বর্তমানের শিশুরাই ভবিষ্যতে সুন্দর সমাজ ও রাষ্ট্র বিনির্মাণ করবে

হ্যালোর শিশু সাংবাদিকদের কর্মশালার উদ্বোধনীতে ড. অনুপম সেন

বৃহস্পতিবার , ২৬ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ at ৭:৪৩ অপরাহ্ণ
34

বর্তমানের শিশুরাই ভবিষ্যতে সাংবাদিকতাসহ জগতের সব ক্ষেত্রে ভূমিকা রেখে সুন্দর সমাজ ও রাষ্ট্র বিনির্মাণ করবে বলে মন্তব্য করেছেন একুশে পদকপ্রাপ্ত সমাজবিজ্ঞানী ড. অনুপম সেন।

চট্টগ্রামে হ্যালোর শিশু সাংবাদিকদের দুই দিনের কর্মশালার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ মন্তব্য করেন।

প্রিমিয়ার বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য ড. অনুপম সেন বলেন, ‘আগে সংবাদপত্র শুধু সংবাদ দিত। আজকের সংবাদপত্র ভিন্ন কিছু। মানুষের মনের জগতের সব কিছু এবং সৃষ্টিশীলতার সবকিছু প্রকাশের স্থান এখন সংবাদপত্র। আজ যারা এখানে শিশু সাংবাদিকতার প্রশিক্ষণ নিচ্ছো আমি চাই তোমরা বড় হয়ে অনেক বড় সাংবাদিক হও, কবি হও, বৈজ্ঞানিক হও এবং ব্যবসা উদ্যোক্তা হও। জগতের বৃহৎ কর্মযজ্ঞে শামিল হও। বর্তমানের শিশুরাই ভবিষ্যতে সাংবাদিকতাসহ জগতের সব ক্ষেত্রে ভূমিকা রেখে সুন্দর সমাজ ও রাষ্ট্র বিনির্মাণ করবে।’

ড. অনুপম সেন বলেন, ‘একসময় আমরা ইউরোপিয়ানদের চেয়ে এগিয়ে ছিলাম। পাশ্চাত্যের এগিয়ে যাওয়ার পেছনে বড় কারণ ছাপাখানা আবিষ্কার। তারপর বই বের হলো। ত্রয়োদশ থেকে ষোড়শ শতকে ইউরোপে বড় বড় বিশ্ববিদ্যালয় হলো। সেখানে লেখাপড়া শুরু হলো চমৎকারভাবে। ছাপার অক্ষর আবিষ্কারের পর থেকে ধীরে ধীরে সংবাদপত্র বের হতে শুরু হলো। কত রকমের যে সংবাদপত্র হতে পারে।’

তিনি বলেন, ‘শুধু যেকোনো ঘটনাই সংবাদ নয়। এই যে সৌরজগত বিশাল ও আশ্চর্যজনক। বিজ্ঞানের কত বিচিত্র ও ব্যাপক জগত, এসবই সংবাদ।’

কর্মশালার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের বিশেষ অতিথি চট্টগ্রাম প্রেসক্লাবের সভাপতি আলী আব্বাস বলেন, ‘ভবিষ্যতে তোমরাই নেতৃত্বে আসবে। তোমরাই সমাজটা তৈরি করবে। গণতন্ত্র বিনির্মাণে ভূমিকা রাখবে।’

চট্টগ্রাম সাংবাদিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক হাসান ফেরদৌস বলেন, ‘তথ্যপ্রযুক্তির কারণে সাংবাদিকতায় এখন অনেক পরিবর্তন হয়েছে। চারপাশে নিত্যদিন ঘটে যাওয়া ব্যতিক্রমী ঘটনাই সংবাদ। সংবাদের ভাষা হতে হবে সাবলীল। তথ্য প্রকাশে অবশ্যই দায়িত্বশীল হতে হবে।’

তিনি বলেন, ‘আগামীর বিভেদহীন ও হিংসাহীন সমাজ এবং আধুনিক বাংলাদেশ গড়তে হলে ভালো সাংবাদিক হতে হবে। সমাজের অসঙ্গতি ভালোভাবে তুলে ধরতে হবে।’

প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের আলোকচিত্রী সুমন দাশ বলেন, ‘শিশুদের মধ্যে প্রতিভা লুক্কায়িত আছে। তাদের সুকুমার বৃত্তির চর্চার সুযোগ করে দেয়ায় বিডিনিউজকে ধন্যবাদ।’

কর্মশালার উদ্বোধনী অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমের চট্টগ্রাম ব্যুরোর ইনচার্জ মিন্টু চৌধুরী।

কর্মশালার প্রথম দিনে বিভিন্ন পর্ব পরিচালনা করেন বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমের প্রধান অর্থনৈতিক প্রতিবেদক আবদুর রহিম হারমাছি।

কর্মশালায় ভিডিওস্টোরি তৈরি বিষয়ক পর্ব পরিচালনা করেন একাত্তর টিভির ভিডিও জার্নালিস্ট রাজীব বড়ুয়া।

‘বলব আমাদের কথা’ শিরোনামে হ্যালো বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম ও ইউনিসেফ যৌথভাবে এ কর্মশালার আয়োজন করেছে।

নবাগতদের স্বাগত জানাতে ৩৩ জেলায় শুরু হয়েছে বিশেষ কর্মসূচি। তবে দেশের যেকোনো শিশু যথাযথ প্রক্রিয়ায় নিবন্ধিত হয়েছে হ্যালোর শিশু সাংবাদিকদের দলে।

হ্যালোর ওয়েবসাইটে (https://reg.hello.bdnews24.com) একটি ফরম পূরণ করে নিবন্ধনের আবেদন করা যাবে সহজেই। বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমের ওয়েবসাইট (https://bangla.bdnews24.com) থেকেও যাওয়া যাবে হ্যালোর ওয়েবসাইটে।

শিশুদের নিয়ে শিশুদের জন্য বিশেষায়িত ওয়েবসাইট হ্যালোর (https://hello.bdnews24.com) যাত্রা শুরু হয় ২০১৩ সালের ৩১ মার্চ। হ্যালোর জন্য সংবাদ সংগ্রহ থেকে পরিবেশন পর্যন্ত সব কাজেই যুক্ত রয়েছে শিশু ও কিশোর সাংবাদিকরা।

সংবাদভিত্তিক এই ওয়েবসাইটটি পরিচালনা করছে দেশের প্রথম ইন্টারনেট সংবাদপত্র বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম। জাতিসংঘ শিশু তহবিল ইউনিসেফ এবারও এ আয়োজনের অংশীদার।

x