রাইফার মৃত্যু ‘মেডিকেল মার্ডার’ কিনা তা খতিয়ে দেখার অনুরোধ

সাংবাদিকদের আন্দোলন-সংগ্রামে সম্পাদকদের সংহতি প্রকাশ, তদন্ত প্রভাবিত করলে লাগাতার আন্দোলনের ঘোষণা

আজাদী প্রতিবেদন

বুধবার , ৪ জুলাই, ২০১৮ at ৯:৪২ পূর্বাহ্ণ
136

নগরীর বেসরকারি ম্যাক্স হাসপাতালে ভুল চিকিৎসা ও চিকিৎসকের অবহেলায় দৈনিক সমকালের জ্যেষ্ঠ সাংবাদিক রুবেল খানের আড়াই বছরের শিশু রাইফা খানের মৃত্যুর ঘটনায় এবার একাট্টা হয়েছেন চট্টগ্রামের পত্রিকা সম্পাদকগণ। সাংবাদিকদের চলমান আন্দোলনসংগ্রামের প্রতি নিজেদের সমর্থন ব্যক্ত করে পত্রিকায় অভিন্ন সম্পাদকীয় প্রকাশ করার সিদ্ধান্তের কথা জানিয়েছেন তারা। দুই একদিনের মধ্যেই এ অভিন্ন সম্পাদকীয় প্রকাশিত হবে বলে জানান সম্পাদকরা। চট্টগ্রামে চিকিৎসা সেবায় বিভিন্ন অনিয়ম দূর এবং হয়রানিমুক্ত ন্যায্য চিকিৎসা সেবা নিশ্চিত করতে এ ধরনের সম্পাদকীয় প্রকাশের সিদ্ধান্ত বলে জানান তারা। সাংবাদিক নেতৃবৃন্দের সঙ্গে চট্টগ্রামের সম্পাদকবৃন্দের এক বৈঠকে চট্টগ্রামের চিকিৎসা ব্যবস্থা ও সিস্টেমের আমুল পরিবর্তন আনারও তাগিদ দেয়া হয়েছে। গতকাল মঙ্গলবার দুপুরে চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাবে সাংবাদিকদের সঙ্গে এক বৈঠকে সম্পাদকেরা এ সংহতি প্রকাশ করেন। বৈঠক থেকে রাইফার মৃত্যু মেডিকেল মার্ডার কিনা তা খতিয়ে দেখার তদন্ত কমিটির প্রতি অনুরোধ জানানো হয়।

এদিকে রাইফার অনাকাঙিক্ষত মৃত্যুর ঘটনায় চট্টগ্রাম কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে আয়োজিত প্রতিবাদী সমাবেশে সাংবাদিক নেতারা অভিযোগ করেছেন, রাইফা মৃত্যুর ঘটনায় দায়ীদেরকে আড়াল এবং ম্যাক্স হাসপাতালকে বাঁচাতে ডাক্তারদের ব্যবহার করছেন বিএমএ নেতা ডা. ফয়সাল ইকবাল চৌধুরী। তারা অবিলম্বে ফয়সাল ইকবালের ডাক্তারি সনদ বাতিলের দাবিও জানান।

সম্পাদকদের সাথে বৈঠক : রুবেল খানের কন্যার মৃত্যুর ঘটনার তদন্ত করে দোষী চিকিৎসকদের বিচার ও চট্টগ্রামের চিকিৎসা ব্যবস্থায় অনিয়ম ও অব্যবস্থাপনার লাগাম টানতে আয়োজিত সভায় উপস্থিত ছিলেন দৈনিক পূর্বকোণের সম্পাদক ডা. রমিজ উদ্দিন চৌধুরী, দৈনিক আজাদীর পরিচালনা সম্পাদক ওয়াহিদ মালেক, সুপ্রভাত বাংলাদেশের সম্পাদক রুশো মাহমুদ ও পূর্বদেশ পত্রিকার সম্পাদক মজিবুর রহমান সিআইপি।

চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাবের সভাপতি কলিম সরোয়ারের সভাপতিত্বে সভায় বক্তব্য রাখেন, চট্টগ্রাম সাংবাদিক ইউনিয়নের (সিইউজে) সভাপতি নাজিমুদ্দীন শ্যামল, বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের সহসভাপতি শহীদ উল আলম, সিইউজের সাধারণ সম্পাদক হাসান ফেরদৌস, প্রেস ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক শুকলাল দাশ, সিইউজের সাবেক সভাপতি রিয়াজ হায়দার চৌধুরী ও সিইউজের যুগ্ম সম্পাদক সবুর শুভ প্রমুখ।

