বিপ্লব বিজয় বিশ্বাস এর কবিতা

শুক্রবার , ৮ মার্চ, ২০১৯ at ৬:২৭ পূর্বাহ্ণ
16

ইচ্ছা করে আঘাত করি

গন্ডার চৈতন্যে জেগে থাকা মানুষের
দৌরাত্ম্য দেখে দেখে লজ্জায় মুখ ঢেকে
একাত্তরের স্বপ্ন দেখি বারবার
দগ্ধ মানসিকতায়।

আমিত্ব জাহির করার ভেলকিবাজীর দেশে
স্বার্থান্ধ মানুষেরা কিলবিল করে সদা
বোল পাল্টায় শুধু ভোল পাল্টায়
খ্যাতির শীর্ষে উঠে মৌসাহেবীপনায়
ভন্ডরা পসরা সাজায় সকাল-বিকাল।

কপটতার ছায়াঘেরা সমাজের বুকে
বর্ণচোরার দল এখনো স্বার্থ খোঁজে রক্তকণায়
চারিদিকে ছড়িয়ে ছিটিয়ে বিষ
বিভেদের খেলায় খেলায় নাচায় শরীর
কলিজার কড়া নাড়ে দুরন্ত প্রহসন।
পারেতো দেশটা গিলে খায় যেকোন সময়।

ঘাটে ঘাটে গান গায় কুৎসিত মন
সখ্য গড়ে নর্তন কুর্তন করে ঘৃণ্য অভিলাষ।
ওঁৎ পেতে সুযোগ খুঁজে ক্ষমতার লোভ।
ইচ্ছা করে আঘাত করি খ্যাতির মাথায়।

প্রদীপ জ্বালিয়ে দাও

প্রদীপ জ্বালিয়ে দাও- হাজারো প্রদীপ
লক্ষ-কোটি প্রদীপ জ্বালাবার এইতো সময়!
মন্দির-মসজিদে শুধু নয়
গীর্জা-কেয়াংয়েও নয়,
প্রদীপ জ্বালিয়ে দাও মনে
হৃদয়ের পাটাতনে।
প্রদীপ জ্বালিয়ে দাও জমাট অন্ধকারে
শহীদ মিনার-স্মৃতিসৌধ-প্রশাসন জুড়ে
মনন অন্দরে।

হাজারো সূর্যের আলোয় আলোকিত হোক
চোখের গহীন বন,
আলোকিত হোক প্রেম
ভয়ের করাল গ্রাসে নিপতীত সুন্দর।
আলোকিত হোক কদর্য বেষ্টিত চৈতন্যবোধ
পাষুন্ড কবলিত নিষিদ্ধ ভুবন।

আলোর বন্যায় ছারখার হোক
সংক্রমিত শক্তির আখ্যান
ছারখার হোক কালো মানুষেরা
ছদ্মবেশী আনাগোনা-কলংকের ছায়া।
আলোর বন্যায় ছারখার হোক জিঘাংসার ছক
ছারখার হোক কদাচার-হিংসার ঘনঘটা
শনির অন্ধ বলয়।

এসো জমাট রক্তের উপর প্রদীপ জ্বালাই
প্রদীপে প্রদীপে আলোকিত হোক বধ্যভূমি
আলোকিত হোক ইতিহাস
আলোকিত হোক এই যোদ্ধা স্বদেশ।
শেখ মুজিবের কথা বলো
শেখ মুজিবের কথা বলো ভাইসব….
বিধি নিষেধের নিকুচি করে দুর্দান্ত ট্যাংকের মত
দুঃশাসনের রক্তচক্ষু দুমড়ে-মুচড়ে একাকার করে বলো,
ইতিহাসের মত প্রচন্ড প্রগলভতায় মস্তক উঁচিয়ে বলো
পথ-ঘাট-শহর-বন্দর-গ্রাম-ক্ষেতে-কারখানায় বলো
মিটিং, মিছিল-সংসদ-সচিবালয়-কারাগারে-ব্যারাকে বলো,
সুদিনে-দুর্দিনে, দৈব-দুর্বিপাকে-শোকে-সংগ্রামে বলো
কালজয়ী সেনাপতি চিরজাগ্রত মুজিবের কথা বলো।

শেখ মুজিবের কথা বলো ভাইসব…..
তরঙ্গমালার মত ক্ষেপে ওঠে শক্ত বক্ষ ভেদ করে বলো
দানবের চক্রান্ত লন্ডভন্ড করে বৈপ্লবিক স্পর্ধায় বলো
স্বৈরাচারের কারফিউ ভাঙা স্বদেশ কাঁপানো স্লোগানের মত
হানাদার প্রতিরোধে গর্জে ওঠা বাজখাঁই অহংকারে বলো।
অস্তিত্বের সূত্র সুবাদে মহান একুশের রেনেসাঁর মত বলো
শয়নে-স্বপনে, ধ্রুপদী ঝংকারে বলো
সংগীতে-সাহিত্যে-চিত্রে-নৃত্যে বলো
শেকড় সন্ধানী, কিংবদন্তী মুক্তিদাতা মহানায়কের কথা বলো।

শেখ মুজিবের কথা বলো ভাইসব…..
বীর্যবান রেসকোর্সের বজ্রকন্ঠের মত বলো
মুক্তিযুদ্ধের মত দুনিয়া কাঁপিয়ে অপ্রতিরোধ্য হয়ে বলো।
রবীন্দ্র-নজরুল-সুকান্তের কবিতার মত
শেকল ভাঙার সুর মূর্ছনায় প্রহর ঘোষণার উল্লাসে বলো
বৃহস্পতির ঝড়ের মত গ্রহ প্রকম্পিত করে বলো
বেগবান পৃথিবীর তীব্র গতির মত চিরায়ত সত্তায় বলো
গণ-অভ্যূত্থানের মত সোচ্চার উচ্চারণে সিংহকন্ঠে বলো
সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি অগ্নিপুরুষ মুজিবের কথা বলো।

শেখ মুজিবের কথা বলো ভাইসব…..
জাতীয় সংগীতের সম্মানে সম্মানিত করে বলো
জাতীয় পতাকার শৌর্যে-বীর্যে-বলদর্পী প্রত্যয়ে বলো
মানচিত্রের শাশ্বত স্থাপনায় মনে-প্রাণে অখন্ড কন্ঠে বলো
মুক্তিযুদ্ধের চেতনা প্রবাহে অমিত বিক্রমে বলো।
বলো-ভাইসব বলো-মহাকব্যের মহাকবি শেখ মুজিবের কথা বলো…..
কালবৈশাখীর মত গর্জে ওঠে নির্ভয়ে বলো

সুনামীর মত চারদিক একাকার করে দৃপ্ত সত্তায় বলো
জয়বাংলা ধ্বনির মত আকাশ-বাতাস প্রকম্পিত করে বলো
শক্রর বক্ষভেদী হায়দরী হাঁকে নব যৌবনে বলো
জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবের কথা বলো……
বাঙালি সত্তার গৌরব নন্দন অজেয় সূর্যের কথা বলো।

- Advertistment -