বাড়ছে সাইবার অপরাধ

ফেসবুকে পোস্ট দেওয়া নিয়ে নানা ঘটনা মামলা বেড়েছে ২শ গুণ, বেশিরভাগ ৫৭ ধারায়

ঋত্বিক নয়ন

মঙ্গলবার , ১০ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ at ৬:১৬ পূর্বাহ্ণ
203

২০১৭ সালের ৫ অক্টোবর গভীর রাতে নগর ছাত্রলীগ নেতা সুদীপ্ত বিশ্বাস নিজের ফেসবুক ওয়ালে স্ট্যাটাস দেন ‘অপেক্ষায় রইলাম’। এর ঠিক ছয় থেকে সাত ঘণ্টা পর শুক্রবার সকালে নগরীর সদরঘাটে প্রতিপক্ষের ছেলেরা নির্দয়ভাবে পিটিয়ে হত্যা করে সাংগঠনিকভাবে পরিচ্ছন্ন নেতা হিসেবে স্বীকৃত মেধাবী এ তরুণকে। মামলাটি নানা ঘাট পেরিয়ে এখন পিবিআই চট্টগ্রামের তদন্তাধীন। ইতোমধ্যে ধরা পড়েছেন প্রতিপক্ষ গ্রুপের অভিযুক্ত বড় ভাই। সুদীপ্ত হত্যার মূল কারণ হিসেবে এখন পর্যন্ত তদন্তে উঠে এসেছে তার ফেসবুক পোস্ট; যেখানে ছাত্রলীগের রাজনীতিতে বিভেদের বিষয়টি স্পষ্ট হয়ে ওঠে। দীর্ঘদিন ধরে সিটি কলেজ ছাত্র সংসদের নির্বাচন হচ্ছে না। সুদীপ্ত ছিলেন সিটি কলেজ ছাত্রলীগের সদস্য। নির্বাচন অনুষ্ঠিত না হওয়ার বিষয়ে ফেসবুকে স্ট্যাটাস দিয়ে সাবেক নেতাদের প্রতি কটাক্ষ করেছিলেন তিনি। সেই সময়কার চাঞ্চল্যকর এ ঘটনাটি এখনো আলোচিত।
ফেনীর আলোচিত মাদ্রাসাছাত্রী নুসরাতকে যৌন নিপীড়নের অভিযোগে তার মা শিরিন আক্তার বাদী হয়ে গত ২৭ মার্চ সোনাগাজী থানায় সোনাগাজী ইসলামিয়া ফাজিল মাদ্রাসার অধ্যক্ষ সিরাজ উদ্দৌলার বিরুদ্ধে মামলা করেন। এরপর অধ্যক্ষকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। এ ঘটনায় জিজ্ঞাসাবাদের নামে নুসরাতের বক্তব্য ভিডিও করেন ওসি মোয়াজ্জেম। পরে সেই ভিডিও সোশ্যাল মিডিয়ায় ছড়িয়ে দেন তিনি। ভিডিও করে ফেসবুকে ছড়িয়ে দেওয়ার অভিযোগে ওসি মোয়াজ্জেমের বিরুদ্ধে ১৫ এপ্রিল ঢাকার সাইবার ট্রাইব্যুনালে একটি মামলা দায়ের করেন আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের প্রসিকিউটর ব্যারিস্টার সুমন। পরে তাঁকে গ্রেপ্তার করা হয়।
শুধু এ দুটি ঘটনা নয়, ফেসবুকে পোস্ট দেওয়াকে কেন্দ্র করে খুনের ঘটনা ঘটছে হরহামেশা। ঘটছে আত্মহত্যা, মানহানি, গুজবকে কেন্দ্র করে গণপিটুনি, গ্রুপিং, সংঘর্ষসহ নানা অপরাধ। আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর কর্মকর্তাদের দাবি, এ সংক্রান্ত আইন আছে, আইনের প্রয়োগও চলছে। তবু নিত্যনতুন প্রক্রিয়ায় যে যেভাবে পারছে স্ট্যাটাস দিচ্ছে। কখনো ব্যক্তিগত আক্রোশ থেকে, কখনো আবার মনের অজান্তে এমন কোনো স্ট্যাটাস দিচ্ছে, যা বিপদের কারণ হয়ে উঠছে।
কোতোয়ালী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ মহসীন আজাদীকে বলেন, বর্তমানে জিডি বা মামলা যা-ই বলেন, তার মধ্যে ফেসবুকে হয়রানি সংক্রান্ত অভিযোগই বেশি। এ ধরনের অভিযোগসমূহের তদন্ত আমরা অধিক গুরুত্বের সাথে করছি।