সভায় উপস্থিত ছিলেন সিনিয়র সাংবাদিক মোয়াজ্জেমুল হক, নওশের আলী খান, খোরশেদ আলম, সিইউজের সহসভাপতি মোহাম্মদ আলী, বিএফইউজের যুগ্ম মহাসচিব তপন চক্রবর্তী, প্রেস ক্লাবের যুগ্ম সম্পাদক চৌধুরী, অর্থ সম্পাদক দেব দুলাল ভৌমিক, প্রেস ক্লাবের নির্বাহী সদস্য ম. শামসুল ইসলাম, সিনিয়র সাংবাদিক কামাল পারভেজ, সিইউজের সাংগঠনিক সম্পাদক ইফতেখারুল ইসলাম, প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক আহমেদ কুতুব প্রমুখ।

সভায় পূর্বকোণ সম্পাদক সম্পাদক ডা. রমিজ উদ্দিন চৌধুরী বলেন, সাংবাদিক রুবেল খানের শোকাহত পরিবারের মতো পূর্বকোণ পরিবারও শোকাহত। ম্যাক্স হাসপাতাল থেকে শিশু রাইফার লাশ বের হয়ে আসলো, বাবার হাতে সন্তানের লাশের ছবি দেখে আমি পাথর, স্তব্ধ ও বাকরুদ্ধ হয়ে যাই। আমি আশা করি এ ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত হবে। যারা ইচ্ছা ও অনিচ্ছাকৃতভাবে এ ঘটনার সঙ্গে জড়িত তাদের বিচার চাই। চট্টগ্রাম ও ঢাকায় চিকিৎসা ব্যবস্থায় অনেক সমস্যা আছে, এই চিকিৎসা সিস্টেমের পরিবর্তন আনতে হবে। চট্টগ্রামের ক্লিনিক ও হাসপাতালের উন্নয়ন হলে এ ধরণের ঘটনার পুনরাবৃত্তি হবে না।

আজাদীর পরিচালনা সম্পাদক ওয়াহিদ মালেক বলেন, রুবেল খানের কন্যার মৃত্যুতে আজাদী পরিবার শোকাহত। আমরা সকল সাংবাদিকদের সাথে আছি। রুবেল খানের কন্যার মতো অভিযোগ উঠা সকল মৃত্যুর সুষ্ঠু তদন্ত হউক। যারা রোগী মৃত্যুর ঘটনায় দায়ী তাদের বিচার চাই। ডাক্তাররা রাস্তা অবরোধ করে আন্দোলন করছেন, কিন্তু সাংবাদিকরা যাতে এ ধরণের কোন কাজ না করেন। সুপ্রভাত বাংলাদেশের সম্পাদক রুশো মাহমুদ বলেন, যেসব তথ্যউপাত্ত এখন পর্যন্ত পেয়েছি আমি নিশ্চিত ভুল চিকিৎসা ও অবহেলার কারণে রাইফার মৃত্যু হয়েছে। এটা মেডিকেল মার্ডারের পর্যায়ে পড়ে কিনা তা তদন্ত কমিটিকে খতিয়ে দেখার অনুরোধ করছি। এখন পেশাজীবী সংগঠনের মধ্যে রাজনৈতিক প্রভাব থাকায় অযোগ্য ও বিতর্কিত মানুষজন নেতৃত্বে চলে আসেন। এসব বিতর্কিত ব্যক্তিদের চিহ্নিত করে তাদের অতীত ও বর্তমান সাধারণ মানুষের সামনে তুলে ধরার পর্যায়ে চলে এসেছে। এখনই এদের লাগাম টেনে ধরতে হবে। ধৈর্য্যের সঙ্গে পরিস্থিতি মোকাবেলা করে রাইফা হত্যার বিচার নিশ্চিত করতে হবে।

পূর্বদেশ সম্পাদক মজিবুর রহমান সিআইপি বলেন, আমরাও মানুষ। মানুষ হিসেবে শিশু রাইফার অবহেলায় মৃত্যুর বিচার চাই। এ ঘটনায় পূর্বদেশ পরিবার সাংবাদিক সমাজের সঙ্গে রয়েছে। আমরা আপনাদের থেকে আলাদা নই। বক্তব্যের এক পযার্য়ে চট্টগ্রামের শীর্ষস্থানীয় দৈনিকগুলোর সম্পাদকরা অভিন্ন সম্পাদকীয় প্রকাশের বিষয়ে নিজেদের ঐক্যমতের কথা তুলে ধরেন। এসময় সাংবাদিক নেতারা তাদের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন।

