‘বঙ্গবন্ধু নিপীড়িত মানুষের মুক্তির দিশারী’

জাতীয় শোক দিবস পালন, নানা কর্মসূচি

আজাদী ডেস্ক

শুক্রবার , ১৬ আগস্ট, ২০১৯ at ৫:৪৯ পূর্বাহ্ণ
28

জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৪তম শাহাদাৎ বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবসে বিভিন্ন সংগঠন ও শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের পক্ষ থেকে বিভিন্ন কর্মসূচি পালন করা হয়েছে। কর্মসূচির মধ্যে ছিল জাতীয় পতাকা অর্ধনমিত রাখা, কালো পতাকা উত্তোলন ও কালো ব্যাজ ধারণ, বঙ্গবন্ধুর ম্যুরালে শ্রদ্ধাঞ্জলি নিবেদন, খতমে কোরান ও দোয়া মাহফিল।
এ উপলক্ষে আলোচনা সভায় বক্তারা বলেন, বাংলার অবিসংবাদিত নেতা হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান তাঁর জীবনের দীর্ঘ সংগ্রামের পথ পাড়ি দিয়ে অধিকার বঞ্চিত বাংলার গণমানুষকে শোষণ-নির্যাতন থেকে মুক্ত করে প্রতিষ্ঠা করেছেন স্বাধীন-সার্বভৌম বাংলাদেশ। বঙ্গবন্ধু বিশ্বের নিপীড়িত-নির্যাতিত মুক্তিকামী গণমানুষের মুক্তির দিশারী। তাঁকে নিয়ে আরো বৃহৎ পরিসরে গবেষণা প্রয়োজন। এর ফলে নতুন প্রজন্ম বঙ্গবন্ধুর আদর্শে অনুপ্রাণিত হওয়ার সুযোগ পাবে। বক্তারা বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা বিনির্মাণে সবাইকে একযোগে কাজ করার আহ্বান জানান।
চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য (দায়িত্বপ্রাপ্ত) প্রফেসর ড. শিরীণ আখতার বলেছেন, বাংলার অবিসংবাদিত নেতা হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান তাঁর জীবনের দীর্ঘ সংগ্রামের পথ পাড়ি দিয়ে অধিকার বঞ্চিত বাংলার গণমানুষকে শোষণ-নির্যাতন থেকে মুক্ত করে প্রতিষ্ঠা করেছেন স্বাধীন-সার্বভৌম জাতি-রাষ্ট্র বাংলাদেশ। বঙ্গবন্ধু বিশ্বের নিপীড়িত-নির্যাতিত মুক্তিকামী গণমানুষের মুক্তির দিশারী।
জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর ৪৪তম শাহাদাৎ বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় আয়োজিত উপাচার্য দপ্তরের সম্মেলন কক্ষে সকাল ৯টায় অনুষ্ঠিত বঙ্গবন্ধুর জীবন ও কীর্তির ওপর ‘শোকাবহ ১৫ আগস্ট’ শীর্ষক আলোচনা সভায় সভাপতির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। সভায় বক্তব্য রাখেন মাওলানা ভাসানী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ড. মো. আলাউদ্দিন, চবি শিক্ষক সমিতির সভাপতি প্রফেসর মো. জাকির হোসেন ও সাধারণ সম্পাদক প্রফেসর ড. অঞ্জন কুমার চৌধুরী, সিনেট সদস্য প্রফেসর ড. শংকর লাল সাহা, সিন্ডিকেট সদস্য সেতু রঞ্জন বিশ্বাস, চবি কলা ও মানববিদ্যা অনুষদের ডিন প্রফেসর ড. মো. সেকান্দর চৌধুরী, মাস্টারদা সূর্যসেন হলের প্রভোস্ট প্রফেসর ড. খালেদ মিসবাহুজ্জামান, উদ্ভিদ বিজ্ঞান বিভাগের সভাপতি প্রফেসর ড. মো. মাহবুবুর রহমান, প্রক্টর (ভারপ্রাপ্ত) প্রণব মিত্র চৌধুরী, বঙ্গবন্ধু পরিষদ চবির সাধারণ সম্পাদক মশিবুর রহমান, চবি অফিসার সমিতির সভাপতি এ কে এম মাহফুজুল হক, চবি কর্মচারী সমিতির সভাপতি মো. আনোয়ার হোসেন ও কর্মচারী ইউনিয়নের সভাপতি মো. আবদুল হাই। অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন চবি রেজিস্ট্রার (ভারপ্রাপ্ত) কে এম নুর আহমেদ। বিশেষ মোনাজাত পরিচালনা করেন হাফেজ আবু দাউদ মুহাম্মদ মামুন। জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে সকালে বিশ্ববিদ্যালয়ের ভবনসমূহে জাতীয় পতাকা অর্ধনমিত ও কালো পতাকা উত্তোলন করা হয়।
ইউএসটিসি

জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৪তম শাহাদাত বার্ষিকী উপলক্ষে বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় চট্টগ্রাম (ইউএসটিসি), ইনস্টিটিউট অব এপ্লাইড হেলথ সায়েন্স, বঙ্গবন্ধু মেমোরিয়াল হাসপাতাল ও আনোয়ারা নুর নার্সিং ইনস্টিটিউট গতকাল নানা কর্মসূচি পালন করেছে। সকালে ক্যাম্পাসে জাতীয় পতাকা অর্ধনমিতকরণ, বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পণ এবং সকাল ১০টায় আলোচনা সভা বিশ্ববিদ্যালয়ের মওলানা ভাসানী অডিটোরিয়ামে অনুষ্ঠিত হয়। এতে সভাপতিত্ব করেন ইউএসটিসির ভারপ্রাপ্ত উপাচার্য প্রফেসর ড. নুরুল আবছার। প্রধান অতিথি ছিলেন আইএএইচএসের অধ্যক্ষ প্রফেসর ডা. এ এম এম এহতেশামুল হক। আইকিউএসির অতিরিক্ত পরিচালক ডা. শুভ্র প্রকাশ দত্তের সঞ্চালনায় এতে বক্তব্য রাখেন সার্জারি বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ডা. এম বদিউল আলম, মেডিসিন বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ডা. মনির আহছান খান, কমিউনিটি মেডিসিন বিভাগের প্রধান ডা. প্রণয় কুমার মজুমদার, ফার্মাকোলজি বিভাগের প্রধান ডা. আশিষ কুমার মজুমদার, ফিজিওলজি বিভাগের প্রধান ডা. সাবিনা ইয়াছমিন, ইংরেজি ভাষা ও সাহিত্য বিভাগের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান মোহাম্মদ আবদুর রশিদ, ইউএসটিসির ভারপ্রাপ্ত রেজিস্ট্রার দিলীপ কুমার বড়ুয়া, এএনএনআইয়ের প্রিন্সিপাল মুনিরা খানম ও ইউএসটিসির একাডেমিক বিভাগের জুনিয়র অফিসার সুলতান হোসাইন। মোনাজাত পরিচালনা করেন মাওলানা মোহাম্মদ সোলায়মান। বক্তারা বলেন, দেশের স্বাধীনতা সংগ্রামে এবং স্বাধীন, সার্বভৌম সোনার বাংলাদেশ গড়ে তোলার ক্ষেত্রে বঙ্গবন্ধুর অবদান অবিস্মরণীয়।
ভেটেরিনারি বিশ্ববিদ্যালয়

