বন্ধ হচ্ছে এক্সেস ও পোর্ট কানেকটিং রোডের একাংশ

দ্রুত কাজ শেষ করার সুবিধার্থে এ সিদ্ধান্ত

আজাদী প্রতিবেদন

বৃহস্পতিবার , ১৪ জুন, ২০১৮ at ৪:৪৭ পূর্বাহ্ণ
707

দ্রুত সময়ের মধ্যে সংস্কার কাজ শেষ করার সুবিধার্থে আগ্রাবাদ এক্সেস রোড এবং পোর্ট কানেকটিং রোডের একাংশ বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নিতে যাচ্ছে চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন। তবে এর আগে জনদুর্ভোগের বিষয়টি বিবেচনায় নিয়ে করণীয় নির্ধারণে পুলিশ প্রশাসন এবং পরিবহন নেতাদের সঙ্গে বৈঠক করা হবে। খুব শীঘ্রই এ বৈঠক আয়োজন করা হবে। সিটি মেয়র আ..ম নাছির উদ্দীন বিষয়টি দৈনিক আজাদীকে নিশ্চিত করেছেন। এদিকে গতকাল সড়ক দুটি পরিদর্শন করেছেন সিটি মেয়র। এসময় তিনি বলেন, চট্টগ্রাম বন্দরের পণ্য পরিবহনে নিমতলা পোর্ট কানেকটিং রোড এবং আগ্রাবাদ এক্সেস রোড গুরুত্বপূর্ণ। এই সড়ক দিয়েই বন্দর থেকে পণ্য বা কন্টেইনারবাহী পরিবহন ঢাকাসহ দেশের নানাপ্রান্তে যাতায়াত করে। দীর্ঘদিন ধরে এই সড়কের বেহাল অবস্থার কারণে বন্দরের পণ্য পরিবহনের ক্ষেত্রে সংশ্লিষ্টদেরকে হয়রানি ও দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। ছয়লেন বিশিষ্ট পোর্ট কানেকটিং রোড এবং আগ্রাবাদ এক্সেস রোড উন্নয়ন কাজ বাস্তবায়িত হলে বন্দরের পণ্য পরিবহনে গতিশীলতা ফিরে আসবে। তিনি উন্নয়ন কাজ চলাকালীন সময়ে সড়কগুলোতে অবৈধ পার্কিং এর কারণে যানজট সৃষ্টির জন্য োভ প্রকাশ করেন। এই প্রসঙ্গে তিনি ট্রাফিক প্রশাসনকে যথাযথ দায়িত্ব পালনের আহ্বান জানান। উল্লেখ্য, পোর্ট কানেকটিং রোড সংস্কার প্রকল্পের আওতায় দুই পর্যায়ে ১০০ কোটি টাকা ব্যয়ে নিমতলা পোর্ট কানেকটিং থেকে বড়পুল, বড়পুল থেকে নয়াবাজার এবং আগ্রাবাদ বাদামতলী থেকে বড়পুল নয়াবাজার পর্যন্ত ৫০ কোটি টাকা ব্যয়ে এ উন্নয়ন কাজ বাস্তবায়িত হচ্ছে। একই প্রকল্পের আওতায় রাস্তার দু’পাশে আরসিসি ড্রেন ও ফুটপাত নির্মাণ, রাস্তার মাঝখানে ৮ ফুট দৈর্ঘ্য বিশিষ্ট মিডিয়ান নির্মাণ এবং এলইডি সড়কবাতির ব্যবস্থা থাকবে। ছয়লেনে ১২০ ফুট প্রশস্থের পোর্ট কানেকটিং রোডের মোট দৈর্ঘ্য ২ কি.মি।

অপরদিকে একই প্রকল্পে আগ্রাবাদ এক্সেস রোডেও ২ কি.মি পর্যন্ত উন্নয়ন কাজ বাস্তবায়ন করা হচ্ছে। জাইকার অর্থায়নে এই উন্নয়ন প্রকল্পের কাজ গত জানুয়ারি থেকে শুরু হয়। এই প্রকল্পের মেয়াদ শেষ হবে ১৯ মে ২০১৯ সালে।

গতকাল এক্সেস রোড ও পিসি রোর্ড পরিদর্শনকালে মেয়রের সাথে চসিক কাউন্সিলর এইচ এম সোহেল, প্রধান প্রকৌশলী লে. কর্নেল মহিউদ্দিন আহমদ, অতিরিক্ত প্রধান প্রকৌশলী রফিকুল ইসলাম, তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী আবু ছালেহ, নির্বাহী প্রকৌশলী আবু সাদাত মো. তৈয়ব, বিল্পব দাশ, সহকারী প্রকৌশলী মজিবুল হায়দার ও স্থানীয় গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন।

x