রমজান উপলক্ষে নির্মিত অনুষ্ঠান প্রশংসাযোগ্য

আয়শা আদৃতা

বৃহস্পতিবার , ১৬ মে, ২০১৯ at ৪:২২ পূর্বাহ্ণ
27

রমজান উপলক্ষে প্রতিদিন একাধিক অনুষ্ঠান প্রচারিত হচ্ছে বিটিভি চট্টগ্রাম কেন্দ্রে। প্রতিদিনের ইফতার আয়োজন, হামদ-নাতের অনুষ্ঠান, বিশ্বের বিভিন্ন মসজিদের ওপর নির্মিত প্রামাণ্য অনুষ্ঠানসহ বেশ কয়েকটি অনুষ্ঠান। এর মধ্যে সবগুলো অনুষ্ঠান ভালো না হলেও ভিন্ন ধারার অনুষ্ঠান নির্মাণের যে আইডিয়া তৈরি হয়েছে তার জন্য কর্তৃপক্ষ ধন্যবাদ পেতেই পারেন। প্রথমবার নির্মিত বলে নিয়মিত অনুষ্ঠানগুলোর সবকটি পর্ব হয়তো দর্শকমন জয় করতে পারছে না, তবে উদ্যোগ নেওয়াটাকে সাধুবাদ জানাই। প্রতিদিনের ইফতারি নিয়ে আয়োজনটি এ পর্যন্ত বেশ ভালো বলা যায়। ইফতারের আগে দোকানে দোকানে গিয়ে ক্রেতা বিক্রেতাদের সাথে কথা বলা, দোকানগুলোর ইফতার আয়োজন নিয়ে নানা তথ্যের পাশাপাশি কোরআন হাদিসের বাণী এবং পুষ্টিতথ্যও প্রচার করা হচ্ছে অনুষ্ঠানটিতে। ব্যতিক্রম আয়োজন বলা যায় হামদ নাতের অনুষ্ঠানটিকেও। আলোচনা ছাড়া শুধু হামদ নাত বেশ ভালোলাগারই কথা। কিন্তু পরিবেশনা সে মানের নয় বলে অনুষ্ঠানটি খুব একটা আকর্ষণ করছে না। একইভাবে বলা যায় বিশ্বের বিভিন্ন ঐতিহাসিক ও নান্দনিক মসজিদ নিয়ে প্রামাণ্যচিত্রটির কথাও। অনুষ্ঠানটি তথ্যনির্ভর কিন্তু সংগৃহীত ভিডিওতে তথ্যের সাথে চিত্রের মিল পাওয়া যাচ্ছে না। তারপরও রমজান মাস, মুসলমানদের কাছে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ও ইবাদতের মাস। এ মাসে দর্শকরা যে সময়টুকু টেলিভিশন দেখেন সে সময়টুকু ধর্মীয় অনুষ্ঠান দেখতেই পছন্দ করেন। সেদিক দিয়ে প্রতিদিন প্রচারিত একাধিক গানের অনুষ্ঠানের ফাঁকে দুয়েকটি ইসলামিক অনুষ্ঠান দর্শকরা দেখতে পাচ্ছেন, এটাই বড় পাওয়া।
রমজানের এই কয়েকটি অনুষ্ঠান বাদ দিলে ৯ ঘণ্টা সম্প্রচার শুরুর পর নতুন কোনো অনুষ্ঠান এখনো পর্যন্ত নির্মিত হয়নি বললেই চলে। ঢাকা কেন্দ্রের পুরোনো অনুষ্ঠান ইতিমধ্যে যথেষ্ট বিরক্তির উদ্রেক ঘটিয়েছে। প্রতিদিন একটি নিজস্ব অনুষ্ঠানের পর একটি ঢাকা কেন্দ্রের অনুষ্ঠান প্রচার করা হচ্ছে। তাও আবার গানের অনুষ্ঠানের পর গানের অনুষ্ঠান। ৯ ঘণ্টা সম্প্রচারে যাওয়ার পর এখনো পর্যন্ত যেমন নিজস্ব কোনো নাটকের দেখা মেলেনি তেমনি দেখা যায়নি কোনো ম্যাগাজিন অনুষ্ঠানও। চট্টগ্রামের ইতিহাস-ঐতিহ্য ভিত্তিক দুয়েকটি অনুষ্ঠান প্রচার হলেও নতুন কোনো পর্ব এর মধ্যে প্রচারিত হয়নি। শুধুমাত্র সেট ডিজাইনে নতুনত্ব আসা ছাড়া আর নতুন কোনো পরিবর্তন অনুষ্ঠানগুলোতে লক্ষ্য করা যাচ্ছে না। বেশ কয়েকটি অনুষ্ঠানের সেট ডিজাইন বেশ প্রশংসনীয়। নতুন করে সেট ডিজাইনের ফলে পুরোনো অনুষ্ঠানগুলোর গাম্ভীর্য বেড়েছে বহুগুণ। আগে যেমন সবগুলো আলোচনা অনুষ্ঠানকে একই অনুষ্ঠান মনে হতো, এখন অন্তত সেখান থেকে সরে আসতে পেরেছে চ্যানেলটি। প্রত্যেক অনুষ্ঠানের আমেজ অনুযায়ী তৈরি হচ্ছে সেট। বিষয়টি শুধু দর্শকদেরই ভালো লাগবে তা নয়, আশা করি নির্মাতারাও তাদের আগের ‘অসম্পূর্ণতাটুকু’ বুঝতে পারবেন।
ঢাকা কেন্দ্রের গানের অনুষ্ঠান বর্ণালীতে গান পরিবেশন করছেন রাজিব

x