বাঙালি জাতিসত্তা সুরক্ষার প্রধান অবলম্বন শেখ হাসিনা

স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবসের আলোচনা সভায় বক্তারা

আজাদী প্রতিবেদন

শনিবার , ১৮ মে, ২০১৯ at ১০:২৯ পূর্বাহ্ণ
43

আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ৩৮ তম স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস উপলক্ষে চট্টগ্রামে আওয়ামী লীগের আলোচনা সভায় বক্তারা বলেছেন, ১৯৮১ সালে প্রতিকূল পরিবেশে বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনা দেশে ফিরে এসেছিলেন। তার ফিরে আসার মধ্যদিয়ে সেদিন আওয়ামী লীগের হাজার হাজার নেতাকর্মী উজ্জীবিত হয়েছিলেন। দল সুসংগঠিত হয়েছিল। এই দেশের ভাগ্য বঞ্চিত কোটি কোটি পেয়েছিল যোগ্য নেতা। অন্ধকারাচ্ছন্ন্‌ এ দেশের রাজনীতিতে ফিরে এসেছিল আশার আলো। শেখ হাসিনার দূরদর্শী নেতৃত্ব, রাষ্ট্রনায়কোচিত দক্ষতায় প্রমাণ করেছেন তিনি অতুলনীয়। শেখ হাসিনা বাঙালি জাতিসত্তার সুরক্ষার প্রধান অবলম্বন। এ জাতিকে অর্থনৈতিক মুক্তি এনে দিয়েছেন।
চট্টগ্রাম মহানগর, উত্তর ও দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগ আয়োজিত আলোচনা সভায় নেতৃবৃন্দ এসব কথা বলেন। আওয়ামী লীগের পাশাপাশি স্থানীয় সংসদ সদস্য, যুবলীগ, মহিলা আওয়ামী লীগসহ বিভিন্ন অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠন স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবসে আলোচনা সভার আয়োজন করে।
মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সিটি মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন বলেছেন, শেখ হাসিনা বাংলাদেশের মানুষের মুক্তির অগ্রদূত উল্লেখ করে আওয়ামী লীগ নেতারা বলেন, আজ থেকে ৩৮ বছর আগে এদিনে ৭৫-এর ১৫ আগস্ট বঙ্গবন্ধু পরিবারের দুই সদস্য শেখ হাসিনা ও শেখ রেহেনা প্রায় ৬ বছর নির্বাসনকাল পেরিয়ে বাংলাদেশের মাটিতে পা রেখেছিলেন। সেই সময় জাতির ঘাড়ে জগদ্দল পাথরের মত সোয়ার হয়েছিল সামরিক স্বৈরাচার ও তাদের ইন্ধনে একাত্তরের পরাজিত শক্তি রাষ্ট্র ক্ষমতায় থেকে এদেশকে পাকিস্তানি ভাবধারায় পরিচালিত করছিল। সেই কঠিন সময়ে আজকের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দলের সভাপতির দায়িত্ব নিয়ে দীর্ঘ লড়াই-সংগ্রামের মধ্য দিয়ে দেশের স্বাধীনতা, সার্বভৌমত্ব ও গণতন্ত্রকে সুরক্ষা দিয়েছেন। তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধু বাংলাদেশের স্বাধীনতা এনে দিয়েছিলেন। তার কন্যা দেশের সাংস্কৃতিক, রাজনৈতিক ও অর্থনৈতিক মুক্তি এনে দিয়েছেন। হাসিনা দেশে ফিরে এসে বাংলাদেশে নতুন একটা কথা যোগ করেন- সেটা হল মানুষের ভোট ও ভাতের অধিকার নিশ্চিত করা। শুধু তাই নয় বাংলাদেশকে উন্নয়নের উৎকর্ষের দিকে নিয়ে গেছেন।
দারুল ফজল মার্কেটস্থ দলীয় কার্যালয়ে মহানগর আওয়ামী লীগের আলোচনা সভায় তিনি এসব কথা বলেন। সভাপতির বক্তব্যে মহানগর আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মাহতাব উদ্দিন চৌধুরী বলেন, ৭৫-এর ঘাতকরা বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করলেও তাদের লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য সফল হয়নি বরং তারা ইতিহাসের আস্তাকুড়ে নিক্ষিপ্ত হয়েছে। শেখ হাসিনার এই জাতির কলঙ্ক মোচন করেছেন এবং দারিদ্র্য-বিমোচন ও ক্ষুধামুক্ত লড়াইয়ে বিশ্বনেত্রীর আসনে অধিষ্ঠিত হয়েছেন। সাংগঠনিক সম্পাদক শফিক আদনানের সঞ্চালনায় আলোচনা সভায় বক্তব্য দেন, সহ-সভাপতি নঈম উদ্দিন চৌধুরী, অ্যাড. ইব্রাহিম হোসেন চৌধুরী বাবুল, খোরশেদ আলম সুজন, আলতাফ হোসেন চৌধুরী বাচ্চু, সাংগঠনিক সম্পাদক