বাংলাদেশের ধনী লোকেরা গরীবের শ্রমের মর্যাদার প্রতি সম্মান দেয় না কেন?

মঙ্গলবার , ২ জুলাই, ২০১৯ at ৫:৫৯ পূর্বাহ্ণ
22

বেঁচে থাকার জন্য প্রতিটি মানুষকে জীবনযুদ্ধে নামতে হয় এবং জীবনযুদ্ধে জয়ী হওয়ার প্রধান পথ হচ্ছে পরিশ্রম। কর্মই জীবন। জীবনের লক্ষ্য অর্জনের জন্যে মানুষকে কর্মমুখর জীবন কাটাতে হয়। মানুষ শ্রম দেয় বলে সভ্যতার চাকা ঘোরে। মাথার ঘাম পায়ে ফেলে তবে সুখের মুখ দেখতে হয়। সামাজিক বৈষম্যই বিশ্বে অশান্তির একটি বিশেষ কারণ। মানুষে মানুষে হাজারো ব্যবধান সৃষ্টি হয়েছে শ্রমের পরিপ্রেক্ষিতে। সবাই এক ধরনের শ্রম দেয় না বলে তাদের মর্যাদায় রয়েছে ভিন্নতা। যারা তথাকথিত নিচু স্তরে কাজ করে তাদের মর্যাদা নেই। তারা সমাজের দৃষ্টিতে অবহেলিত। শ্রমের মর্যাদা স্বীকৃত না হওয়ার ফলেই এই জটিল পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে। কৃষক, শ্রমিক, কামার, কুমার, জেলে, মুচি, মজুর এ ধরনের পেশার লোকেরা যদি কর্মবিমুখ হয়ে পড়ে তবে জাতি মুখ থুবড়ে পড়বে। বিশেষ করে বাংলাদেশের ধনী লোকেরা গরীবের শ্রমের প্রতি অসম্মান করে। শ্রমের সঠিক ন্যায্য মূল্য দিতে চায় না। শুধু ১২ ঘন্টা পরিশ্রম কর। পরিশ্রম ছাড়া আর কিছুই জুটবে না। বাংলাদেশের পরিশ্রমের মাথাপিছু আয় ১ হাজার ৭০০ ডলার। দেখা যায়,কিছু জুটে না। শুধু গালি ছাড়া। ৯ টা থেকে যদি ৫ মিনিট দেরিতে আস তাহলে এক পায়ে দাড়িয়ে থাকো। অবশেষে বলব শ্রমের মর্যাদা দিন। সফল হউক দেশের উন্নয়ন।
রাজীব হোড় (রাজু), যুধিষ্টির মহাজন বাড়ী দক্ষিণ কাট্টলী,
চট্টগ্রাম-৪২১৯

x