বিশ্বকাপে চোখ রেখেই এশিয়া কাপে খেলবে বাংলাদেশ

ক্রীড়া প্রতিবেদক

শুক্রবার , ১৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ at ৪:০২ পূর্বাহ্ণ
19

এশিয়া কাপটা নানা কারণে বেশ গুরুত্বপূর্ণ বাংলাদেশের জন্য। আর একদিন পর শনিবার থেকে মাঠে গড়াচ্ছে এশিয়া মহাদেশের ক্রিকেট শ্রেষ্ঠত্বের এই লড়াই। যেখানে অংশ নিচ্ছে ৫টি টেস্ট খেলুড়ে দেশ এবং একটি আইসিসির সহযোগী দেশ। বাংলাদেশ, ভারত, পাকিস্তান, শ্রীলঙ্কার সঙ্গে নতুন টেস্ট খেলুড়ে দেশ আফগানিস্তান। সঙ্গে বাছাই পর্বে উৎরে এশিয়া কাপের চূড়ান্ত পর্বে নাম লিখিয়েছে হংকং। এশিয়া কাপে খেলা ৬ দলের ৫টিই খেলবে আগামী বছর ইংল্যান্ডে অনুষ্ঠিতব্য বিশ্বকাপ ক্রিকেটে। বিশ্বকাপের মোট ১০ দলের মধ্যে ৫টিই এশিয়ার। যারা বিশ্বকাপের আগে পরস্পর মুখোমুখি হয়ে নিজেদের শক্তি পরীক্ষা করে নিতে পারবে। এশিয়া কাপ শুরুর একদিন আগে আইসিসিডটকমের সঙ্গে সংক্ষিপ্ত সাক্ষাৎকারে এশিয়া কাপে অংশ নেয়া দেশগুলোর অধিনায়ক এবং সেরা খেলোয়াড়রা জানিয়েছে তাদের অভিব্যক্তি এবং লক্ষ্যের কথা। যেখানে তারা নজর রেখেছেন আইসিসি র‌্যাংকিংয়ের সঙ্গে আগামী বিশ্বকাপেও।

বাংলাদেশ দলের অধিনায়ক মাশরাফি বিন মর্তুজা জানিয়েছেন, শুধু এশিয়া কাপ নয়, আগামী বিশ্বকাপকেও চোখে রেখেছেন তারা। এশিয়া কাপে গত তিন আসরে নিজেদের সুখ স্মৃতির কথাও স্মরণ করিয়ে দেন মাশরাফি। সঙ্গে বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসানও নিজেদের সেরাটা দিয়ে আবারও প্রমাণ করতে চান, বাংলাদেশ এখন অনেক দূর এগিয়ে গেছে। আইসিসি র‌্যাংকিংয়ে এশিয়ার দেশগুলোর মধ্যে শীর্ষে রয়েছে ভারত। এরপর পাকিস্তান, বাংলাদেশ, শ্রীলঙ্কা এবং আফগানিস্তান। এছাড়া র‌্যাংকিংয়ের শীর্ষে থাকা বিশ্বসেরা বোলার এবং ব্যাটসম্যানদের অধিকাংশই এশিয়ান। এদের মধ্যেই হবে বিশ্বকাপ শিরোপার অন্যতম লড়াই।

বাংলাদেশ অধিনায়ক মাশরাফি বিন মর্তুজা বলেন, আইসিসি বিশ্বকাপ এমন একটি টুর্নামেন্ট যেখানে সবাই বেশ উদ্যমের সঙ্গে অংশগ্রহণ করতে চায়। এশিয়া কাপ আমাদেরকে আগামী বিশ্বকাপের জন্য প্রস্তুতি নিতে অনেক বেশি সহযোগিতা করতে পারে বলে বিশ্বাস করি। কারণ, এশিয়া কাপ থেকেই আগামী বিশ্বকাপ পর্যন্ত আমাদেরকে বেশ কয়েকটি সিরিজে অংশ নিতে হবে। এখানে বড় বড় দল এবং খেলোয়াড়দের বিপক্ষে খেলতে পারবো। এশিয়া কাপে নিজেদের স্মৃতির কথা উল্লেখ করে মাশরাফি বলেন, এশিয়া কাপের গত তিনটি আসরে আমাদের বেশ কিছু ভালো স্মৃতি রয়েছে। শেষ তিনটি আসরের দুটিতেই আমরা ফাইনাল খেলেছিলাম। আইসিসি র‌্যাংকিংয়েও আমরা এশিয়ার তৃতীয় সেরা দল। এটাই আমাদেরকে অনেক বেশি অনুপ্রেরণা এবং উৎসাহ যোগাচ্ছে। যেন বেশ কয়েকটি কঠিন এবং শক্তিশালী দলের বিপক্ষে আমরা খেলতে পারি।

বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসান বলেন, এই মহাদেশীয় টুর্নামেন্টটিতে বেশ কয়েকজন বিশ্বসেরা ক্রিকেটার একে অপরের বিপক্ষে লড়াই করবে। আমি আশাবাদী, সমর্থকরাও এই টুর্নামেন্টে ক্রিকেটারদের কাছ থেকে কিছু ব্যতিক্রম এবং বিশ্বসেরা অ্যাকশন দেখতে পাবে। নিজে অলরাউন্ডার হিসেবে বিশ্বসেরা। এ বিষয়টা কেমন লাগছে সাকিবের কাছে? তেমন প্রশ্নের জবাবে সাকিব বলেন, একজন বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার হিসেবে টুর্নামেন্টে অংশ নিতে যাচ্ছি। এটাই যেন অনেক বড় আনন্দের। আমি আশা করছি, নিজের সেরাটা নিয়ে এই টুর্নামেন্টে অংশ নিতে পারবো আমি। আগের দুটি ফাইনাল থেকে খালি হাতে ফিরেছি। আর এবারে যদি ফাইনালে যেতে পারি তাহলে আর খালি হাতে ফিরতে চাইনা। তবে সে জন্য আমাদের ভাল শুরু করতে হবে। শুরুতেই শ্রীলংকার বিপক্ষে ম্যাচটা জেতা খুব বেশি দরকার বলে মনে করেন সাকিব।

x