নোমান আল মাহমুদ, সম্পাদকমন্ডলীর সদস্য শফিকুল ইসলাম ফারুক, হাসান মাহমুদ শমসের, অ্যাড. ইফতেখার সাইমুল চৌধুরী, চন্দন ধর, মশিউর রহমান চৌধুরী, আবদুল আহাদ, লায়ন মো. হোসেন, আবু তাহের, ডা. ফয়সাল ইকবাল চৌধুরী, শহিদুল আলম, জহরলাল হাজারী, কার্যনির্বাহী সদস্য এম এ জাফর, গাজী মফিউল আজিম, পেয়ার মোহাম্মদ, নুরুল আলম, মোহব্বত আলী খান, গোলাম মোহাম্মদ চৌধুরী, হাজী বেলাল আহমেদ, যুবলীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য সৈয়দ মাহমুদুল হক, শফিকুল হাসান, হাজী সিদ্দিক আলম, সাহাব উদ্দিন আহমেদ, মো. ইলিয়াছ, শামসুল আলম, আবু তৈয়ব সিদ্দিকী প্রমুখ।
উত্তর জেলা আওয়ামী লীগ : উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের আলোচনা সভায় বক্তারা বলেছেন, জননেত্রী শেখ হাসিনার দৃঢ় নেতৃত্বে বঙ্গবন্ধু হত্যার ও যুদ্ধাপরাধীদের বিচার সম্পন্ন হয়েছে। শেখ হাসিনা বাংলাদেশকে উন্নত, আধুনিক রাষ্ট্রে পরিণত করেছেন। শেখ হাসিনা স্বদেশ প্রত্যাবর্তন করেছেন বলেই আজ বাংলাদেশ অসাম্প্রদায়িক গণতান্ত্রিক রাষ্ট্র হিসেবে বিশ্বে মর্যাদার আসনে প্রতিষ্ঠিত হয়েছে। আওয়ামী লীগ সভানেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস উপলক্ষে গতকাল দোস্ত বিল্ডিংস্থ কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত হয়। সভায় সভাপতিত্বে করেন সংগঠনের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি এ বি এম ফজলে করিম চৌধুরী এমপি। প্রধান আলোচক ছিলেন সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক ও চট্টগ্রাম জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান এম এ সালাম। প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক জসিম উদ্দিন শাহর সঞ্চালনায় সভায় বক্তব্য দেন, সহ-সভাপতি অধ্যাপক মো. মঈনুদ্দিন, অ্যাড. ফখরুদ্দিন চৌধুরী, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মো. আবুল কালাম আজাদ, সাবেক যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মো. গিয়াস উদ্দিন, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ইউনুস গণি চৌধুরী, সাংগঠনিক সম্পাদক ও পৌর মেয়র দেবাশীষ পালিত, সাংস্কৃতিক সম্পাদক স্বজন কুমার তালুকদার, দপ্তর সম্পাদক মহিউদ্দিন বাবলু, আইন সম্পাদক অ্যাড. ভবতোষ নাথ, উপ-দপ্তর সম্পাদক আলাউদ্দিন সাবেরী, উপদেষ্টা অ্যাড. এম এ নাসের চৌধুরী, কার্যনির্বাহী সদস্য মনজুরুল আলম চৌধুরী, এসএম. শফিউল আজম, শাহ্‌ নেওয়াজ চৌধুরী, উত্তর জেলা কৃষক লীগ সভাপতি নজরুল ইসলাম চৌধুরী, কেন্দ্রীয় যুবলীগের সহ-সম্পাদক মো. সেলিম উদ্দিন, উত্তর জেলা মহিলা আওয়ামী লীগের সভানেত্রী দিলোয়ারা ইউসুফ, সাধারণ সম্পাদক অ্যাড. বাসন্তী প্রভা পালিত, জেলা পরিষদ সদস্য অ্যাড. উম্মে হাবিবা, জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি বখতেয়ার সাঈদ ইরান, যুব মহিলা লীগের আহ্বায়িকা জোবায়দা সরওয়ার নিপা, জেলা ছাত্রলীগ সভাপতি তানভীর হোসেন তপু, সাধারণ সম্পাদক মো. রেজাউল করিম প্রমুখ।
দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগ : শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস উপলক্ষে দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের আলোচনা সভা সভাপতিত্ব করেন সভাপতি মোছলেম উদ্দিন আহমদ। তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধুকে সপরিবারে হত্যা করার পর বাংলাদেশের রাজনীতি যখন খুনী ও ক্ষমতালিপ্সু জিয়াউর রহমানের নেতৃত্বে স্বাধীনতার পরাজিত জামাত আলবদরদের উল্লাস নৃত্যে খণ্ডিত, বিকৃত হয়ে মহাদুর্যোগে পতিত, যখন দেশের