যুবলীগ নেতাদের দল ও দেশের জন্য কাজ করতে হবে : মোশাররফ

আজাদী প্রতিবেদন

মঙ্গলবার , ২০ আগস্ট, ২০১৯ at ১১:০৮ পূর্বাহ্ণ
156

দলকে ভালোবেসে দলের জন্য, দেশের জন্য কাজ করতে যুবলীগ নেতাদের আহ্বান জানিয়েছেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য, সাবেক মন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন এমপি। তিনি বলেন, শেখ হাসিনা মানবিক রাষ্ট্রের মানবিক প্রধানমন্ত্রী। যুব সমাজকে যুব শক্তিতে রূপান্তরিত করার জন্য দু কোটি মানুষের কর্মসংস্থানের লক্ষ্যে দেশের বিভিন্ন জায়গায় ১০০টি অর্থনৈতিক জোন গড়ে তোলা হচ্ছে। তার নেতৃত্বে আমাদের অর্জনগুলো জনগণের কাছে তুলে ধরতে হবে। গতকাল সোমবার বিকেল ৩টায় চট্টগ্রাম প্রেসক্লাবের বঙ্গবন্ধু হলে চট্টগ্রাম মহানগর যুবলীগ আয়োজিত জাতীয় শোক দিবসের আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।
মোশাররফ হোসেন বলেন, রাষ্ট্রনায়ক শেখ হাসিনা দলমত নির্বিশেষে সকলকে নিয়ে দেশের উন্নয়নে কাজ করে যাচ্ছেন। যারা ৭৫ এর পূর্বে ও পরবর্তীতে বৈজ্ঞানিক সমাজতন্ত্রের কথা বলে দেশের জনগণকে বিভ্রান্ত করেছেন, যারা ১/১১ তে দল ও সংগঠনের সাথে বিশ্বাসঘাতকতা করেছেন, এমনকি নিজের বিরোধিতা করেছেন তাদের সবাইকে সাথে নিয়ে তিনি দেশের উন্নয়নে কাজ করে যাচ্ছেন, তাই তিনি নীলকণ্ঠী। ১৫টি বছর শেখ হাসিনা সারা বাংলাদেশে ঘুরে ঘুরে আওয়ামী লীগকে সুসংগঠিত করেছেন। অনেক ঘাত-প্রতিঘাত সহ্য করেছেন। নিজের দলের ভিতর ও বাইরের ষড়যন্ত্র শক্ত হাতে মোকাবেলা করে তিনি আজ বিশ্বনেত্রীতে পরিণত হয়েছেন।
তিনি বলেন, আজ বয়স্ক ভাতা, বিধবা ভাতা, পঙ্গু ভাতা, প্রতিবন্ধী ভাতাসহ নানা ভাতা অসহায় মানুষকে দেওয়া হচ্ছে। ভারতের মত রাষ্ট্রেও এসব ভাতা দেওয়া হত না। মোদি সরকার প্রধান হওয়ার পর এ তথ্য জেনে আমাদের অনুসরণে ভারতেও এসব ভাতা প্রদান করছে। আমাদের দেশে মানুষ আজ অনাহারে মারা যায় না। যুবলীগের জন্ম ইতিহাস টেনে তিনি বলেন, যখন একটি গোষ্ঠী বৈজ্ঞানিক সমাজতন্ত্রের নামে যুবকদের বিপথগামী করছিল তখন সেখান থেকে ফিরিয়ে তাদের যুব শক্তিতে রূপান্তরিত করার জন্য শেখ ফজলুল হক মনি যুবলীগ প্রতিষ্ঠা করেছিলেন। সেদিন যারা বৈজ্ঞানিক সমাজতন্ত্রের ধোঁয়া তুলেছিল তারাও আজ শেখ হাসিনার বলিষ্ঠ নেতৃত্বে ঐক্যবদ্ধ হয়ে দেশের উন্নয়নে কাজ করে যাচ্ছে। এটাই শেখ হাসিনার বড় সফলতা।
বিশেষ অতিথির বক্তব্যে মহানগর আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মাহতাব উদ্দিন চৌধুরী বলেন, ৭৫ এর কালোরাত্রিতে দেশি-বিদেশি চক্রান্তে এদেশীয় কিছু ঊশৃঙ্খল সৈনিকের হাতে নির্মমভাবে প্রাণ হারান জাতির জনক বঙ্গবন্ধুসহ তার পরিবারের সদস্যবৃন্দ। ঘাতক চক্ররা মনে করেছিল বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করলে বাংলাদেশ ধুলিসাৎ হবে, বিশ্বের মানচিত্র থেকে বিলীন হয়ে যাবে। কিন্তু তাদের সে আশা পূরণ হয়নি। বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশ আজ বিশ্বের দরবারে মাথা উঁচু করে দাঁড়িয়েছে। বিশ্বের অনেক দেশের রোল মডেল হিসেবে বাংলাদেশের নাম সগৌরভে উচ্চারিত হচ্ছে।
চট্টগ্রাম মহানগর যুবলীগের আহ্বায়ক মো. মহিউদ্দিন বাচ্চুর সভাপতিত্বে ও যুগ্ম আহ্বায়ক দেলোয়ার হোসেন খোকার সঞ্চালনায় বক্তব্য রাখেন যুগ্ম আহ্বায়ক ফরিদ মাহমুদ, মাহবুবুল হক সুমন, আহ্বায়ক কমিটির সদস্য অ্যাড. আনোয়ার হোসেন আজাদ, হাসান মুরাদ বিপ্লব, সাইফুল ইসলাম, বেলায়েত হোসেন বেলাল, ইকরাম হোসেন, মাহাবুব আলম আজাদ, মাসুদ রেজা, আবু সাঈদ জন, হেলাল উদ্দিন, নুরুল আনোয়ার, আসহাব রসুল জাহেদ, শেখ নাছির আহমদ, ওয়াসিম উদ্দিন, সনত বড়ুয়া, দেলোয়ার হোসেন দেলু, মো. কফিল উদ্দিন, ইসতিয়াক আহমদ চৌধুরী, সাখাওয়াত হোসেন সাকু প্রমুখ।
সভায় অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন মহানগর যুবলীগের আহ্বায়ক কমিটির সদস্য আঞ্জুমান আরা আনজু, নেছার আহমদ, রওশন উদ্দিন, হাবিবুল্লাহ নাহিদ, আবদুর রাজ্জাক দুলাল, ছাবের আহমদ, প্রবীর দাশ তপু, আবদুল আউয়াল, ওয়াহিদ হাসান, মঈনুল ইসলাম রাজু, খোকন চন্দ্র তাঁতী, আবু বক্কর চৌধুরী, রতন কুমার মল্লিক, নাজমুল হাসান সাইফুল, আবু বক্কর সিদ্দিক, হাজী মো. ইব্রাহিম, আলমগীর আলম, আজিজ উদ্দিন, আলী হোসেন, সাহেদুল ইসলাম সাহেদ, তারেক সুলতান, কাজল প্রিয় বড়ুয়া, মুজিবুর রহমান মুজিব, আলাউদ্দিন আলো, তানভীর আহমদ রিংকু, খোরশেদ আলম রহমান, নাঈম উদ্দিন খান, আসিফ মাহমুদ প্রমুখ।

x