি ট্রেন নির্দিষ্ট ট্রিপ শেষেই পরিষ্কার পরিচ্ছন্নতার স্বার্থে যাতে সহজেই ওয়াশিং প্ল্যান্টে ওয়াশ করা যায় সেই জন্য স্টেশনের সাথে লাগোয়া স্থানেই এই প্ল্যান্ট দু’টি বসানো হচ্ছে বলে জানান, প্রকল্প পরিচালক প্রকৌশলী হারুনুর রশিদ। তিনি বলেন, এসব ওয়াশিং প্ল্যান্টে প্রতিটি ট্রেন সম্পূর্ণ অটো পদ্ধতিতে পরিষ্কার করা হবে। অত্যাধুনিক সুবিধা সম্পন্ন এই ওয়াশিং প্ল্যান্টে মাত্র ১৮ থেকে ২০ মিনিটে একটি ট্রেন পরিষ্কার করা সম্ভব হবে। শেডের মতো লম্বা করে বাসানো হবে ওয়াশিং প্ল্যান্ট দুটো। যে কোনো ট্রেন এই প্ল্যান্টের ভেতরে ঢুকেলেই ওয়াশ হয়ে বেরিয়ে যাবে।

উন্নত বিশ্বের প্রায় সব দেশে এমনকি পাশ্ববর্তী দেশেও এসব অটোমেটিক ট্রেন ওয়াশিং প্ল্যান্ট থাকলেও সময়ের সঙ্গে সঙ্গে চাহিদার পরিবর্তন হওয়ায় বর্তমান সরকার দেশে চলতি বছরের অক্টোবরের মধ্যেই এ ওয়াশিং প্ল্যান্ট স্থাপন করার পরিকল্পনা গ্রহণ করেছে। ট্রেন ওয়াশ করার পর প্রতিটি ট্রেনের বাইরের অংশে কোনো প্রকার ময়লা, দাগের চিহ্ন এমনকি ট্রেনের ছাদে বা বগির গায়ে কোনো প্রকার ময়লা কারও চোখে পরবে না। ফলে বাহ্যিক দিক দিয়ে প্রতিটি ট্রেন দেখাবে ঝকঝকে তকতকে ও দৃষ্টিনন্দন।

রেলওয়ের সংশ্লিষ্ট বিভাগের কর্মকর্তাদের সাথে কথা বলে জানা গেছে, বর্তমানে দেশের গুরুত্বপূর্ণ ১৩টি রেল স্টেশনে প্রতিদিন ট্রেনের ট্রিপ শেষে নিয়মিত ম্যানুয়াল পদ্ধতিতে ট্রেন পরিষ্কারের কাজ করা হয়। তবে এর মধ্যে প্রাথমিকভাবে গুরুত্ব বিবেচনায় ঢাকা ও রাজশাহীতে এই দুটি অটোমেটিক ট্রেন ওয়াশিং প্ল্যান্ট স্থাপন করা হচ্ছে। পরবর্তীতে সব স্টেশনে প্ল্যান্ট স্থাপনে সরকারের বিশেষ পরিকল্পনা রয়েছে বলে জানান প্রকল্প পরিচালক।

x