বোধনের জাগো সুন্দর

বিপ্লব কুমার শীল

বৃহস্পতিবার , ১ আগস্ট, ২০১৯ at ১১:৩৪ পূর্বাহ্ণ
5

বোধন আবৃত্তি স্কুলের অনন্য ৫১ আবর্তনের শিক্ষার্থীরা। “জাগো সুন্দর” সৃজনশীলতা জাগিয়ে তোলার অনন্য প্রয়াস। মুলতঃ নিজের ভেতর সুপ্ত ও সুন্দর সুকুমারবৃত্তি কতটুকু পরিশীলিত তা মঞ্চে জাগরুক করতে প্রতিটি আবর্তনে বোধন আবৃত্তি স্কুল চট্টগ্রাম ছয়মাসব্যাপী প্রশিক্ষণ চলাকালীন এমনি আয়োজন অব্যাহত রেখেছে। বোধনের “অনন্য ৫১” আবর্তনের শিক্ষার্থীরা তেমনি জ্যোতির্ময়ী ও প্রাণবন্ত আলোকময় মুহূর্ত এনে দেয় গত পাঁচ জুলাই শুক্রবার সকাল ১১টা থেকে বিকেল প্রায় তিনটা পর্যন্ত থিয়েটার ইন্সিটিটিউট চট্টগ্রাম’র গ্যালারী হলে। যেখানে মহান মুক্তিযুদ্ধের স্বাধীন সার্বভৌম বীরত্বগাঁথা ও স্বাধীনতা বিরোধী আস্ফালনের রক্তচক্ষুর আচরণ শিক্ষার্থীদের পরিবেশনায় উঠে আসে। মঞ্চের আনুষ্ঠানিকতায় শুরুতে পরিবেশনায় ছিলেন প্রশিক্ষণার্থী রিতু সাহা। তিনি কবি মারুফ রায়হানের সবুজ শাড়িতে লাল রক্তের ছোপ কবিতাটি আবৃত্তির পর কবি নির্মলেন্দু গুণের স্বাধীনতা উলঙ্গ কিশোর কবিতায় সুষ্মিতা মজুমদার। এরপর কবি কামাল চৌধুরীর সাহসী জননী বাংলা কবিতাটি পড়েন নার্গিস ফাতেমা এবং লেখক ও কবি আবু হেনা মোস্তফা কামালের ছবি কবিতায় শামীমা আকতার তাদের কবিতার দিগন্তরেখা প্রান্তিক ছড়িয়ে পড়ে। এ পর্যায়ে কবিতার ভাব ও আবেগে তাদের নির্মাণ ভাবনায় আরো পরিশীলিত ও সাবলীলতা লক্ষণীয়। কিন্তু প্রশিক্ষণার্থী অনন্যা দেবীর পরিবেশনায় কবি নাসির আহমেদের বিজয়ের বোন কড়া নেড়ে যায় এবং শহীদুল ইসলামের কণ্ঠে একুশের প্রথম প্রহরে রচিত কবি মাহবুবুল আলম চৌধুরীর ” কাঁদতে আসিনি ফাঁসির দাবী নিয়ে এসেছি” কবিতায় মাইক্রোফোন ব্যবহারে স্বর প্রক্ষেপণের অনুভূতিগুলো প্রকাশে আরো চর্চা প্রয়োজন। তবে শুরুটা ভালো করলেও সেই ভাব রেশ বয়ে যাওয়ার প্রবাহে আরো একটু স্বতঃস্ফূর্ততার তাগিদে চেষ্টায় ছিলো প্রশিক্ষণার্থী সিনথিয়া হোসেন, ফারজানা হক, তানজিন, রিমি মুৎসুদ্দী, মনিকা তালুকদার। কিন্তু প্রশিক্ষণার্থী তিথি চৌধুরী, ইভান পাল, আফতাব উদ্দিন, নীলা রায়, রুপন দে, তাসলিমা আকতার, হিতৈষী চাকমা, নীলাচল চৌধুরী, রিমঝিম দে,অর্পিতা চৌধুরীর কণ্ঠে মুক্তিযুদ্ধের কবিতায় দেশের প্রতি প্রেম, ভালোবাসা সর্বোপরি বীরযোদ্ধাদের আত্মদানে দেশ স্বাধীনতায় পরাধীন শ্রঙ্খল ভেঙ্গে মুক্তির স্বাদ আবারো উচ্চারিত হতে থাকে। যেখানে দেশাত্মবোধ চেতনার ঋদ্ধ হওয়ার আলোর বুনন গাঢ় জমাট হতে থাকে। তবে প্রশিক্ষণার্থী শাহজাহান আবিদ, তানজিন, প্রজ্ঞা বড়ুয়া, মাসুম বিল্লাহ, পাপিয়া দাশ, সিদরাতুল মুনতাহা,কাজী মো. তারেক, জিয়াত উদ্দিন তাদের পরিবেশনায় কখনো কখনো একটু ইতস্তত অল্পপ্রাণে থাকলেও আরো একটু অনুশীলনে তা একসময় উতরে যাবে। এ পর্যায়ে চর্চার ধারাবাহিকতা প্রয়োজন। তবে প্রায় ঘন্টা তিনেক এ আয়োজনে শিক্ষার্থীদের প্রাণবন্ত সময় আড়মোড়া ভাঙ্গনের শব্দবহ রূপ ছিলো। কণ্ঠস্বরে ছিলো বাংলাভাষাকে শুদ্ধতার চর্চায় দেশপ্রেমে উদ্বুদ্ধকরণ উপকরণ। প্রশিক্ষণার্থীদের পরিবেশনা শেষে পুরো আয়োজনের সম্পর্কে মূল্যায়ন করেন কুন্ডেশ্বরী মহাবিদ্যালয় এর বাংলা বিভাগের প্রভাষক ও বোধন আবৃত্তি পরিষদ চট্টগ্রাম আবৃত্তিশিল্পী সুবর্ণা চৌধুরী ও যুগ্ম সম্পাদক আবৃত্তিশিল্পী ইসমাইল চৌধুরী সোহেল । তারা বলেন, আজ এখানে মঞ্চ থেকে অনুষ্ঠানের সঞ্চালনা এবং সর্বোপরি কবিতার পরিবেশনায় আজকের “জাগো সুন্দর” অনাবিল ইচ্ছাশক্তির মাধ্যমে অনন্যভাবে এ আয়োজন সম্পন্ন হয়েছে। এ পর্যায়ে নান্দনিক এ আয়োজনে শিক্ষার্থীদের উদ্দেশ্যে স্বাগত বক্তব্য রাখেন বোধন আবৃত্তি স্কুলের প্রশিক্ষণ সম্পাদক সঞ্জয় পাল। তবে পুরো আয়োজনের সঞ্চালনায় ছিলেন বোধনের সদস্য অনামিকা সেন, কান্তা বন্দ্য। উল্লেখ্য, বোধন আবৃত্তি স্কুল চট্টগ্রাম’র চলতি জুলাই-ডিসেম্বর “অমর ৫২” আবর্তনের সেশনে প্রশিক্ষণার্থী ভর্তি কার্যক্রম অব্যাহত থাকবে প্রতি শুক্রবার সকাল নয়টা থেকে দুপুর বারোটা পর্যন্ত নগরীর অপর্ণাচরণ সিটি কর্পোরেশন বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় ও কলেজের দ্বিতীয়তলায়।

x