ঐতিহ্য, ইতিহাস ও অর্জনকে অস্বীকার করে জনগণের আকাঙ্ক্ষা পদদলিত। বক্তব্য দেন, দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মফিজুর রহমান। কৃষি বিষয়ক সম্পাদক অ্যাড. আবদুর রশিদের সঞ্চালনায় আলোচনা সভায় বক্তব্য দেন, আইন বিষয়ক সম্পাদক অ্যাড. মির্জা কচির উদ্দিন, সাংগঠনিক সম্পাদক প্রদীপ কুমার দাশ, প্রচার সম্পাদক নুরুল আবছার চৌধুরী, বন ও পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদক অ্যাড. মুজিবুল হক, ধর্ম সম্পাদক আবদুল হান্নান চৌধুরী মঞ্জু, দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগ সদস্য চেয়ারম্যান নাছির আহমদ, মোস্তাক আহমদ আঙ্গুর, মাহবুবুর রহমান সিবলী, দক্ষিণ জেলা যুবলীগ সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক পার্থ সারথী চৌধুরী, দক্ষিণ জেলা তাঁতী লীগ আহ্বায়ক দিদারুল আলম, মোয়াজ্জেম হোসেন বাদল, মোহাম্মদ ইলিয়াছ, মুক্তিযোদ্ধা রমিজ উদ্দিন, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান অ্যাড. কামেলা খানম রূপা, অ্যাড. শ্যামলী চৌধুরী, জগদা চৌধুরী ঘোষ সুপ্রিয়, নিশু চৌধুরী, ডিপু সেন, কামরুন নাহার, দক্ষিণ জেলা ছাত্রলীগ সভাপতি এস এম বোরহান উদ্দিন, আবু বকর জীবন, দিদারুল আলম রিপন, জাহাঙ্গীর রেজা, কে এম পারভেজ, আজিজ তুহিন প্রমুখ।
মহানগর মহিলা আওয়ামী লীগ : মহানগর মহিলা আওয়ামী লীগের সভাপতি হাসিনা মহিউদ্দিন বলেছেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জাতিকে অন্ধকার থেকে আলোর পথে টেনে এনেছেন। গতকাল শুক্রবার শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস উপলক্ষে প্রয়াত এ বি এম মহিউদ্দিন চৌধুরীর চশমা হিলস্থ বাসভবনে মহানগর মহিলা আওয়ামী লীগের আলোচনা সভায় তিনি এসব কথা বলেন। সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক হোসনে আরা বেগমের সঞ্চালনায় আলোচনা সভায় আরো বক্তব্য দেন, মহানগর মহিলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আনজুমান আরা চৌধুরী আনজী, সহ-সভাপতি বিলকিস কলিম উল্লাহ, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক কাউন্সিলর নিলু নাগ, মালেকা চৌধুরী, সাংগঠনিক সম্পাদিকা খুরশিদা বেগম, দপ্তর সম্পাদক হাসিনা আক্তার টুনু, আইন বিষয়ক সম্পাদিকা অ্যাড. রোকসানা আক্তার, লায়লা আক্তার এটলী, ধর্ম বিষয়ক সম্পাদিকা আয়েশা আলম চৌধুরী, মা ও শিশু বিষয়ক সম্পাদক শারমীন ফারুক, শিল্প ও বাণিজ্য সম্পাদক হুরে আরা বিউটি, সদস্য ইসরাত জাহান চৌধুরী, ফাতেমা আক্তার, নাজমা মাওলা, আয়েশা সিদ্দিকী, ঝর্ণা বড়ুয়া, আয়েশা আক্তার পান্না, অধ্যাপক শিরীণ আক্তার, সোনিয়া ইদ্রিস, হোসনে আরা পারু, নাসরিন আক্তার, উম্মে কুলসুম, বিলকিস আলম প্রমুখ।
সাংসদ এম এ লতিফ : সাংসদ এম এ লতিফের উদ্যোগে শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন উপলক্ষে ৩ নং জেটিগেটস্থ এমপির দলীয় কার্যালয়ে গতকাল আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়। অনুষ্ঠানে চট্টগ্রাম-১১ আসনের আওয়ামী লীগ ও এর সহযোগী অঙ্গ সংগঠন নেতা কর্মীরা অংশগ্রহণ করেন। ৩৭ নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি হোসেন মুরাদ সভায় সভাপতিত্ব করেন। অনুষ্ঠানে ফকিরহাট শেখ আবদুল লতিফ জামে মসজিদের পেশ ইমাম মো. রফিকুল ইসলাম মোনাজাত পরিচালনা করেন। এসময় আরো উপস্থিত ছিলেন, সৈয়দ মাহবুবুল আলম, মো. শফিউল আলম, সৈয়দ মো. হোসেন, আব্দুল আজিজ মোল্লা, জাহিদুল আলম মিন্টু, আব্দুল মতিন মাস্টার, মো. ইমাম হোসেন, সৈয়দ আহম্মেদ বাদল, এজাহার মিয়া, মো. ইমতিয়াজ মেম্বার, মোকতার আহমেদ, মো. দিদার উদ্দিন প্রমুখ।

x