রুবি নন্দী (দয়া বা করুণা নয়)

রবিবার , ১০ মার্চ, ২০১৯ at ১০:১১ পূর্বাহ্ণ
70

সেদিন ওষুধের দোকানে এক পোশাক শ্রমিক বোনকে দেখলাম,উৎকণ্ঠিত হয়ে দোকানদারকে বলছিলো, সকালে যাওয়ার সময় ছেলেটার জ্বর দেখেছিলাম, এখন রাত হয়ে গেলো আমি নিয়ে গেলে তবে ওষুধ পেটে পড়বে। কারণ ছেলের বাপ, কাজ থেকে ফেরার পথে বন্ধুদের সঙ্গে তাসের আড্ডায় বসে। প্রায়ই নেশা করে অনেক রাত করে ঘরে ফিরে। ঠিক সময়ে রাতের খাবার দিতে না পারলে গায়ে হাত তুলে! কতোটা কষ্ট জমা হলে,একটা মেয়ে অবলীলায়,জনসন্মুখে এভাবে বলতে পারে? মন অনেক অসহায় নারীর জীবন কাহিনী গল্প, নাটককে হার মানায়। সারাদিন অক্লান্ত পরিশ্রমের পর রাস্তায় নিরাপত্তাহীনতা, বাসায় হিংস্রতা যাদের নিত্যসঙ্গী! এই সংগ্রামী নারীরা সব কষ্ট ভুলে সমাজে মাথা উঁচু করে বাঁচবে এমন স্বপ্ন দেখি সবসময়! নারী হিসাবে দয়া কিংবা করুণায় নয়, মানুষ হিসাবে বিশ্বের প্রতিটি নারী হোক সম্মানের অধিকারী!

x