যানজটে আটকা, সেতুতেই বসে থাকলেন এমপি বাদল

বোয়ালখালী প্রতিনিধি

বুধবার , ৯ অক্টোবর, ২০১৯ at ৬:৪৯ পূর্বাহ্ণ
1440

নানা সমস্যায় জর্জরিত শতবছরের পুরনো কালুরঘাট সেতুটি। তারউপর গতকাল মঙ্গলবার ছিল সনাতন ধর্মাবলম্বীদের শারদীয় দুর্গাপূজার সমাপনী দিন। প্রতিমা বিসর্জন দেখার জন্য সেতুতে সমবেত হয় হাজারো দর্শনার্থী। এতে দীর্ঘ যানজট ও জনজটের কবলে পড়ে সীমাহীন দুর্ভোগ পোহাতে হয়েছে কর্মস্থল থেকে ঘরে ফেরা মানুষদের। এ থেকে বাদ যায়নি খোদ স্থানীয় সাংসদ মঈন উদ্দিন খান বাদলও। তিনি বোয়ালখালীর একটি প্রোগ্রামে অংশ নিতে গিয়ে সেতুতে দীর্ঘক্ষণ আটকা পড়েন।
প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা যায়, গতকাল মঙ্গলবার বিকেলে থেকেই কর্ণফুলী নদীতে চলছিল প্রতিমা বিসর্জন। এ দৃশ্য দেখার জন্য দুপুর থেকেই সেতুর উপর হাজারো নারী-পুরুষ সমবেত হতে থাকে। এ সময় আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর দৃশ্যমান তৎপরতার অভাব ও ভিড়ের কারণে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে যায়। মুহূর্তেই এ জটলা চলে যায় সেতুর দুপাশে কয়েক কিলোমিটার জুড়ে। এতে দুর্ভোগে পড়তে হয় কর্মস্থল থেকে বাড়ি ফেরা লোকজনদের, বিশেষত নারী কর্মজীবীদের। যানজটে পড়ে নাকাল হন খোদ এলাকার সাংসদ। এসময় সাংসদ মঈন উদ্দিন খান বাদল বলেন, সেতু পার হয়ে বোয়ালখালীর একটি প্রোগ্রামে অংশ নিতে গিয়ে দীর্ঘক্ষণ আটকে আছি। স্বচক্ষে অবলোকন করে যাচ্ছি একটা মাত্র সেতুর জন্য আমার নির্বাচনি এলাকার হাজার-হাজার মানুষ কিভাবে কষ্ট পাচ্ছে।
ফারুক ইসলাম নামের একজন বলেন, চট্টগ্রামে অফিসে সন্ধ্যার পর থেকে আমার ডিউটি। বিকেল ৪টা থেকে প্রায় ৩ ঘণ্টা জ্যামে আটকে আছি। কখন, কিভাবে অফিসে পৌঁছাবো বুঝতে পারছি না। অন্যদিকে নিজের গাড়ি নিয়ে সেতু পারের অপেক্ষায় থাকা শামসুদ্দিন চৌধুরী নামের একজন ক্ষোভের সঙ্গে বলেন, দেখেন পুরো সেতুজুড়ে বড় বড় গর্ত সৃষ্টি হয়ে কি হাল হয়েছে। এসব গর্তের কারণে গাড়ি চলবে দূরে থাক, পায়ে হাঁটা এখন দায় হয়ে পড়েছে। তারউপর সেতু আজ লোকে লোকারণ্য। প্রতিদিনই কোনো না কোনো কারণে দীর্ঘ যানজটে আটকে দুর্ভোগে পড়তে হচ্ছে আমার মত হাজার-হাজার নারী-পুরুষকে।
এ সময় অন্য এক নারী সখেদে বলে উঠেন, কেউ কি বলতে পারেন, এ যন্ত্রণার শেষ কোথায়? বরং মরার সেতুটি ভেঙে গেলে আরো ভালো হত। এ যন্ত্রনা থেকে মানুষ মুক্তি পেত।

x