বাংলাদেশ নারী ক্রিকেট দলের অনন্য সাফল্য

বুধবার , ১৩ জুন, ২০১৮ at ৫:৩৪ পূর্বাহ্ণ
57

নারী ক্রিকেট দলের অসামান্য সফলতায় আনন্দের জোয়ারে ভাসছে সমগ্র বাংলাদেশ। রাষ্ট্রপতি মোহাম্মদ আবদুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা থেকে শুরু করে জাতীয় সংসদের স্পিকার, ডেপুটি স্পিকার, প্রধান হুইপ, বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের কর্মকর্তা, জাতীয় দলের ক্রিকেটাররা অভিনন্দন জানিয়েছেন নারী ক্রিকেট দলকে। এ জয় অপ্রত্যাশিত, অভাবনীয় ও দৃষ্টান্ত স্থাপনকারী জয়। চাট্টিখানি কথা নয় যে, দুর্দমনীয় ভারতকে তিন উইকেটে হারিয়ে মেয়েদের এশিয়া কাপটি টোয়েন্টিতে চ্যাম্পিয়ন হয়েছে বাংলাদেশ। আন্তর্জাতিক ক্রিকেট পুরুষনারী মিলিয়েই বাংলাদেশের প্রথম শিরোপা এটি। দৈনিক আজাদীতে সোমবার প্রকাশিত ‘যে ইতিহাস নারীদের’ শীর্ষক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ‘এ যেন রূপকথাকে হার মানানো। কখনো কখনো কিছু কিছু ঘটনা হার মানায় কল্পনাকেও। বাস্তবতার জমিনে নামিয়ে আনে কল্পনার ফানুসকে। তেমনই একটি রূপকথার জন্ম দিল বাংলাদেশ নারী ক্রিকেট দল।’

একুশ বছর আগে যে আইসিসি ট্রফির শিরোপা জয়ের মঞ্চ হয়েছিল কুয়ালালামপুর, সেই স্বপ্নের শহরেই আমাদের নারী ক্রিকেটাররা বাংলাদেশকে উপহার দিলেন শিরোপা। বলা বাহুল্য, ২০১২ এবং ২০১৬ সালে দুবার এশিয়া কাপের ফাইনালে উঠেছিল বাংলাদেশের পুরুষ দলটি। বছরের প্রারম্ভে শ্রীলংকায় নিদাহাস ট্রফির ফাইনালেও যাওয়া হয়েছিল। কিন্তু একেবারে বিজয়ের কাছাকাছি গিয়ে স্বপ্নভঙ্গের সঙ্গীত রচনা করতে হয়েছে বারবার। প্রতিবারই হৃদয় ভাঙার শব্দে মর্মরিত হয়েছে পুরো বাংলাদেশ। কষ্টে, দুঃখে ও হতাশায় জর্জরিত বাংলাদেশের ক্রীড়ামোদী মানুষকে নতুনভাবে উজ্জীবিত করেছে নারী ক্রিকেট দল। সালমা রুমানা জাহানারাদের কীর্তিতে কোনো আন্তর্জাতিক ক্রিকেটের ট্রফিতে প্রথমবার লিপিবদ্ধ হলো বাংলাদেশের নাম। নারী ক্রিকেটাররা বিশ্বমঞ্চে বাংলাদেশের নামকে ছড়িয়ে দিয়েছেন, উজ্জ্বল করেছেন দেশের ভাবমূর্তি। আমাদের আনন্দ ও গৌরব বেশি এ কারণে যে, মেয়েদের এশিয়া কাপের ইতিহাসে সবচেয়ে সফল দল ভারতকেই হারিয়েছে বাংলাদেশের নারী ক্রিকেট দল।

বাংলাদেশের এমন অসাধারণ অর্জনে ক্রিকেট বিশ্বও আনন্দিত। তাদের খুশি হওয়ার অন্যতম কারণ, বিশ্ব ক্রিকেট থেকে বিশেষ করে নারীদের নাম থেকে নতুন দল উঠে আসুকণ্ডএটাই প্রত্যাশা। হাতে গোনা কয়েকটি দল ছাড়া বিশ্বে নারী দলের প্রসার খুব একটা বেশি নয়। সেই হিসেবে বাংলাদেশের শিরোপা লাভ নতুন করে ইতিহাস রচিত রচনায় সাহায্য করেছে। বাংলাদেশের প্রতিটি ক্রীড়ামোদির মতো আমরাও আনন্দিত এবং অভিনন্দন জানাই নারী ক্রিকেট দলের সকল সদস্যকে। খেলোয়াড়, কোচ ও সকল কর্মকর্তার পাশাপাশি বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের সংশ্লিষ্ট সকলকে অভিবাদন জানাই। বিশ্ব নারী ক্রিকেটে উদীয়মান শক্তি হিসেবে আবির্ভূত হয়েছে বাংলাদেশ। এ জয়ের মাধ্যমে বাংলাদেশ নারী ক্রিকেট দল অনন্য নজির স্থাপন করেছে। তাঁদের এ অসাধারণ সাফল্যে আমরা গর্বিত। সামনে বিশ্বকাপ ফুটবলের উন্মাদনার অপেক্ষা পুরো বিশ্ব। এর আগেই অবর্ণনীয় উন্মাদনায় নিমগ্ন হয়েছেন বাংলাদেশের নাগরিকরা। অন্যদিকে, আমাদের অতি নিকটে ঈদুল ফিতর। ঈদের আনন্দের আগেই আমরা এ জয়ের মাধ্যমে ঈদ আনন্দ উদযাপন করতে সক্ষম হয়েছি। সাবাশ! বাংলাদেশ নারী ক্রিকেট দল। আবারো অভিনন্দন।

x