মনের চিকিৎসক যখন নিজেই

রুহি আফরোজ

রবিবার , ২৪ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ at ৬:৩০ পূর্বাহ্ণ
129

দুঃখ করবেন না তাদের জন্য যারা আপনাকে ভালোবাসেনা বা অবহেলা করে। বরং খুশি হোন তাদের কথা মনে করে যারা আপনাকে অনেক ভালোবাসে। আপনার জন্য জীবন বাজি রাখতে পারে এমন মানুষগুলোর কথা ভাবুন। দেখবেন, নিজেকে অনেক ভাগ্যবান মনে হবে।

মন খারাপ? অনেক কষ্ট জমে জমে অনুভূতিগুলো ভোঁতা হয়ে গেছে? অতিষ্ঠ হয়ে গেছেন জীবনের বৈরিতায়? তাহলে সময় এসে গেছে নিজেই এগুলোর মোকাবিলা করার। আপনার জন্য অন্য কেউ আপনার সমস্যা দূর করবে না। আপনার নিজেকেই দাঁড়াতে হবে নিজের জন্য। আসুন অন্যরকম কিছু করে নিজের মনকে আবার সুস্থ করে তুলি।
ধ প্রথমেই জেনে রাখা ভালো যে, মন ভালো রাখতে অন্যকে খুশি করার জুড়ি নেই। একজন মানুষ যদি আপনার কারণে আনন্দিত হয় তাহলেই দেখবেন তার আনন্দ আপনার মধ্যে ঢুকে গেছে। তাই অন্যকে খুশি করুন।
ধ প্রতিদিন চেষ্টা করুন আপনার পরিচিত অপরিচিত তিনজন মানুষের মুখে হাসি ফোটানোর।
ধ একটি ডায়েরিতে আপনার জীবনের সুন্দর সুন্দর মুহূর্ত গুলো লিখে রাখুন।
ধ ঘুমাতে যাওয়ার আগে একটি লিস্ট তৈরি করুন যে সারাদিনের ঠিক কোন কোন কাজটি করতে আপনার ভালো লেগেছিলো।
ধ নিজের খুব কাছের মানুষের সাথে অন্তত দশ মিনিট গল্প করুন। কাছের মানুষটি হতে পারে আপনার বাবা, মা, ভাই, বোন অথবা প্রিয় বন্ধু।
ধ অনেক কাজের ভিড়ে নিশ্চয় নিজের কোন একটি শখকে ভুলতে বসেছেন? আবার জাগিয়ে তুলুন তাঁকে। বই পড়া, ছবি আঁকা, গান শোনা বা গাওয়া যা আপনার শখ সেটি করুন দিনের একটি সময়ে।
ধ খুব কাছের কারো ব্যবহার আপনাকে প্রতিনিয়ত কষ্ট দিলে চেষ্টা করুন তার থেকে নিজেকে কিছুটা সরিয়ে নিতে। মনোযোগ দিন অন্য কিছুতে। কাছের মানুষ যদি সত্যি আপনাকে ভালোবাসে, আপনার এই দূরে সরে যাওয়াকে মেনে নিতে পারবে না। সে ঠিকই নিজের ভুল বুঝতে পারবে।
ধ সঙ্গীর আচরণে কষ্ট পেলে নিজেকে বলুন, একমাত্র স্বামী বা স্ত্রীই আপনার সব থেকে আপনজন নয়। আপনাকে ভালোবাসে আপনার পরিবারের অন্য সদস্যরাও। তারাও আপনার কষ্টে কষ্ট পায়। তাই তাদের কথা ভেবে তাদের সাথেও সময় কাটান।
ধ মনে করুন আপনার স্কুলের সব থেকে প্রিয় বন্ধুগুলোর কথা। তাদের সাথে কি আপনার যোগাযোগ আছে? না থাকলে খুঁজে বের করে কথা বলুন তাদের সাথে। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের কল্যাণে এটি কোন কঠিন কাজ নয়। এরপর হারিয়ে যান নিজের ছেলেবেলায়।
ধ খাবার মন ভালো করার অন্যতম একটি উপাদান। আপনার প্রিয় খাবারটি পারবে আপনার মনের কষ্ট লাঘব করতে।
ধ ঘুরে আসুন পছন্দের কোন জায়গায়। কেউ সাথে না থাকলেও সমস্যা নেই। প্রকৃতিকে সময় দিন। আপনার মন ভালো হতে বাধ্য।
ধ দুঃখ করবেন না তাদের জন্য যারা আপনাকে ভালোবাসেনা বা অবহেলা করে। বরং খুশি হোন তাদের কথা মনে করে যারা আপনাকে অনেক ভালোবাসে। আপনার জন্য জীবন বাজি রাখতে পারে এমন মানুষগুলোর কথা ভাবুন। দেখবেন, নিজেকে অনেক ভাগ্যবান মনে হবে।

- Advertistment -