শহীদ মিনারে সমাবেশ: শিশু রাইফা খানকে হত্যার বিচারে তিন দফা দাবি আদায় না করে ঘরে ফিরে যাবে না সাংবাদিক সমাজ। ওসি ও সাংবাদিকদের হুমকিদাতা চট্টগ্রামের স্বাস্থ্য খাতকে জিম্মিকারী ডা. ফয়সাল ইকবালের হাতে জিম্মি চট্টগ্রামের ১ কোটি স্বাস্থ্যসেবা গ্রহনকারী মানুষকে মুক্ত করবে সাংবাদিকজনতার ঐক্যবদ্ধ আন্দোলন। রাইফা মৃত্যুর তদন্ত প্রভাবিত করলে আগামী রোববার থেকে লাগাতার আন্দোলনের ঘোষণা দিয়েছে সাংবাদিক নেতৃবৃন্দ। গতকাল মঙ্গলবার চট্টগ্রাম শহীদ মিনারে চট্টগ্রাম সাংবাদিক ইউনিয়ন আয়োজিত সাংবাদিকজনতার সমাবেশে বক্তারা এসব কথা বলেন।

সভায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে রাইফা হত্যার ঘটনায় অবৈধঅনুমোদনহীন ম্যাক্স হাসপাতাল বন্ধ, অভিযুক্ত চিকিৎসকদের শাস্তি ও কথায় কথায় মানুষ জিম্মিকারী ডা. ফয়সাল ইকবালের চিকিৎসা সনদ বাতিলের দাবি জানানো হয়। চট্টগ্রাম সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি নাজিমুদ্দীন শ্যামলের সভাপতিত্বে সাধারণ সম্পাদক হাসান ফেরদৌসের পরিচালনায় সভায় বক্তব্য রাখেনচট্টগ্রাম প্রেস ক্লাবের সভাপতি কলিম সরোয়ার, বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের (বিএফইউজে) সহসভাপতি শহীদ উল আলম, চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক শুকলাল দাশ, বিএফইউজের কেন্দ্রীয় নেতা মোল্লা জালাল, সিইউজের সাবেক সভাপতি মোস্তাক আহমেদ, রিয়াজ হায়দার চৌধুরী, সিইউজে সহসভাপতি মোহাম্মদ আলী, বিএফইউজের যুগ্ম মহাসচিব তপন চক্রবর্তী, প্রেস ক্লাবের সিনিয়র সহসভাপতি কাজী আবুল মনসুর, যুগ্ম সম্পাদক চৌধুরী ফরিদ, সিইউজের যুগ্ম সম্পাদক সবুর শুভ, বাংলাদেশ ফটো সাংবাদিক এসোসিয়েশনের সভাপতি দিদারুল আলম, একুশে টিভির আবাসিক সম্পাদক রফিকুল বাহার, সমকালের ব্যুরো প্রধান সারোয়ার সুমন, ম্যাক্সে ভুল চিকিৎসায় ভুক্তভোগী পরিবারের সদস্য স্বামী হারানো নাজমা আক্তার মিতা ও বিচারকের স্ত্রী সায়মার মা নারগিস বেগম, পরিবেশবিদ ড. ইদ্রিস আলী, চট্টগ্রাম ১৪ দলের নেতা মিতুল দাশ গুপ্ত, মহানগর যুবলীগের যুগ্ম আহবায়ক ফরিদ মাহমুদ, ওয়ার্কাস পার্টি চট্টগ্রাম মহানগরের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সাদক শরীফ চৌহান, আওয়ামী লীগ দক্ষিণ জেলার শ্রম বিষয়ক সম্পাদক খোরশেদ আলম, বাংলাদেশ কমিউনিষ্ট পার্টির চট্টগ্রাম জেলার সদস্য কমরেড অমৃত বড়ূয়া প্রমুখ। বক্তব্য রাখেন, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি বায়েজীদ ইমনসহ অন্যান্যরা। বৃষ্টি উপেক্ষা করে দীর্ঘ তিন ঘন্টা ধরে চলা এ সমাবেশে বিভিন্ন রাজনৈতিক, সামাজিক, সাংস্কৃতিক ও পেশাজীবী সংগঠনের নেতাকর্মী ও সাধারন মানুষ যোগ দেন।

x