ভুয়া গ্রেপ্তারি পরোয়ানায় চাঁদাবাজি

চক্রের মূল হোতা গ্রেপ্তার

আজাদী প্রতিবেদন

বৃহস্পতিবার , ১৪ মার্চ, ২০১৯ at ৬:৩৯ পূর্বাহ্ণ
206

অভিনব কায়দায় বিভিন্ন বানোয়াট অভিযোগে ভুয়া গ্রেপ্তারি পরোয়ানায় চাঁদাবাজি করছে একটি প্রতারক চক্র। টার্গেটকৃতদের ধোকা দিয়ে বড় অঙ্কের চাঁদা আদায়ের ফাঁদ পেতে বসে এই চক্রটি। গতকাল বুধবার বিকাল ৩ টার দিকে নগরীর লালদীঘি জামে মসজিদের সামনে থেকে নগর গোয়েন্দা বিভাগের জালে ধরা পড়ে ভুয়া গ্রেফতারি পরোয়ানার কাগজসহ প্রতারক চক্রের মূল হোতা ফরিদুল আলম। প্রতারণার শিকার মাওলানা জামাল হোসাইন আজাদীকে বলেন, উক্ত প্রতারক চক্র আমাকে তাদের প্রতারণার ফাঁদে ফেলে অনেক হয়রানি করেছে। পরে ২ লক্ষ টাকা না দিলে আমার ক্ষতি করার হুমকি দেয়। অবশেষে চট্টগ্রাম নগর গোয়েন্দা বিভাগের অতিরিক্ত উপ-কমিশনার এ এ এম হুমায়ুন কবিরকে বিষয়টি জানালে উনি আমাকে এব্যাপারে তদন্ত করে ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে আশ্বাস দেন।
নগর গোয়েন্দা বিভাগের(পশ্চিম) অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার এ এ এম হুমায়ুন কবির আজাদীকে বলেন, প্রতারক চক্রটি অভিনব কায়দায় প্রতারণা করে আসছিল। প্রতারকরা ভুয়া ওয়ারেন্টে ধার্মিক লোকদের টার্গেট করে। ‘বলৎকার’ এর ফাঁদে ফেলে মোটা অংকের চাঁদা দাবিসহ জোর করে লিখিত বক্তব্যে স্বাক্ষর করিয়ে নেয়ার প্রমাণ পাওয়া গেছে। এ চক্রের মূল হোতা মাদ্রাসার নামে রশিদ বই তৈরি করে দীর্ঘদিন ধরে চাঁদাবাজি করছে। হুমায়ুন কবির বলেন, প্রাথমিক জিঙ্গাসাবাদে ভুয়া ওয়ারেন্ট সহ নানা প্রতারণার কথা স্বীকার করেছে। চক্রের অন্য সদস্যদের ধরতে চেষ্টা অব্যাহত আছে। তার বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে।আটক ফরিদুল আলম সাতকানিয়ার রুপকানিয়া গ্রামের মৃত নুরুল হকের ছেলে।

x