প্রেসিডেন্টের বিমান বিক্রির টাকা দিয়ে বন্ধ অবৈধ অভিবাসন

শুক্রবার , ১৪ জুন, ২০১৯ at ৫:২৯ পূর্বাহ্ণ
29

মেক্সিকোর প্রেসিডেন্টের ব্যবহারের জন্য বছর তিনেক আগে কেনা উড়োজাহাজ বিক্রি করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। অনুমান করতে পারেন, বিমান বিক্রির টাকা কী কাজে লাগে লাগানো হবে?
দেশটির প্রধান সমস্যা অবৈধ অভিবাসন। আর সেই কাজে ব্যবহার করা হবে এই অর্থ। নির্বাচনী প্রচারণা চালানোর সময় বামপন্থী লোপেজ প্রেসিডেন্সিয়াল জেট বিক্রি করে দরিদ্র মানুষের কাজে ব্যয় করার প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন। ২০১৬ সালে বোয়িং ৭৮৭ ড্রিমলাইনার প্রায় ২২ কোটি মার্কিন ডলার দিয়ে কেনা হয়েছিল।
মেক্সিকোতে অ্যামলো নামে পরিচিত প্রেসিডেন্ট প্রচারণার সময় সমর্থকদের বলেছিলেন, প্রয়োজনে তিনি বাণিজ্যিক বিমানে চড়বেন। নিজের প্রতিশ্রুতি রাখতে এবার তা বাস্তবে রূপ দিতে চলেছেন অ্যামলো। খবর বিবিসির।
প্রেসিডেন্টের জেটটি এখন ক্যালিফোর্নিয়ার এক ওয়্যারহাউজে রয়েছে। তবে মেঙিকো এই একটি বিমানই বিক্রি করছে না। সরকারি মালিকানাধীন ৬০টি বিমান এবং ৭০টি হেলিকপ্টার বিক্রি করছে দেশটির সরকার।
মেক্সি কোর প্রেসিডেন্ট আন্দ্রেস ম্যানুয়েল লোপেজ ওব্রাডর এই সিদ্ধান্ত নিলেন এমন এক সময়ে, যখন মাত্র কয়েকদিন আগে যুক্তরাষ্ট্র সীমান্তে শরণার্থী স্রোত ঠেকানোর জন্য নতুন এক চুক্তি করেছে দেশটি। ওই চুক্তির মাধ্যমে মেঙিকো অবৈধ অভিবাসন বন্ধে কঠোর পদক্ষেপ নেবে।

x