প্রেমিকার সঙ্গে প্রথম দেখা করতে গিয়ে যা ঘটল

আজাদী প্রতিবেদন

বুধবার , ৯ অক্টোবর, ২০১৯ at ৬:৪৯ পূর্বাহ্ণ
868

নগরীর আগ্রাবাদ জাম্বুরি ফিল্ডে প্রেমিকার সঙ্গে দেখা করতে এসে অপহরণের শিকার হন মাঈনুদ্দিন মিঠু নামে এক ব্যবসায়ী। অপহরণের কিছুক্ষণের মধ্যে পুলিশ উদ্ধার করেন তাকে। আটক করা হয় অপহরণের সঙ্গে জড়িত পাঁচজনকে। এরপর জানা গেল, কথিত প্রেমিকাও অপহরণকারী চক্রের সদস্য। প্রেমের ফাঁদে ফেলেই অপহরণের পরিকল্পনা করে তারা।
ধৃত অপহরণকারীরা হচ্ছেন, এমইএস কলেজের ছাত্র আবু বকর সিদ্দিক পাভেল, পোর্ট সিটি বিশ্ববিদ্যালয়ের মো. নোমান, রাজমিস্ত্রী নুরুদ্দিন, সিএনজি চালক মো. হোসেন এবং শাহীন আকতার মোনা; যিনি এবার চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি পরীক্ষায় অংশ নিবেন। এছাড়া পালিয়ে গেছেন কথিত প্রেমিকা রাবেয়া চৌধুরী মুন্নি এবং মূল হোতা ইমন। এদিকে এ ঘটনায় মাঈনুদ্দিন মিঠু গতরাতে ডবলমুরিং থানায় একটি অপহরণ মামলা করেছেন। মিঠু হালিশহরের এ ব্লকের বাসিন্দা।
ডবলমুরিং থানা সূত্রে জানা গেছে, মাত্র কয়েকদিন আগে রাবেয়া চৌধুরী মুন্নি নামে এক তরুণীর সঙ্গে প্রেমের সম্পর্কে জড়ান ব্যবসায়ী মাঈনুদ্দিন মিঠু। গতকাল মঙ্গলবার বিকেলে তারা প্রথমবারের মত নগরীর আগ্রাবাদস্থ জাম্বুরি ফিল্ডে দেখা করতে আসেন। সেখান থেকে ফেরার সময় বাংলাদেশ ব্যাংক কলোনির সামনে তাদের পথরোধ করে একদল যুবক। এসময় পথরোধকারীরা মাঈনুদ্দিন মিঠুকে আঘাত করে এবং একপর্যায়ে তাকে সিএনজিতে উঠিয়ে নিয়ে পালিয়ে যায়। এসময় ওই পথ দিয়ে যাচ্ছিলেন সিএমপির ডবলমুরিং জোনের সহকারী কমিশনার আশিকুর রহমান। তিনি ওই সিএনজিকে ধাওয়া দিয়ে চৌমুহনী মোড়ে এসে ধরতে সমর্থ হন। এরপর বেরিয়ে আসে চাঞ্চল্যকর তথ্য।
সহকারী কমিশনার আশিকুর রহমান দৈনিক আজাদীকে বলেন, ইমনই মূল পরিকল্পনাকারী। মোনার সঙ্গে তার ভাল সখ্য রয়েছে। সে মোনাকে বলেছিল, মিঠুর সঙ্গে প্রেমের অভিনয় করতে। কিন্তু মোনা রাজি হয়নি। তবে মোনা তার বান্ধবী মুন্নিকে রাজি করায় প্রেমের অভিনয় করতে। পরিকল্পনা অনুযায়ী, মুন্নি মিঠুকে দেখা করার জন্য আসতে বলেন এবং আগে থেকে অপেক্ষায় থাকা অপহরণকারীরা মিঠুকে তুলে নিয়ে যায়।
এ পুলিশ কর্মকর্তা বলেন, তারা খুলশীতে বসে অপহণের পরিকল্পনা করে এবং ব্যবসায়ী মাঈনুদ্দিন মিঠুকে তুলে সেখানেই নিয়ে যাওয়ার কথা ছিল তাদের।

x