মালয়েশিয়ায় কর্মী নিয়োগ পদ্ধতি চূড়ান্ত হতে পারে আগস্টে

রবিবার , ১৪ জুলাই, ২০১৯ at ৮:৩৫ পূর্বাহ্ণ
61

 

মালয়েশিয়ায় বাংলাদেশি কর্মী নিয়োগ পদ্ধতি চূড়ান্ত করতে আসছে আগস্টেই একটি চুক্তিতে পৌঁছানো সম্ভব হবে বলে আশা করছে বাংলাদেশ সরকার। মালয়েশিয়ার রাষ্ট্রায়ত্ত বার্তা সংস্থা বারনামা এক প্রতিবেদনে জানিয়েছে, যত দ্রুত সম্ভব বিষয়টির মীমাংসা করতে একসঙ্গে কাজ করে যাচ্ছে ঢাকা ও পুত্রজায়া। খবর ডিবডিনিউজের।

দক্ষিণপূর্ব এশিয়ার দেশ মালয়েশিয়া বাংলাদেশের জনশক্তি রপ্তানির গুরুত্বপূর্ণ বাজার। সরকারি হিসাবে পাঁচ লাখের বেশি নিবন্ধিত বাংলাদেশি সেখানে বিভিন্ন পেশায় কাজ করেন; যদিও বাস্তবে এই সংখ্যা আরও বেশি বলে সংশ্লিষ্টদের ধারণা।

মালয়েশিয়া সরকার তাদের পাঁচটি খাতে সরকারিবেসরকারি পর্যায়ের সমন্বয়ে ‘জিটুজি প্লাস’ পদ্ধতিতে বাংলাদেশ থেকে কর্মী নিতে রাজি হওয়ার পর ২০১৬ সালে ঢাকায় দুই দেশের মধ্যে সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষরিত হয়। পাঁচ বছর মেয়াদী এই চুক্তির আওতায় লোক পাঠানোর অনুমতি দেওয়া হয় দশটি জনশক্তি রপ্তানিকারক এজেন্সিকে। কিন্তু প্রবাসী এক বাংলাদেশি ব্যবসায়ীর নেতৃত্বে মালয়েশিয়ার স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সঙ্গে যোগসাজশে একটি চক্র ওই দশ এজেন্সিকে নিয়ে সিন্ডিকেট করে শ্রমিকদের কাছ থেকে দুই বছরে অন্তত ২০০ কোটি রিঙ্গিত হাতিয়ে নিয়েছে বলে অভিযোগ ওঠার পর গতবছর ওই ব্যবস্থা স্থগিত করে দেশটির সরকার। এরপর আগস্টে মালয়েশিয়ার প্রধানমন্ত্রী মাহাথির মোহাম্মদ জানান, বিদেশ থেকে জনশক্তি নিতে নতুন একটি পদ্ধতি চালু করতে যাচ্ছে তার সরকার, যে নিয়ম সব দেশের জন্যই প্রযোজ্য হবে এবং সব লাইসেন্সধারী এজেন্টই শ্রমিক নেওয়ার সুযোগ পাবে।

পুরনো পদ্ধতি স্থগিত করার সময় মালয়েশিয়ার সংবাদমাধ্যমের খবরে বলা হয়, ১০ এজেন্টের মাধ্যমে বাংলাদেশ থেকে মালয়েশিয়ায় লোক পাঠাতে মাথাপিছু সর্বোচ্চ দুই হাজার রিংগিত খরচ হওয়ার কথা। সেখানে এজেন্টরা বাংলাদেশি শ্রমিকদের কাছ থেকে ২০ হাজার রিংগিত আদায় করছিল। এর অর্ধেক টাকা যাচ্ছিল সেই সিন্ডিকেটের হাতে, যার বিনিময়ে তারা ওয়ার্ক পারমিট ও উড়োজাহাজের টিকেটের ব্যবস্থা করে দিচ্ছিল। জনশক্তি আমদানির নতুন একটি পদ্ধতি ঠিক করতে গতবছর একজন বিচারপতির নেতৃত্বে স্বাধীন একটি কমিটি করে দিয়েছিল মালয়েশিয়া সরকার।

গতবছরওই পদ্ধতি স্থগিত হওয়ায় সেপ্টেম্বর থেকে নতুন করে বাংলাদেশি কর্মীদের আর ভিসা দেয়নি মালয়েশিয়া। তবে আগে যারা ভিসা পেয়েছিরেন, তারা পরেও মালয়েশিয়ায় যাওয়ার সুযোগ পেয়েছেন। ২০১৮ সালে সব মিলেয়ে ১ লাখ ৭৫ হাজার ৯২৭ জন মালয়েশিয়ায় গেছেন।

x