মুমিনুলের রেকর্ডে আয়ারল্যান্ডে এগিয়ে গেল বাংলাদেশ ‘এ’ দল

ক্রীড়া প্রতিবেদক

শুক্রবার , ১০ আগস্ট, ২০১৮ at ৮:০৬ পূর্বাহ্ণ
15

ওয়ানডে দলে তিনি এক রকম অপাক্তেয়। তার নামের পাশে টেস্ট বিশেষজ্ঞের তকমা। তবে ‘এ’ দলের হয়ে বিধ্বংসী এক ইনিংস খেলে রঙিন পোশাকের বাংলাদেশ দলে ফিরতে মুমিনুল হক নির্বাচকদের দিয়ে রাখলেন বার্তা। অধিনায়কের রেকর্ডময় ইনিংসে দল জিতেছে রেকর্ড স্কোর গড়ে। চতুর্থ আনঅফিসিয়াল ওয়ানডেতে আয়ারল্যান্ড উলভসকে ৮৪ রানে হারিয়েছে বাংলাদেশ ‘এ’ দল। এর ফলে ৫ ম্যাচের সিরিজে এগিয়ে গেছে ২১ ব্যবধানে। সিরিজের প্রথম ম্যাচ ভেসে গিয়েছিল বৃষ্টিতে। ডাবলিনের দা হিলস ক্রিকেট ক্লাব মাঠে বুধবার ১৩৩ বলে ১৮২ রানের দুর্দান্ত ইনিংস খেলেন মুমিনুল। বাংলাদেশ ‘এ’ ৫০ ওভারে তোলে ৪ উইকেটে ৩৮৫ রান। বাংলাদেশ ‘এ’ দলের যা সর্বোচ্চ রানের রেকর্ড। আইরিশদের ‘এ’ দল করে ৩০১। মুমিনুল এদিন ৮ রানের জন্য ছুঁতে পারেননি লিস্ট ‘এ’ ক্রিকেটে বাংলাদেশের সর্বোচ্চ ব্যক্তিগত ইনিংসের রেকর্ড। গতবছর ঢাকা প্রিমিার লিগে মোহামেডানের হয়ে আবাহনীর বিপক্ষে ১৯০ রানের ইনিংস খেলে যে রেকর্ড রকিবুল হাসানের। তবে দেশের বাইরে সর্বোচ্চ ইনিংসের রেকর্ড মুমিনুলেরই। ৩ ছক্কার পাশে মুমিনুল বাউন্ডারি মেরেছেন ২৭টি। পেছনে পড়ে গেছে নাফিস ইকবালের ২১ বাউন্ডারির রেকর্ড। পাশাপাশি মুমিনুল গড়েছেন তিন নম্বরে সর্বোচ্চ ইনিংসের রেকর্ড। মেহরাব হোসেনের ১৫৫ ছিল আগের রেকর্ড।

