রেলের পূর্বাঞ্চলে বন্ধ ৩৬ স্টেশন

স্টেশন মাস্টারের ৩৮২টি পদ শূন্য, চলতি বছর অবসরে যাচ্ছেন আরও ৪৬ জন

শুকলাল দাশ

শুক্রবার , ১২ এপ্রিল, ২০১৯ at ৫:১৬ পূর্বাহ্ণ
84

স্টেশন মাস্টার সংকটের কারণে বাংলাদেশ রেলওয়ে পূর্বাঞ্চলে ৩৬টি অপারেটিং স্টেশন বন্ধ রয়েছে। এসব স্টেশন বন্ধ থাকার কারণে ট্রেন অপারেশন কার্যক্রম বিঘ্নিত এবং রানিং টাইম বৃদ্ধি পাচ্ছে বলে জানা গেছে। রেল সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের সাথে কথা বলে জানা যায়, বর্তমানে রেলে স্টেশন মাস্টারের পদশূন্য আছে ৩৮২টি। চলতি বছরে আরো ৪৬ জন স্টেশন মাস্টার অবসরে যাবেন। ফলে বন্ধ স্টেশনের সংখ্যা আরো বাড়তে পারে বলে আশঙ্কা করছেন তারা। তবে স্টেশন মাস্টার ও পয়েন্টসম্যান পাওয়া গেলে বন্ধ থাকা গুরুত্বপূর্ণ স্টেশনগুলো ফের চালু করা যাবে বলে জানান পূর্বাঞ্চলের পরিবহন (অপারেশন) বিভাগের কর্মকর্তারা।
রেলওয়ে পূর্বাঞ্চলের চীফ অপারেটিং সুপারেন্টেন্ডেন্টের কার্যালয় থেকে গতকাল জানা গেছে, পূর্বাঞ্চলে ৩৬টি এবং পশ্চিমাঞ্চলে ৭৬টি সহ মোট ১১২টি গুরুত্বপূর্ণ স্টেশন বন্ধ রয়েছে। চলতি বছরে পূর্বাঞ্চলে ২৩ জন এবং পশ্চিমাঞ্চলে ২৩ জন স্টেশন মাস্টার অবসরে যাবেন। স্টেশন মাস্টার স্বল্পতার কারণে স্টেশন বন্ধসহ ট্রেনের সময়ানুবর্তিতার ওপর বিরূপ প্রভাব পড়েছে। ট্রেন চলাচলও ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে উঠেছে।
রেলওয়ে পূর্বাঞ্চলের পরিবহন (অপারেশন) বিভাগের এক কর্মকর্তা গতকাল আজাদীকে জানান, চট্টগ্রাম-ঢাকা রুটে বাড়বকুণ্ড, বারৈয়াঢালা, মীরসরাই, মস্তাননগর, কালিদহ, নাওটি, আলীশাহ, ময়নামতি, লাকসাম-নোয়াখালী সেকশনে খিলা, বজরা, দৌলতগঞ্জ, লাকসাম-চাঁদপুর সেকশনে শাহাতলী এবং চট্টগ্রাম-নাজিরহাট সেকশনে ঝাউতলা স্টেশন স্থায়ী ভাবে বন্ধ রয়েছে। এগুলো চালু করতে হবে। এছাড়াও আংশিক বন্ধ রয়েছে চট্টগ্রাম-ঢাকা রুটের রাজাপুর স্টেশন, চট্টগ্রাম-লাকসাম রুটে চিতোষীরোড স্টেশন। পাশাপাশি পূর্বাঞ্চলের ঢাকা বিভাগে স্থায়ী ভাবে ১৯টি এবং আংশিক ভাবে ২টি স্টেশন বন্ধ রয়েছে।
এ ব্যাপারে বাংলাদেশ রেলওয়ের পশ্চিমাঞ্চলের জেনারেল ম্যানেজার খোন্দকার শহিদুল ইসলাম গত ৭ এপ্রিল রেলওয়ের মহাপরিচালক বরাবর একপত্রে ট্রেন চলাচল নিশ্চিত করার স্বার্থে স্টেশন মাস্টার গ্রেড-৩ ও স্টেশন মাস্টার গ্রেড-৪ এর বিপরীতে ৪২৮ জন সহকারী স্টেশন মাস্টার নিয়োগের উদ্যোগ নিতে আহ্বান জানান। তিনি চিঠিতে উল্লেখ করেন, জনবল সংকটের কারণে স্টেশন মাস্টারদের ছুটির স্থলে অন্য কাউকে দায়িত্ব দেয়া যাচ্ছে না। ফলে ট্রেন সিডিউল বাতিল করতে হচ্ছে। তিনি ট্রেন চলাচল নিরবচ্ছিন্ন করতে ৭২ জন গ্রেড-৩ ও ৩১০ জন গ্রেড-৪ ‘স্টেশন মাস্টার’ বিশেষ বিবেচনায় নিয়োগ দিতে রেলওয়ের ডিজিকে অনুরোধ করেন।

x