ভারতীয় শিক্ষা মেলায় স্পট এডমিশন, স্কলারশিপ অফার

উদ্বোধনের পরই জমজমাট, আজ সমাপনী

আজাদী প্রতিবেদন

বৃহস্পতিবার , ১৮ জুলাই, ২০১৯ at ৪:২৪ পূর্বাহ্ণ
25

নগরীর হোটেল আগ্রাবাদে গতকাল থেকে শুরু হয়েছে দু’দিনব্যাপী ‘সেপ ভারতীয় শিক্ষা মেলা-২০১৯’। বুধবার সকাল দশটায় মেলার আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন চট্টগ্রামস্থ ভারতীয় দূতাবাসের সহকারী হাই কমিশনার অনিন্দ্য ব্যানার্জী। এ সময় মেলার আয়োজক প্রতিষ্ঠান সেপ ইভেন্ট এন্ড মিডিয়া প্রাইভেট লি. এর প্রতিষ্ঠাতা ও ব্যবস্থাপনা পরিচালক সঞ্জয় থাপাসহ দূতাবাসের অন্যান্য কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।
বিগত বছরগুলোর ধারাবাহিকতায় এবারের মেলায়ও আসাম ডাউন ইউনিভার্সিটি, অ্যাডামাস, জেআইএস গ্রুপ কলকাতা, ইন্ডিয়া ইন্টারন্যাশনাল স্কুল ব্যাঙ্গালুরু, আইটিএম ইউনিভার্সিটি, সারদা ইউনিভার্সিটি-দিল্লী, এপিজি সিমলা ইউনিভার্সিটি-সিমলা, গীতা গ্রুপ অব ইনস্টিটিউশনসহ ভারতের বিভিন্ন অঞ্চলের প্রায় ৫০টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান (স্কুল-কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়) স্টল নিয়ে মেলায় অংশ নিচ্ছে। এসব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান থেকে আগত প্রতিনিধি ও বাংলাদেশের এজেন্টরা প্রায় ৫০টি স্টলে ভারতের স্কুল-কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে শিক্ষাগ্রহণ সম্পর্কে প্রয়োজনীয় তথ্য প্রদান করছেন। দুইদিনব্যাপী এ মেলা আজ বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত চলবে। মেলা সবার জন্য উন্মুক্ত।
গতকাল মেলায় গিয়ে দেখা যায়, প্রথম দিনই জমে উঠেছে এ শিক্ষা মেলা। ভারতে শিক্ষাগ্রহণে আগ্রহী শিক্ষার্থী ও তাদের অভিভাবকরা ভিড় করেছেন মেলায়। বিভিন্ন স্টল ঘুরে ঘুরে তারা ভারতের বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয় ও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোতে ভর্তি সংক্রান্ত নানা বিষয়ে খোঁজ-খবর নিচ্ছেন। রয়েছে স্পট এডমিশনের সুযোগও। স্পট এডমিশনের ক্ষেত্রে বিশেষ ছাড়ও দিচ্ছে অনেক প্রতিষ্ঠান। ভারতে পড়তে আগ্রহী শিক্ষার্থী ও তাদের অভিভাবকরা সেই সুযোগটিও কাজে লাগাচ্ছেন। অনেককেই দেখা গেলো স্পট এডমিশন নিতে। বন্দরনগরী চট্টগ্রামে ৬ষ্ঠ বারের মতো এ মেলার আয়োজন করছে সেপ ইভেন্ট এন্ড মিডিয়া প্রা. লি.। বাংলাদেশের শিক্ষার্থী তথা ছাত্র সমাজের দোরগোড়ায় পছন্দসই ও কাঙিক্ষত উচ্চ শিক্ষার সহজ প্রবেশাধিকার সুবিধা দেওয়াই সেপ ভারতীয় শিক্ষা মেলার মূল লক্ষ্য বলে জানালেন মেলা আয়োজক প্রতিষ্ঠান সেপ ইভেন্টের ব্যবস্থাপনা পরিচালক সঞ্জয় থাপা। তিনি বলেন, ‘ভারতে শুধুমাত্র গুণগত সর্বোচ্চ শিক্ষাদানই নয়- যে কোন দেশের চেয়ে অল্পখরচে শিক্ষার্থীদের ভবিষ্যৎ জীবন গড়ে দেয়। বিদেশি শিক্ষার্থীরা তাদের নিজ দেশের শিক্ষার ব্যয়ভার থেকে অল্প খরচে পড়াশোনা শেষ করতে পারবেন। তদুপরি ভারতে একদম সেশনজট নেই।’ তাই দেশের বাইরে শিক্ষাগ্রহণে আগ্রহী বাংলাদেশি শিক্ষার্থীরা চাইলে ভারতকেই প্রথম পছন্দ হিসেবে বেছে নিতে পারে।
আর চট্টগ্রামে/বাংলাদেশে একাধিক ভারতীয় শিক্ষা মেলা আয়োজন হলেও সেপ ইভেন্ট প্রা. লি. সবচেয়ে আস্থাশীল মেলা আয়োজক প্রতিষ্ঠান দাবি করে সঞ্জয় থাপা বলেন, অনেকেই হয়তো শিক্ষা মেলা আয়োজন করে থাকে। কিন্তু আমরাই (সেপ ইভেন্ট) প্রথম এখানে ভারতীয় শিক্ষা মেলার আয়োজক। বিগত ৫ বছর আমরা ধারাবাহিকভাবে এ মেলার আয়োজন করে আসছি। এবার ৬ষ্ঠবারের মতো এই আয়োজন। বাংলাদেশ ছাড়াও পার্শ্ববর্তী দেশ নেপাল, ভূটান, থাইল্যান্ডসহ দক্ষিণ এশিয়ার আরো বেশ কয়টি দেশে ধারাবাহিকভাবে আমরা ‘সেপ ভারতীয় শিক্ষা মেলা’র আয়োজন করে আসছি। আর ধারাবাহিকভাবে এ মেলার আয়োজন অব্যাহত থাকায় সবচেয়ে বিস্বস্ত ও আস্থাশীল মেলা আয়োজক প্রতিষ্ঠান হিসেবে সেপ ইভেন্ট প্রা. লি. ইতোমধ্যে সকলের আস্থা অর্জন করতে সক্ষম হয়েছে বলেও জানান তিনি। বাংলাদেশি শিক্ষার্থীদের আগ্রহ ও পছন্দের বিষয়টি বিবেচনায় নিয়ে মেলায় ভারতের সবচেয়ে নামকরা শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোর অংশগ্রহণ ও স্টল নিশ্চিত করা হয় জানিয়ে আয়োজক প্রতিষ্ঠান জানায়, মেলায় এসব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের প্রতিনিধিদের কাছ থেকে আগ্রহী বাংলাদেশি শিক্ষার্থীরা যেন ভর্তি সংক্রান্ত খুঁটিনাটি তথ্যগুলো সরাসরি জেনে নিতে পারে, সেটিই আমাদের মূল উদ্দেশ্য। ভারতের বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে উচ্চ শিক্ষার ক্ষেত্রে বাংলাদেশি শিক্ষার্থীদের জন্য বিশেষ স্কলারশিপ অফার রয়েছে। তাছাড়া উল্লেখযোগ্য ছাড়ে মেলায় স্পট এডমিশনের সুযোগের পাশাপাশি দর্শনার্থীদের জন্য লটারীর মাধ্যমে ল্যাপটপ জেতার সুযোগ রয়েছে বলেও জানায় আয়োজকরা।

x