রশিদ-মুজিবদের সামলানো কঠিন বললেন মোসাদ্দেক

ক্রীড়া প্রতিবেদক

বুধবার , ১৮ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ at ১১:০২ পূর্বাহ্ণ
49

মাত্র তিন মাসও হয়নি। রশিদ খানের লেগি আর মোহাম্মদ নবীর অফ স্পিনকে কঠোর হাতে দমন করে বিশ্বকাপে আফগানদের হারিয়েছে বাংলাদেশ। সাকিব আল হাসাদের দুর্দান্ত পারফরম্যান্স এখনো টাইগার সমর্থকদের স্মৃতিতে জাগরুক থাকার কথা। কিন্তু তিন মাস না যেতেই সেই রশিদ-নবী-মুজিবরা একেবারে অপ্রতিরোধ্য হয়ে গেল। এখন এই আফগান স্পিনারদের মোকাবেলার উপাই খুঁজতে হচ্ছে বাংলাদেশের ব্যাটসম্যানদের। টেস্টের পর টি-টোয়েন্টি সিরিজেও আফগান স্পিনারদের সামনে অসহায় হয়ে পড়েছেন বাংলাদেশের ব্যাটসম্যানরা। রশিদ খান কিংবা মুজিব উর রহমান টাইগার ব্যাটসম্যানদের জন্য যেন মূর্তিমান আতংকে পরিণত হয়েছে। গেল বিশ্ব্‌কাপে রশিদ খানের পারফরম্যান্স কেমন ছিল সেটা অজানা থাকার কথা নয় কারো। এখন সে রশিদ খান কিনা একেবারে দুঃসাধ্য এক বোলারে পরিণত হয়েছে। বাংলাদেশ দলের অল রাউন্ডার মোসাদ্দেক হোসেন তো বলেই ফেললেন রশিদ-মুজিবের বলেই নাকি ছক্কা মারা অনেক কঠিন।
ত্রিদেশীয় টি-টোয়েন্টি সিরিজে প্রথম দেখায় বাংলাদেশের ব্যাটসম্যানদের সবচেয়ে বেশি বিপাকে ফেলেছেন মুজিব ও রশিদ খান। মুজিব ৪ ওভার বল করে খরচ করেছেন মাত্র ১৫ রান। উইকেট নিয়েছেন চারটি। তবে রশিদ খান ছেটেছেন বাংলাদেশের লেজটাকে। মুজিবের সামনে দাঁড়াতেই পারেননি লিটন দাস, সাকিব আল হাসান, সৌম্য সরকার ও সাব্বির রহমান। শেষ দিকে রশিদ খান যে দুটি উইকেট নিয়েছিলেন তাতে ছিল মোসাদ্দেকের উইকেটও। এর আগে টেস্টে ভুগিয়েছেন জহির খান নামক আরেক স্পিনার। এই চায়নাম্যাননকে খেলতে গলদগর্ম হতে হয়েছে বাংলাদেশের ব্যাটসম্যানদের। টি-টোয়েন্টি সিরিজের ম্যাচে আফগানদের কাছে হেরে যাওয়ার পর স্পিনের বিপক্ষে দলের স্কিলের দক্ষতার অভাবের কথা বলেছিলেন সাকিব। মোসাদ্দেকও তাই বললেন। নিজেদের তৃতীয় ম্যাচকে সামনে রেখে সংবাদ সম্মেলনে মোসাদ্দেক বলেন, টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটে স্কিল অনেক গুরুত্বপূর্ণ। ওদের স্পিনারদের প্রায় সবাই রিস্ট স্পিনার। চাইলেই ওদের বলে চার-ছক্কা মারতে পারবেন না। এক্ষেত্রে স্কিলের একটা ব্যাপার আছে। আমাদের সবই ঠিক আছে। কিন্তু কিছু জায়গায় হয়ত ঘাটতি থেকে যাচ্ছে। এজন্যই হয়ত অল্প রানে হেরে যাচ্ছি। এগুলো থেকে বেরিয়ে আসতে হবে। সমস্যা যেমন আছে তার সমাধানও নিশ্চয়ই আছে। তবে একটু দেখেশুনে খেললেই জয় পাওয়া সহজ হয়ে যাবে বলে মনে করেন মোসাদ্দেক। তিনি বলেন আফগানদের সঙ্গে খেলা হলেই ওদের স্পিনারদের কথা উঠে আসে। তবে আমরা যদি ওদের স্পিনারদের আরেকটু দেখে খেলি তাহলে ভুলগুলো হয়ত কমে যাবে। আমাদের হারের ব্যবধান কিন্তু বেশি না। মাত্র ১৫/২০ রানের। যেসব ক্ষেত্রে তাড়াহুড়ো করছি সেসব জায়গায় একটু দেখেশুনে খেললে ম্যাচ জেতা সহজ হবে। টি-টোয়েন্টি সিরিজের চট্টগ্রাম পর্বের দলে নতুনদের সুযোগ দেওয়া হচ্ছে। এরই মধ্যে বাদ দেওয়া হয়েছে সৌম্য সরকার ও মেহেদী হাসান মিরাজসহ ৪ জনকে। রুবেল হোসেন ও শফিউল ইসলামের মত অভিজ্ঞদের সঙ্গে যুক্ত হয়েছেন নবীন দুই ক্রিকেটার। শেষ দুটি ম্যাচের জন্য দলে ডাক পেয়েছেন তরুণ মোহাম্মদ নাঈম শেখ ও আমিনুল ইসলাম বিপ্লব। দুজনেরই ভালো সম্ভাবনা দেখছেন মোসাদ্দেক। তিনি বলেন দলে লেগ স্পিনার থাকা দরকার। আর বিপ্লব ভালো উইকেটে ভালো বোলিং করতে পারে। আশা করি দুজনেই ভালো কিছু করবে। আজকে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে ম্যাচটি জিতলেই সিরিজের ফাইনাল নিশ্চিত হয়ে যাবে সাকিব বাহিনীর। অন্যদিকে দুই ম্যাচে হেরে যাওয়া জিম্বাবুয়ের জন্য ম্যাচটি এক অর্থে টিকে থাকার শেষ সুযোগ। আর বাংলাদেশের জন্য ফাইনাল নিশ্চিতের পাশাপাশি আত্মবিশ্বাস বাড়ানোর উপলক্ষ্যও। অবশ্য প্রথম ম্যাচ জিতেও আত্মবিশ্বাস বেড়েছিল টাইগারদের। কিন্তু পরের ম্যাচেই সব উধাও হয়ে যায়। মোসাদ্দেক মনে করেন তাদের এখনো যতেষ্ট সম্ভাবনা রয়েছে ফাইনালে খেলার। আর সে সম্ভাবনাটা মাঠে গিয়ে দেখাতে চান মোসাদ্দেক।

x