মহসীন কলেজে ছাত্রলীগের দু’পক্ষের সংঘর্ষে আহত ৮

তুচ্ছ ঘটনার জের

আজাদী প্রতিবেদন

শুক্রবার , ৯ নভেম্বর, ২০১৮ at ৫:৫৮ পূর্বাহ্ণ
492

তুচ্ছ ঘটনার জেরে চট্টগ্রাম সরকারি হাজী মুহাম্মদ মহসীন কলেজে ছাত্রলীগের দু’পক্ষের সংঘর্ষে অন্তত ৮ জন আহত হয়েছেন। গতকাল বৃহস্পতিবার দুপুর ১টায় দুই গ্রুপের সদস্যদের মধ্যে কথা কাটাকাটির একপর্যায়ে সংঘর্ষের এ ঘটনা ঘটে। এতে শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের মধ্যে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে। যার প্রভাব পড়ে পুরো এলাকায়। ওই সময় কিছুক্ষণের জন্য কলেজের সামনে গাড়ি চলাচলে বিঘ্ন সৃষ্টি হলেও পরে পুলিশ এসে পরিস্থিতি সামাল দিলে তা স্বাভাবিক হয়। তবে এই ঘটনায় থানায় কোনো অভিযোগ বা মামলা হয়নি বলে জানিয়েছেন চকবাজার থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোহাম্মদ নিজাম উদ্দিন।
ঘটনার বিবরণে জানা গেছে, যুবলীগ নেতা নুরুল মোস্তাফা টিনু ও নগর ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক নুরুল আজিম রনির গ্রুপের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। ঘটনায় আহতরা হলেন, নগর ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক নুরুল আজিম রনি ও কলেজ ছাত্রলীগের কাজী নাঈমের অনুসারী হিসেবে পরিচিত দর্শন বিভাগের ২য় বর্ষের ছাত্র হাবিবুর রহমান সুজন (২১), অর্থনীতি বিভাগের চতুর্থ বর্ষের ছাত্র হারুনুর রশিদ (২০), অর্থনীতি বিভাগের ৩য় বর্ষের তাফহীম সোহেল (২২), রাষ্ট্র বিজ্ঞান ৩য় বর্ষের মনিরুল ইসলাম (২৩), দ্বাদশ শ্রেণির তানভীর (১৯), যুবলীগ নেতা নুরুল মোস্তাফা টিনু গ্রুপের বিবিএস ১ম বর্ষের সারওয়ার (২১), একই বর্ষের হৃদয় (২০), বিবিএস ২য় বর্ষের ইউসুফ (২১)।
কলেজ ছাত্রলীগের নেতা কাজী নাঈম বলেন, কলেজ ক্যাম্পাসে কথা-কাটাকাটির জের ধরে মিজান গ্রুপের কর্মীরা কলেজ ক্যাম্পাস, চকবাজার, গণি বেকারি এলাকাতে আমাদের নেতাকর্মীদের মারধর করে। সে সময় আমাদের ৫ জন নেতাকর্মী গুরুতর আহত হয়েছেন। বর্তমানে দুইজন চমেক হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।
টিনু গ্রুপ সমর্থিত কলেজ ছাত্রলীগের নেতা মিজানের অনুসারী তৌহিদ জানান, কলেজ ক্যাম্পাসে মিছিল শেষ করার পর অবস্থান নিলে আমাদের নেতা নুরুল মোস্তাফা টিনুর সম্পর্কে বাজে মন্তব্য করে প্রতিপক্ষ। এতে উত্তেজনাকর পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়। উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়লে দু’পক্ষের মধ্যে মারামারি লেগে যায়। এতে আমাদের তিন কর্মী আহত হন। এদের মধ্যে দুইজন হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।
চমেক হাসপাতাল পুলিশ ফাঁড়ির নায়েক হামিদ সংঘর্ষের ঘটনায় ৪ জন চমেকে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন থাকার বিষয়টি নিশ্চিত করলেও তিনি তাদের নাম ঠিকানা দিতে পারেননি। এদিকে চকবাজার থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোহাম্মদ নিজাম উদ্দিন বলেন, বিবাদমান দুই পক্ষকে ওই এলাকা থেকে সরিয়ে দিলে পরিস্থিতি শান্ত হয়।

x