ডবলমুরিং থানার ওসি সদীপ কুমার দাশ আজাদীকে বলেন, প্রতি মাসে গড়ে ১৫টা অভিযোগ আসছে ফেসবুকে হয়রানি সংক্রান্ত। আসলে তথ্য প্রযুক্তির ব্যবহার যত বাড়ছে, এর মাধ্যমে সংঘটিত অপরাধের মাত্রাও বাড়ছে।
বাকলিয়া থানার ওসি নেজামউদ্দিন বলেন, ক’দিন আগে ১৭ বছরের একটি ছেলের বিরুদ্ধে অভিযোগ আসে। সে ৮ হাজার টাকা দিয়ে একটা চোরাই মোবাইল কিনে। সেখানে মা ও মেয়ের ছবি পেয়ে তা ফেসবুকে আপলোড করে কুরুচিপূর্ণ স্ট্যাটাস দেয়। বুঝতে পারছি, সে হুজুগে অথবা সঙ্গদোষেই দিয়েছে।
বাড়ছে কম্পিউটার, বাড়ছে মোবাইল ফোন। সেই সঙ্গে বাড়ছে ইন্টারনেট, এসএমএসসহ অন্যান্য প্রযুক্তি ব্যবহারকারীর সংখ্যা। একই সঙ্গে পাল্লা দিয়ে বাড়ছে এটির অন্ধকার জগতের ঝুঁকি। বাড়ছে সাইবার অপরাধের মামলাও। অংকের হিসাবে গত বছর এ অপরাধের মামলা বেড়েছে প্রায় ২০০ গুণ। আর এসব মামলার বেশিরভাগই করা হচ্ছে তথ্য ও যোগাযোগপ্রযুক্তি আইনের ৫৭ ধারায়।
সাইবার অপরাধ প্রতিরোধে দেশের সরকারি-বেসরকারি অনেক প্রতিষ্ঠান কাজ করছে। তথ্যপ্রযুক্তি মন্ত্রণালয়, বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশন (বিটিআরসি), র‌্যাব, পুলিশ এবং ঢাকা মহানগর পুলিশের নতুন ইউনিট কাউন্টার টেররিজম অ্যান্ড ট্রান্সন্যাশনাল ক্রাইম টিম সাইবার নিরাপত্তায় বিভিন্নভাবে কাজ করছে। তারপরও অপরাধীরা আইনের চোখ ফাঁকি দিয়ে অপরাধ করছে।
বিশেষজ্ঞরা বলছেন, দিন দিন আমাদের প্রযুক্তি নির্ভরতা বাড়ছে। সেই সঙ্গে সাইবার অপরাধ সংঘটিত হওয়ারও প্রবণতা বাড়ছে। কিছুদিন আগে ফেসবুকে গুজব ছড়ানো হয়েছিল ছেলেধরা বা পদ্মা সেতুতে মানুষের মাথা লাগবে। এমন গুজবের নিউজ/গুজব ছড়ানোর অভিযোগে সারা দেশে ৬০টি ফেসবুক আইডি, ২৫টি ইউটিউব লিংক এবং ১০টি অনলাইন পোর্টাল বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে।
গত কিছুদিন ধরে লালখান বাজার এলাকায় দুই গ্রুপে সংঘর্ষ হয়েছিল। উপর্যুপরি অভিযান চালিয়ে উভয় পক্ষের অনেক নেতাকর্মীকে আটক করার পর উত্তেজনা স্থিমিত হয়। কিন্তু সম্প্রতি আওয়ামী লীগ নেতা দিদারুল আলম মাসুম গ্রেপ্তার হওয়ার পর তার পক্ষ হয়ে প্রতিপক্ষের বিরুদ্ধে স্ট্যাটাস দেওয়া হয়। রাবেয়া আক্তার নামে লালখান বাজার ওয়ার্ড মহিলা আওয়ামী লীগের এক নেত্রীর ফেসবুক পেজ থেকে স্ট্যাটাস দেওয়া হয়, ‘কোথায় গেলি ভাইপুতেরা, মাঠে নামছে তোদের ফুফুরা। এলাকায় আইলে তোদের কপালে পড়বে ঝাঁটার বাড়িটা। সাহস থাকলে সামনে আই। তোদের সাথে লড়বে এবার মাসুম ভাইয়ের বোনেরা।’
