বিশ্ববিদ্যালয়গুলো গবেষণা বরাদ্দের পুরোটা ব্যয় করতে পারছে না

চবির সিনেট অধিবেশনে ইউজিসি চেয়ারম্যান

চবি প্রতিনিধি

শুক্রবার , ২৯ জুন, ২০১৮ at ৫:৪০ পূর্বাহ্ণ
55

বিশ্ববিদ্যালয়গুলো গবেষণা বরাদ্দের পুরোটা ব্যয় করতে পারছে না বলে মন্তব্য করেছেন ইউজিসি চেয়ারম্যান প্রফেসর আব্দুল মান্নান। গতকাল বৃহস্পতিবার চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের ৩০ তম সিনেট অধিবেশনে বক্তব্যকালে তিনি এই মন্তব্য করেন।

তিনি বলেন, খুব কম বিশ্ববিদ্যালয় আছে যারা গবেষণা বরাদ্দের পুরোটা ব্যয় করতে পারে। তাই এখন বরাদ্দ কম দিই। কিন্তু তারপরও গত অর্থবছরে বড় একটি বিশ্ববিদ্যালয় গবেষণা বরাদ্দের ৫ কোটি ৯৩ লক্ষ টাকা ব্যয় করতেই পারেনি। প্রফেসর মান্নান বলেন, শুধু ক্লাসপরীক্ষার জন্য বিশ্ববিদ্যালয় নয়। এটি গবেষণা আর জ্ঞান সৃষ্টির স্থান। যদি কোন গবেষণাই না হয় তবে মঞ্জুরি কমিশন কেন বরাদ্দ দিবে? গবেষণা পত্র বিশ্ববিদ্যালয় প্রদান করলে আমরা সরকারের সাথে কথা বলে অবশ্যই বরাদ্দ বৃদ্ধি করব।

তিনি বলেন, গবেষণা প্রকল্প ২ লাখ ৬০ হাজার টাকা করা হলেও গবেষণা প্রকল্প পাওয়া যায়না। ইউজিসিতে আগে পিএইচডি স্কলারশিপ ৬০টি ছিল। পরে ১০০টি বাড়ানো হলেও ২০১৭ সালে ৭২ জন আবেদন করেন। এর মধ্যে ৫৭ জন মনোনীত হন। আর ২০১৮ তে আবেদনের সংখ্যা আরো কমে দাঁড়ালো ৬৭ জনে। এর মধ্যে মাত্র ২২ জন মনোনীত হয়েছেন।

তিনি গবেষকদের উদ্দেশ্যে বলেন, গবেষক মানে আইনস্টাইন হতে হবে এমন না। ছোট ছোট প্রজেক্ট নিয়ে কাজ করতে করতে একসময় আমরাও আইনস্টাইন হব। উপহার দিব জামাল নজরুলের মত বিজ্ঞানীদের। তাই বাজেটের জন্য গবেষণা বাধা থাকবেনা। প্রয়োজন হলে বিশেষভাবে বরাদ্দ দেয়া হবে। তিনি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকদের উদ্দেশ্যে বলেন, আজ বিশ্ববিদ্যালয়ের কজন শিক্ষক গবেষণার সাথে যুক্ত আছেন? আমরা চাই আপনারা এমন গবেষণা করেন যা গোটা বিশ্বকে উপকৃত করবে। তুরস্ক, জার্মানি ও অস্ট্রেলিয়াসহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশ আমাদেরকে সাহায্য করছে। তিনি বলেন, হেকেপ প্রজেক্টও গবেষকদের সহয়তা করছে। ২০১৯ সালের জন্য হেকেপের কাছে প্রায় ৭০০ মিলিয়ন ডলারের প্রজেক্ট প্রস্তাব করেছে বাংলাদেশ। যারা অতীতে বিভিন্ন প্রজেক্টে কাজ করেছে তারা এতে অগ্রাধিকার পাবে।

তিনি আরো বলেন, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রয়োজনের চেয়ে খুব কম জাতীয় ও আন্তর্জাতিক সম্মেলন হয়। এটি আরো বাড়ানো উচিত। ৫০ টি দেশ নিয়ে করতে হবে এমন কিন্তু নয়। আমাদের দেশের স্কলারদের নিয়ে করেন। এক্ষেত্রে ইউজিসি সহযোগিতা করবে।

x