দ্বিতীয় উইকেটে এদিন ওপেনার জাকির হাসানের সঙ্গে ডাবল সেঞ্চুরি জুটি গড়েছেন মুমিনুল। দলকে রেকর্ড স্কোরে নিতে সহায়তা করেছে মোহাম্মদ মিঠুনের ৫১ বলে ৮৬ রানের ঝড়ো ইনিংসটিও। টস জিতে ব্যাটিংয়ে নামা বাংলাদেশ এদিন পরিবর্তন এনেছিল ওপেনিংয়ে। আগের দুই ম্যাচে ভীষণ রকম মন্থর ব্যাট করা সাইফ হাসানের পরিবর্তে সুযোগ পান মিজানুর রহমান। তবে সুযোগের অপচয় করেন তিনি ৪ রানে আউট হয়ে। প্রথম ৫ ওভারে দলের রান ছিল ১৫। ষষ্ঠ ওভারে টাইরন কেইনকে টানা দুই বলে ছক্কা ও চার মেরে মুমিনুলের ঝড়ের শুরু। পরের ওভারে পিটার চেইসকে মারেন দুটি বাউন্ডারি। কেইনের পরের ওভারে বাউন্ডারি টানা ৪ বলে। ডেভিড ডেলানিকে আরেকটি বাউন্ডারিতে ফিফটি ৩৯ বলেই । হাফ সেঞ্চুরির মুমিনুল ছুটতে থাকেন একই গতিতে। লিস্ট ‘এ’ ক্রিকেটে চতুর্থ সেঞ্চুরি স্পর্শ করেন ৮১ বলে। ততক্ষণে ফিফটি পেরিয়ে গেছেন জাকির। মুমিনুলকে দারুণ সঙ্গ দিয়েছেন এই বাঁহাতি ওপেনার। দুজনের ২১০ রানের জুটি ভাঙে জাকিরের বিদায়ে। দ্বিতীয় ম্যাচে ৮ রানের জন্য সেঞ্চুরি না পাওয়া ওপেনার এবারও হাতছাড়া করেছেন সেঞ্চুরির সুযোগ। ফিরেছেন ৯৩ বলে ৭৯ রানে। দল তখন দাঁড়িয়ে শক্ত ভিতের ওপর। সময়ের সঙ্গে বাড়তে থাকে মুমিনুলের ব্যাটের তেজ। দলের রান বাড়তে থাকে বানের জলের মতো। আইরিশদের জাতীয় দলের অভিজ্ঞ বাঁহাতি স্পিনার জর্জ ডকরেলের বলে বাউন্ডারিতে মুমিনুল দেড়শ করেন ১১৯ বলে। ছাড়িয়ে যান লিস্ট ‘এ’ ক্রিকেটে তার আগের সর্বোচ্চ ১৫২ রানকে। মিঠুন ফিফটি করেন ৩৪ বলে। ডকরেলের পরের ওভারে দুজনে মিলে নেন ২০ রান। মুমিনুলকে হাতছানি দিচ্ছিল ডাবল সেঞ্চুরি। সময়ও ছিল। ছিল না ভাগ্য। সিমি সিংয়ের থ্রোতে যখন রান আউট হলেন, ইনিংসের বাকি তখনও ৩১ বল। মিঠুনের তান্ডব চলে শেষ পর্যন্ত। ১৪ চার ও ২ ছক্কায় ৫১ বলে করেন অপরাজিত ৮৬। আল আমিনের ব্যাট থেকে আসে ১৩ বলে ১৯। শেষ ১০ ওভারে ১২৬ রান তুলে বাংলাদেশ থামে ৩৮৫ রানে। বাংলাদেশ ‘এ’ দলের আগের সর্বোচ্চ স্কোরের রেকর্ড ছিল ২০০৬ সালে জিম্বাবুয়ে ‘এ’ দলের বিপক্ষে ৩৩১।

ম্যাচের ভাগ্য অনেকটা নিশ্চিত হয়ে যায় প্রথম ইনিংসের পরই। আইরিশরা অবশ্য লড়াইয়ের চেষ্টা করেছে। সেঞ্চুরি করেছেন অধিনায়ক অ্যান্ড্রু বালবার্নি। শুরুতে ৪০ বলে ১৮ রান থাকলেও বালবার্নি পরে পুষিয়ে দিয়ে করেছেন ১১১ বলে ১০৬। ৩২ বলে ৫৩ রানের ঝড়ো ইনিংস খেলেছেন সিমি সিং। তবে জয়ের সম্ভাবনা তারা সেভাবে জাগাতে পারেননি কখনোই। বাংলাদেশ ‘এ’ দলের সফলতম বোলার পার্ট টাইমার ফজলে মাহমুদ রাব্বি। নিয়েছেন ৩ উইকেট। এদিন খরুচে হলেও উইকেট শিকারের ধারাবাহিকতা ধরে রেখে সৈয়দ খালেদ আহমেদ নিয়েছেন ৩ উইকেট। ইনজুরি কাটিয়ে চার মাস পর ম্যাচ খেলতে নামা তাসকিন আহমেদ ৫ ওভারে গুনেছেন ৪৫ রান।

x