মাজহারুল ইসলাম : স্থাপত্যের পথিকৃৎ

সোমবার , ১৫ জুলাই, ২০১৯ at ১০:১৪ পূর্বাহ্ণ
19

বাংলাদেশের স্থাপত্যশিল্পের অনন্য পথিকৃৎ স্থপতি মাজহারুল ইসলাম। বিশ শতকের পঞ্চাশের দশকে তিনি যখন স্থাপত্যের চর্চা শুরু করেন সে সময় এদেশে এই মাধ্যমটি অনেক পিছিয়ে ছিল। বাংলাদেশ স্থপতি ইনস্টিটিউটের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি ছিলেন তিনি। সক্রিয় ছিলেন সাহিত্য-সংস্কৃতি চর্চা ও প্রগতিশীল রাজনীতিতে। আজ তাঁর সপ্তম মৃত্যুবার্ষিকী।
মাজহারুল ইসলামের জন্ম ১৯২৩ সালের ২৫ ডিসেম্বর মুর্শিদাবাদের সুন্দরপুর গ্রামে। পৈত্রিক নিবাস চট্টগ্রামের কোয়েপাড়ায়। পরিবারে সকলেই ছিলেন শিক্ষিত। অধ্যাপক বাবার চাকরিসূত্রে তাঁর স্কুল ও কলেজ জীবন কেটেছে রাজশাহী, চট্টগ্রাম ও কৃষ্ণনগরে। মাজহারুল প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষা নিয়েছেন কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বিজ্ঞান ও পুরোকৌশলবিদ্যায় স্নাতক, যুক্তরাজ্যের আর্কিটেকচারাল অ্যাসোসিয়েশন স্কুল অব আর্কিটেকচার থেকে স্নাতকোত্তর ডিপ্লোমা এবং যুক্তরাষ্ট্রের ইয়েল বিশ্ববিদ্যালয় থেকে স্নাতকোত্তর। ঢাকার চারুকলা ইনস্টিটিউট, বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রিয় পাঠাগার, নিপা ভবন, জীবন বীমা ভবন, সুফিয়া কামাল গণগ্রন্থাগার, চট্টগ্রাম ও জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়, রংপুর আণবিক শক্তি প্রকল্প, সড়ক ও জনপথ প্রশিক্ষণ ইনস্টিটিউট প্রভৃতি স্থাপত্য মাজহারুল ইসলামের অনবদ্য সৃষ্টি। বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের স্থাপত্য অনুষদ প্রতিষ্ঠায় বিশেষ ভূমিকা ছিল তাঁর। তাঁর কাজে নিসর্গের সাথে স্থাপত্যের দারুণ মিল লক্ষ করা যায়। ফলে তাঁর সৃষ্টি রূপ নেয় ধ্রুপদী শিল্পে। ব্যক্তিজীবনে শিল্পী ছিলেন অভিজাত কিন্তু আড়ম্বরহীন। চিন্তায় মানবিক, উদার ও সংস্কারমুক্ত। ছিলেন প্রচণ্ড পরিশ্রমী এবং যেকোনো ভালো কাজের সাথে সম্পৃক্ত থাকতেন নির্ভিক চিত্তে। বাম রাজনীতির সাথে যুক্ত থেকে অংশ নিয়েছেন মুক্তিযুদ্ধের সাংগঠনিক কাজে। পরবর্তীসময়ে আওয়ামী লীগের সাথে যুক্ত হন। এদেশে আধুনিক স্থাপত্যের বুনিয়াদ রচিত হয়েছিল স্থপতি মাজহারুল ইসলামের হাতে। সেই সাথে পেশা হিসেবে এই শিল্পকে আন্তর্জাতিক মানে পৌঁছে দিতেও বিশেষ ভূমিকা রেখেছিলেন তিনি। ২০১২ সালের ১৫ জুলাই প্রয়াত হন স্থাপত্যের স্থপতি মাজহারুল ইসলাম।

x