চট্টগ্রাম ভেটেরিনারি ও এনিম্যাল সাইন্সেস বিশ্ববিদ্যালয়ে যথাযোগ্য মর্যাদায় জাতীয় শোক দিবস পালিত হয়েছে। বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ড. গৌতম বুদ্ধ দাশ জাতীয় পতাকা এবং বাংলাদেশ বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের (ইউজিসি) সদস্য প্রফেসর ড. মো. সাজ্জাদ হোসেন কালো পতাকা উত্তোলন করে দিনের কর্র্মসূচি শুরু করেন। এরপর উপাচার্য ও ইউজিসি সদস্যের নেতৃত্বে সিভাসু ক্যাম্পাসে স্থাপিত জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ম্যুরালে বিশ্ববিদ্যালয়ের পক্ষ থেকে শ্রদ্ধাঞ্জলি নিবেদন করা হয়। পরে শিক্ষক সমিতি, অফিসার সমিতি, প্রগতিশীল শিক্ষক ফোরাম, আবাসিক হলসমূহ, কর্মচারী ইউনিয়ন, প্রগতিশীল কর্মচারী ফোরামের পক্ষ থেকে শ্রদ্ধাঞ্জলি নিবেদন করা হয়। এসময় উপস্থিত ছিলেন ফুড সায়েন্স অ্যান্ড টেকনোলজি অনুষদের ডিন প্রফেসর ড. জন্নাতারা খাতুন, রেজিস্ট্রার মীর্জা ফারুক ইমাম, প্রফেসর ড. এ কে এম সাইফুদ্দীন, প্রফেসর ড. পরিতোষ কুমার বিশ্বাস, প্রফেসর ড. মো. মাসুদুজ্জামান, প্রফেসর ড. মো. কবিরুল ইসলাম খান, প্রফেসর ড. মো. রায়হান ফারুক, প্রফেসর মো. আ. হালিম, প্রফেসর গৌতম কুমার দেবনাথ, প্রফেসর ড. ভজন চন্দ্র দাস, প্রফেসর ড. মো. মেজবাহ উদ্দিন, প্রফেসর ড. মনিরুল ইসলাম, মো. আবুল কালাম ও ডা. কাজী রোখসানা সুলতানা। উপাচার্য প্রফেসর ড. গৌতম বুদ্ধ দাশ বলেন, বঙ্গবন্ধুকন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশ বিশ্ব দরবারে সম্মানজনক আসনে আসীন হয়েছে। বর্তমানে দেশের উন্নয়নের যে ধারা অব্যাহত রয়েছে তা বাস্তবায়িত হলে বঙ্গবন্ধুর স্বপ্ন বাস্তবায়িত হবে। ইউজিসির সদস্য প্রফেসর ড. মো. সাজ্জাদ হোসেন বলেন, বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে আরো বৃহৎ পরিসরে গবেষণার প্রয়োজন রয়েছে।
চুয়েট

চট্টগ্রাম প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে (চুয়েট) বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৪তম শাহাদাত বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে শ্রদ্ধা নিবেদন করেছে চুয়েট পরিবার। গতকাল শোক দিবসের প্রথম প্রহরে সকাল ৯টায় চুয়েট স্বাধীনতা চত্বর সংলগ্ন জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন ভাইস চ্যান্সেলর অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ রফিকুল আলম। এরপর পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন ডিনবৃন্দ, শিক্ষক সমিতি, কর্মকর্তা সমিতি, কর্মচারী সমিতি ও বঙ্গবন্ধু পরিষদ। পরে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসনিক ভবনের সামনে জাতীয় পতাকা ও শোকের প্রতীক কালো পতাকা উত্তোলন করা হয়। বিকেলে চুয়েট কেন্দ্রীয় মসজিদে বঙ্গবন্ধু এবং ১৫ আগস্ট নিহত সকলের বিদেহী আত্মার মাগফেরাত কামনায় বিশেষ দোয়া ও মোনাজাত করা হয়।
আইআইইউসি

আন্তর্জাতিক ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় চট্টগ্রামের ভাইস চ্যান্সেলর প্রফেসর কে এম গোলাম মহিউদ্দিন বলেছেন, দুর্নীতিমুক্ত দেশ গঠনে বঙ্গবন্ধুর সাহসী ভূমিকা ছিল। অংশীদারীত্বের গণতন্ত্রে বিশ্বাসী নেতা ছিলেন তিনি।
বঙ্গবন্ধুর শাহাদাত বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে গতকাল আইআইইউসি আয়োজিত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি একথা বলেন। আইআইইউসির প্রো ভাইস চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. মোহাম্মদ আলী আজাদীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, আইআইইউসির কলা ও মানবিক অনুষদের ডিন ড. মোহাম্মদ রিয়াজ মাহমুদ, আবাসিক হলের প্রভোস্ট মো. সিরাজুল ইসলাম, স্টাফ ডেভলপমেন্ট অ্যান্ড স্টুডেন্ট ওয়েলফেয়ার ডিভিশনের অতিরিক্ত পরিচালক মুহাম্মদ মাহফুজুর রহমান ও অ্যাসিস্ট্যান্ট প্রক্টর মোহাম্মদ নিজামউদ্দিন। এতে স্বাগত বক্তব্য রাখেন, স্টুডেন্ট অ্যাফেয়ার্স ডিভিশনের অতিরিক্ত পরিচালক মোহাম্মদ মামুনুর রশীদ এবং ছাত্রদের পক্ষে শামসুত তালেবিন নবীন। অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন স্টুডেন্ট অ্যাফেয়ার্স ডিভিশনের অতিরিক্ত পরিচালক কবি চৌধুরী গোলাম মাওলা। বঙ্গবন্ধুকে নিবেদিত কবিতা আবৃত্তি করেন আইআইইউসির সহকারী পরিচালক জনসংযোগ আবৃত্তিশিল্পী মোসতাক খন্দকার।
সিডিএ গার্লস স্কুল অ্যান্ড কলেজ