এই স্ট্যাটাস দেওয়ার পরদিনই উভয় পক্ষে পুনরায় সংঘর্ষ হয়। একই পেজ থেকে অন্য একটি স্ট্যাটাসে বলা হয়, ‘বারবার ঘুঘু তুমি গেয়ে গেলে গান, এইবার ঘুঘু তুমি ধরা পড়লে থাকবে না জান।’ যেকোনো সময় পুনরায় এলাকায় দুই পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষের আশঙ্কা উড়িয়ে দিচ্ছে না স্থানীয় পুলিশ প্রশাসন।
৩১ জুলাই নগরীর হালিশহর থানাধীন বড়পোল মোড়ে ট্রাফিক পুলিশ বঙের সামনে থেকে চট্টগ্রাম জেলা পুলিশের নামে ভুয়া ফেসবুক পেজ চালু করে অশ্লীল ও মানহানিকর তথ্য পোস্ট করার দায়ে এক সাইবার অপরাধীকে আটক করে জেলা গোয়েন্দা পুলিশ। তথ্যপ্রযুক্তির সহায়তায় রমজান হোসেন রাজুকে (২৫) আটক করা হয়।
২৫ জুলাই ফেসবুকে স্ট্যাটাস দিয়ে প্রেমিক-প্রেমিকার আত্মহত্যার খবর পাওয়া গেছে। নিহতরা হলেন রাঙামাটি শহরের রিজার্ভবাজারের ওষুধ ব্যবসায়ী ছোটন দেওয়ানজির ছেলে প্রান্ত দেওয়ানজি হিমেল (১৮) ও রাঙ্গুনিয়া উপজেলার শিলক এলাকার শহীদ তালুকদারের কন্যা তাহফিমা খানম তিন্নি (১৮)।
১২ জুন চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগের স্নাতকোত্তর শিক্ষার্থী সুনামগঞ্জ সদর উপজেলার জায়ফরপুর গ্রামের সঞ্জু দেব আত্মহত্যা করেন। তার আগে ৮ জুন ফেসবুকে তিনি স্ট্যাটাস দিয়েছিলেন। স্ট্যাটাসের চার দিন পর শহরের মিজান হোটেলের কক্ষ থেকে ১২ জুন দুপুরে তার ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করে পুলিশ।
৩১ জানুয়ারি চট্টগ্রামে স্ত্রীর পরকীয়ার জেরে ফেসবুকে স্ট্যাটাস দিয়ে আত্মহত্যা করেন চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মেডিসিন বিভাগে কর্মরত মোস্তফা মোরশেদ আকাশ (৩৩) নামে এক চিকিৎসক। তিনি চমেক হাসপাতালের অবেদনবিদ (অ্যানেসথেসিয়া) বিভাগের চিকিৎসা কর্মকর্তা হিসেবে কর্মরত ছিলেন। এর আগে তিনি ফেসবুকে নিজের টাইমলাইনে স্ট্যাটাস, ছবি ও ভিডিও দিয়ে স্ত্রীর সঙ্গে সম্পর্কের অবনতির ঘটনাবলি তুলে ধরেন। তার সর্বশেষ স্ট্যাটাস ছিল ‘ভালো থেকো আমার ভালোবাসা তোমার প্রেমিকদের নিয়ে।’
২৮ জানুয়ারি ফেসবুকে রাষ্ট্রবিরোধী পোস্ট দেয়ার অভিযোগে বাঁশখালী উপজেলার শেখেরখীল থেকে এক যুবককে আটক করে র‌্যাব। তার ব্যবহৃত ফেসবুক আইডি বিশ্লেষণ করে দেখা যায়, তিনি বিভিন্ন সময়ে রাষ্ট্রবিরোধী প্রচারণাসহ প্রধানমন্ত্রী ও আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যদের ছবি বিকৃতি এবং ক্যাপশনে অশ্লীল লেখা প্রকাশ করেছেন।
২০১৮ সালের ২৬ মার্চ বন্দর থানা এলাকায় যুবলীগ কর্মী মহিউদ্দিন খুনের মূলে হাজী ইকবালের বিরোধিতা এবং তার বিরুদ্ধে ফেসবুকে স্ট্যাটাস দেওয়ার জের বলে আদালতে দেওয়া জবানবন্দিতে জানিয়েছেন গ্রেপ্তার হওয়া তিন আসামি হারুনুর রশিদ, বখতেয়ার আলম প্রিন্স ও সাগর।

x