রুমা সীমান্ত দিয়ে অনুপ্রবেশের অপেক্ষায় ৩৫ রোহিঙ্গা পরিবার

সতর্ক বিজিবি

বান্দরবান প্রতিনিধি

মঙ্গলবার , ৫ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ at ৮:১৯ পূর্বাহ্ণ
44

বান্দরবানের রুমা উপজেলার চৈক্ষং সীমান্ত দিয়ে বাংলাদেশের অনুপ্রবেশের পথে অগ্রসর হয়েছে মিয়ানমারের ৩৫টি পরিবারের ৭৬ জন শরণার্থী। তারমধ্যে রয়েছেন খুমি সম্প্রদায়ের ৪৮ জন এবং রাখাইন সম্প্রদায়ের ২৩ জন শরণার্থী। গতকাল সোমবার বিকাল পর্যন্ত তারা বাংলাদেশে অনুপ্রবেশ করতে পারেনি।
বিষয়টি নিশ্চিত করে বান্দরবানের জেলা প্রশাসক মো. দাউদুল ইসলাম জানান, মিয়ানমারের চীন প্রদেশে বিচ্ছিন্নতাবাদীদের সঙ্গে সেনাবাহিনীর সংঘর্ষের ঘটনায় সেনা সদস্যরা ঘরে ঘরে তল্লাশি চালাচ্ছে। আতঙ্কে ঐ প্রদেশের অনেক শরণার্থী বাংলাদেশে অনুপ্রবেশ করতে মিয়ানমার-বাংলাদেশ সীমান্তের জিরো পয়েন্টে বান্দরবান জেলার রুমা উপজেলার পাশ্ববর্তী স্থানে অবস্থান নিয়েছে। জিরো পয়েন্টে আশ্রয় নেয়া শরণার্থীদের মধ্যে খুমি সম্প্রদায়ের ৪৮ জন এবং রাখাইন সম্প্রদায়ের ২৩ জন শরণার্থী বাংলাদেশে অনুপ্রবেশের জন্য রুমা উপজেলার দুর্গম রেমাক্রী পাংসা ইউনিয়নের ৭২ নাম্বার পিলারের কাছে চাইক্ষিয়াং পাড়ার কাছাকাছি চলে এসেছে। তবে অনুপ্রবেশ ঠেকাতে সীমান্তে সতর্ক অবস্থায় রয়েছে বিজিবি।
বিজিবি ও স্থানীয়রা জানায়, জেলার মিয়ানমার সীমান্তবর্তী রুমা উপজেলার দুর্গম রেমাক্রী পাংসা ইউনিয়নের ৭২ নাম্বার পিলারের কাছে চাইক্ষিয়াং পাড়ার অপরপ্রান্তে মিয়ানমারের অভ্যন্তরে প্রায় ২ শতাধিক শরণার্থী অবস্থান করছে। মিয়ানমারের চীন রাজ্যের প্লাতোয়া জেলায় সম্প্রতি মিয়ানমারের বিচ্ছিন্নতাবাদী গ্রুপ আরাকান আর্মির সঙ্গে সে দেশের সেনাবাহিনীর ব্যাপক সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। সীমান্তের ওপারে খামংওয়া, তরোয়াইন, কান্তালিন, এলাকাগুলোর বিভিন্ন পাড়ায় ব্যাপক গোলাগুলি এবং হেলিকাপ্টার থেকে বোমা বর্ষন করছে মিয়ানমারের সেনাবাহিনী। ঘরে ঘরে তল্লাশি করে লোকজনদের ধরে নিয়ে যাচ্ছে সেনারা। আতঙ্কে শরণার্থীরা মিয়ানমার সীমান্তবর্তী বান্দরবানের চাইক্ষিয়াং পাড়া, নেপু পাড়াসহ কয়েকটি পাড়ায় অবস্থানের জন্য অনুপ্রবেশের চেষ্টা চালাচ্ছে।
এ ব্যাপারে বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ বিজিবি বান্দরবান সেক্টরের কমান্ডার কর্নেল জহিরুল ইসলাম জানান, সীমান্তঞ্চলে অবস্থানরত শরণার্থীদের বাংলাদেশের ভুখণ্ডে অনুপ্রবেশ ঠেকাতে রুমা ব্যাটালিয়নের সেনাবাহিনী ও বিজিবির ৪টি দল সীমান্তঞ্চলে টহলে রয়েছে। সার্বিক পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণে সতর্ক রয়েছে বিজিবি।

x