জাতীয় শোক দিবসে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে সিডিএ গার্লস স্কুল অ্যান্ড কলেজের পক্ষ থেকে পুষ্পমাল্য অর্পণ, রচনা প্রতিযোগিতা, চিত্রাঙ্কন ও কবিতা আবৃত্তির আয়োজন করা হয়। এতে বক্তব্য রাখেন প্রধান শিক্ষক মো. গাজীউল হক, সহকারী প্রধান শিক্ষক ফেরদৌসী বেগম ও সহকারী শিক্ষক কানন কুমার বৈদ্য।
সন্ধানী

প্রতি বছরের মত এই বছর ও সন্ধানী চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ ইউনিট জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে নানা কর্মসূচির আয়োজন করে। কর্মসূচির অংশ হিসেবে বিভিন্ন জায়গায় স্বেচ্ছায় রক্তদান ও মরণোত্তর চক্ষুদানে উদ্বুদ্ধকরণ প্রোগ্রামের আয়োজন করা হয়। মেরিন ফিশারিজের উদ্যোগে আয়োজিত রক্তদান কর্মসূচিতে ৩৩ ব্যাগ রক্ত সংগৃহীত হয়। তাছাড়া বাঘাইছড়ি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেঙের উদ্যোগে, জওঝঝঐঙ-কঙঝঊও-কঅও মেডিক্যাল সার্ভিস ও সন্ধানী চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ ইউনিটের সহায়তায় খাগড়াছড়িতে স্বেচ্ছায় রক্তদান ও ব্লাড গ্রুপিং প্রোগ্রামের আয়োজন করা হয়। চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ রক্ত পরিসঞ্চালন বিভাগের উদ্যোগে ও সন্ধানী চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ ইউনিটের সহায়তায় স্বেচ্ছায় রক্তদান কর্মসূচি অনুষ্ঠিত হয়। এতে চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের পরিচালক, উপ পরিচালকসহ আয়োজকবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

চট্টগ্রাম চক্ষু হাসপাতাল

জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে ইনস্টিটিউট অব কমিউনিটি অফথালমোলোজির (আইসিও) উদ্যোগে চট্টগ্রাম চক্ষু হাসপাতাল ও প্রশিক্ষণ কেন্দ্র ক্যাম্পাসে বিভিন্ন কর্মসূচি পালিত হয়েছে।
এ উপলক্ষে আয়োজিত আলোচনা সভায় সভাপতিত্ব করেন আইসিওর পরিচালক ডা. খুরশীদ আলম। আইসিওর একাডেমিক কো-অর্ডিনেটর অধ্যাপক ডা. মনিরুজ্জামান ওসমানীর উপস্থাপনায় এতে বক্তব্য রাখেন চট্টগ্রাম চক্ষু হাসপাতালের মেডিকেল ডিরেক্টর ডা. মো. কামরুল ইসলাম, আইসিওর সহযোগী অধ্যাপক ডা. জেসমিন আহমেদ, হাসপাতালের ডেপুটি ম্যানেজার (এডমিন) মো. রোকনুন চৌধুরী, ডা. সুজিত কুমার বিশ্বাস, ডা. সোমা রানী রায়, জুনিয়র কনসালটেন্ট ডা. তনিমা রায়, হাসপাতালের সহযোগী ব্যবস্থাপক (প্রশাসন) সাজিউল ইসলাম, হাসপাতালের ডেপুটি ম্যানেজার (ইন্টারনাল অডিট) রুপায়ন বড়ুয়া, আইসিওর প্রভাষক জুয়েল দাশগুপ্ত, হিসাব কর্মকর্তা মো. জসিম উদ্দিন, জুনিয়র প্রশাসনিক কর্মকর্তা মো. সাইফুর রহমান, হাসপাতালের সেফটি অ্যান্ড সিকিউরিটির এসিসটেন্ট অফিসার মো. ফয়সাল উদ্দিন, শিক্ষার্থী খালিদ আল রাকিব প্রমুখ।

x