বিভা ইন্দু (হায়েনার ক্রুর হাসিতে সভ্যতা ও সংস্কৃতির অপমৃত্যু)

বুধবার , ৮ আগস্ট, ২০১৮ at ৭:০৯ পূর্বাহ্ণ
60

 : অসংযত একটা হাসি আর গোয়ার্তুমি আচরণ পুরো দেশজুড়ে নৈরাজ্য ও এমন ভয়াবহ পরিস্থিতির অবতারণা করলো যা কখনো কারো কাম্য ছিলনা। সেক্ষেত্রে এমন দায়িত্বহীন অদূরদর্শী মাকাল ফলের ক্ষমতায় থাকার অর্থ কী সেটাই বুঝলাম না! মীর মদন, মোহন লাল, তীতুমীর, কানু সিধু, দিব্যোক, মাস্টারদা সূর্যসেন, প্রীতিলতা, নূর হোসেন সহ ত্রিশ লক্ষ শহীদের আত্মাহুতির অর্জন এমন সম্ভাবনার সোনালি তারুণ্যকে যে বা যারা এভাবে নোংরা গোয়ার্তুমি ও নির্লজ্জ কুটিল হাসি দিয়ে নিস্প্রভ করে দেশের সম্ভাবনাকে বুড়ো আঙ্গুল দেখায় তাদের এতটুকু আত্মসম্মান থাকলে নিজের থেকেই সরে যাওয়া উচিত। রবি ঠাকুরের ছুটি গল্পের কথা মনে পড়ে যায়— “তেরো চৌদ্দ বছরের মত এমন বালাই আর পৃথিবীতে নাই”। এরা এতটাই তারুণ্য সমৃদ্ধ যে কারো অবহেলা, শোষণ, অপশাসন ও অপমানের চেয়ে এরা ভয়ংকর মৃত্যুকে মাথায় তুলে নিতে পিছপা হয়না। এই রক্তাক্ত পরিস্থিতির অবসান চাই। নিরাপদ সড়ক চাই। এ চাওয়াগুলো জরুরি ও মৌলিক চাওয়া। এখানে কোন রকমের ছল চাতুরী বা অবহেলা করবার সুযোগ নেই। ভারী দুঃখের ও কষ্টের —-বিশ্ববাসী দেখছে এবং জানছে এ দেশকে সুশৃঙ্খল ও নিরাপদ রাখার সৎ প্রচেষ্টায় তারুণ্য্লদীপ্ত ছাত্রসমাজকে রাস্তায় নামতে হলো।

x