বিশেষ সমাধান আমরা পাইনি : ড. কামাল

সন্তুষ্ট নন ফখরুল

শুক্রবার , ২ নভেম্বর, ২০১৮ at ৬:০২ পূর্বাহ্ণ
207

একাদশ সংসদ নির্বাচনের আগে বিরোধপূর্ণ রাজনৈতিক অবস্থানের মধ্যে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে সংলাপ করলেও তাতে ‘সমাধান’ না পাওয়ার কথা জানিয়েছে জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট। গণভবন থেকে বেরিয়ে গাড়িতে ওঠার সময় সাংবাদিকরা ঐক্যফ্রন্টের মূল উদ্যোক্তা ড. কামাল হোসেনের কাছে জানতে চান- আলোচনা কেমন হয়েছে? উত্তরে তিনি এক কথায় বলেন, ‘ভালো।’ আলোচনা ফলপ্রসূ হয়েছে কি না- এই প্রশ্নে তার উত্তর আসে, ‘ফলপ্রসূ হবে।’ ঠিক একই সময়ে বিএনপির মহাসচিব ফখরুল গাড়িতে ওঠার সময় সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে বলেন, ‘আমরা সন্তুষ্ট নই।’
গণভবন থেকে বেরিয়ে যাওয়ার সময় জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের শরিক দল জেএসডি, নাগরিক ঐক্য, গণফোরাম কিংবা জাতীয় ঐক্য প্রক্রিয়ার কোনো নেতা সাংবাদিকদের কোনো প্রশ্নের জবাব দেননি। সংলাপে অংশ নেওয়া বিএনপির নেতা খন্দকার মোশাররফ হোসেন, মওদুদ আহমদ, মির্জা আব্বাস নিজ নিজ গাড়িতে চলে যান। তবে বিএনপির মহাসচিব ফখরুল ও জমিরউদ্দিন সরকার গিয়ে উপস্থিত হন বেইলি রোডে কামাল হোসেনের বাড়িতে, সেখানে তিনি ফ্রন্টের সংবাদ সম্মেলনে যোগ দেন। বিপুল সংখ্যক সাংবাদিকের উপস্থিতিতে কিছু হৈ চৈয়ের মধ্যে সংবাদ সম্মেলনের শুরুতেই কামাল বলেন, সংলাপে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের বিভিন্ন দলের নেতারা তাদের কথা তুলে ধরেছেন, জানিয়েছেন নানা অভিযোগও। ‘সবার কথা শোনার পর প্রধানমন্ত্রী লম্বা বক্তৃতা দেন,’ বলেন তিনি। সাংবাদিকদের প্রশ্নে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের প্রধান নেতা বলেন, ‘তবে বিশেষ সমাধান আমরা পাইনি। শুধু একটা ব্যাপারে, সভা-সমাবেশের ব্যাপারে উনি যেটা বললেন, একটা ভালো কথা বলেছেন।’ খবর বিডিনিউজ ও বাংলানিউজের।
সংবাদ সম্মেলনে কামালের আহ্বানে গণফোরামের কার্যকরী সভাপতি সুব্রত চৌধুরী বলেন, ‘সংলাপের শুরুতে ড. কামাল হোসেন সূচনা বক্তব্য রেখেছেন। এরপর বিএনপি মহাসচিব ৭ দফা দাবি তুলে ধরেছেন।‘ সভা-সমাবেশে বাধা অপসারণের আশ্বাস পাওয়ার কথা জানিয়ে সুব্রত চৌধুরী বলেন, ‘মাননীয় প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, ঢাকাসহ সারা দেশে সভা-সমাবেশে কোনো বাধা থাকবে না। তিনি আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে নির্দেশ দিয়েছেন।’ রাজনৈতিক মামলা থাকলে তার তালিকা প্রধানমন্ত্রী চেয়েছেন জানিয়ে তিনি বলেন, ‘উনি বলেছেন, তালিকা আপনারা দেন। আমি অবশ্যই বিবেচনা করব যাতে হয়রানি না হয়। উত্থাপিত দাবি-দাওয়া নিয়ে ভবিষ্যতে আলোচনার দ্বার খোলা রাখার প্রতিশ্রুতিও প্রধানমন্ত্রী দিয়েছেন বলে জানান সুব্রত। খালেদা জিয়ার মুক্তির যে বিষয়টি বিএনপির সবার আগে আনছে, সে বিষয়ে প্রধানমন্ত্রী কী বলেছেন- সাংবাদিকরা জানতে চান দলটির মহাসচিব ফখরুলের কাছে। বিএনপি মহাসচিব বলেন, ‘তিনি (প্রধানমন্ত্রী) সুনির্দিষ্ট কিছু বলেননি। তিনি বলেছেন, এ নিয়ে পরবর্তীতে আরও আলোচনা হতে পারে।’
বিরোধ সমাধানের আগে নির্বাচনে তফসিল ঘোষণা হবে কি না- প্রশ্ন করা হলে তিনি বলেন, ‘আমরা তফসিলের বিষয়ে বলেছি। উনি (প্রধানমন্ত্রী) বলেছেন, তফসিল দেওয়ার এখতিয়ার নাই। সেটা নির্বাচন কমিশন সিদ্ধান্ত নেবে।’
এর মধ্যে ড. কামাল বলেন, ‘আমরা সংলাপের সুযোগ পেয়েছি। আমরা আমাদের কথা বলে এসেছি উনাকে। উনি জানতে পেরেছেন। উনি উনার কথাগুলো বলেছেন। উনার মনের কথাও আমরা কিছুটা জানতে পেরেছি।’
বিএনপি কি এতে আশাবাদী- প্রশ্ন করা হলে ফখরুল বলেন, ‘আমি তো বলেছি যে ভাই আমি খুব সন্তুষ্ট নই।’ সেক্ষেত্রে সংলাপে কী অর্জন হয়েছে- সাংবাদিকদের এই প্রশ্নে বিএনপি মহাসচিব কিছুটা বিরক্ত ভঙ্গিতে বলেন, ‘সব সময় কি সব অর্জন হয় না কি?’ এসময় পাশে থাকা জেএসডি সভাপতি ও ফ্রন্টের মুখপাত্র আ স ম আবদুর রবও বলে ওঠেন, ‘এক দিনে সব অর্জন হয় না।’ ‘আমরা ৭ দফা দিয়েছি, মানা না মানার দায়িত্ব সরকারের। আমাদের আন্দোলন চলবে,’ বলেই সংবাদ সম্মেলনের ইতি টানেন রব।

x