মর্জিনা হক চৌধুরী পপি (নিরাপদ সড়ক চাই)

রবিবার , ৪ নভেম্বর, ২০১৮ at ৬:৩২ পূর্বাহ্ণ
55

প্রতিটি মানুষেরই তার জীবনের নিরাপত্তা চাইবার অধিকার আছে। আর সেই অধিকারই হলো প্রত্যেকটা নাগরিকের মৌলিক অধিকার। আর সেই অধিকার টুকু নিশ্চিত করা রাষ্ট্রের কর্তব্য। অত্যন্ত পরিতাপের বিষয় রাষ্ট্র যখন এ দায়িত্ব পালনে সচেষ্ট নয়, তখনই নাগরিকেরা তাদের অধিকার আদায়ে মিছিল মিটিং, আন্দোলন করতে বাধ্য হয়। গত কয়েক দিন ধরে বাংলাদেশে চলমান শিশু – কিশোর ছাত্র ছাত্রীদের নিরাপদ সড়ক আন্দোলন এরই বহিঃ প্রকাশ। কোমলমতি ছাত্র ছাত্রীরা মন্ত্রী, এমপি, সচিব, বিচারপতি, সরকারি দল, বিরোধী দল, সেনা, বিমান – নৌ বাহিনী এবং বিজিবিসহ সকল স্তরের মানুষকে আঙুল দিয়ে দেখিয়ে দিয়েছে যে, ৪৭ বছরের রাষ্ট্রটির ভিত কত নাজুক। এর মেরামত কত প্রয়োজন। সর্বত্র অনিয়ম আর দুর্নীতির ছড়াছড়ি। আইন ভঙ্গ করাই যেখানে সবার মনোবাসনা। যেখানে মানুষ নামের পশুরা মানুষকে হত্যা করতে উঠে পড়ে লেগেছে। কিন্তু অনেক আগে থেকেই এ অনিয়মের বেড়াজাল থেকে বেরিয়ে আসা উচিৎ ছিলো আমাদের। কিন্তু যারাই এই আইন কানুন তৈরি করে তারাই যদি অমান্য করে – তবে কে এ রাষ্ট্রের হাল ধরবে? কে করবে এর মেরামত? মনে রাখবেন পৃথিবীতে জুলুম নির্যাতন আর অনিয়মের স্থায়িত্ব চিরস্থায়ী নয়। যুগে যুগে তা প্রমাণিত। বাংলাদেশে কোমলমতি ছাত্র-ছাত্রীরা আবারো তা প্রমাণ করে দেখালো আমাদের সবারই ওদের কাছ থেকে শিক্ষা নেয়া উচিৎ। যে কাজ আমরা করতে পারি নাই, ও কাজ ওরাই করে দেখিয়েছে। তবে এ কথাও ওদের মনে রাখতে হবে ৪৭ বছরের নানা অনিয়মকে রাতারাতি ঠিক করা সম্ভব নয়, আবার একটি সড়ক আন্দোলন করেও দায়িত্ব শেষ বলে ঘরে বসে থাকা যাবে না। শুধু একটি নিরাপদ সড়ক নয়, দুর্নীতিমুক্ত নিরাপদ বাংলাদেশ গড়তে আমাদের সবাইকে এগিয়ে আসতে হবে।

x