প্রস্তুত চট্টগ্রাম আঞ্চলিক নির্বাচন অফিস

শুকলাল দাশ

শুক্রবার , ৯ নভেম্বর, ২০১৮ at ৬:১২ পূর্বাহ্ণ
91

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করা হয়েছে। ঘোষিত তফসিল অনুযায়ী আগামী ২৩ ডিসেম্বর একাদশ জাতীয় সংসদের ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে। গতকাল বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা ৭টায় প্রধান নির্বাচন কমিশনার কে এম নূরুল হুদা দেশের একাদশ জাতীয় সংসদের তফসিল ঘোষণা করেন।
তফসিল ঘোষণার পরপরই প্রার্থীদের মাঝে মনোনয়ন ফরম বিতরণসহ সুষ্ঠু ভোট গ্রহণের জন্য প্রস্তুতি নিয়েছে চট্টগ্রাম আঞ্চলিক ও জেলা নির্বাচন অফিস। এদিকে তফসিল ঘোষণার পর চট্টগ্রামে সংসদীয় আসনগুলোতে ক্ষমতাসীন দলের প্রার্থীসহ অন্যান্য রাজনৈতিক দলের সম্ভাব্য প্রার্থী ও তাদের কর্মী সমর্থকদের মধ্যে ব্যাপক উৎসাহ উদ্দীপনা লক্ষ্য করা যাচ্ছে। কে আর আগে মনোনয়ন নিবেন এই নিয়েও শুরু হয়েছে ব্যাপক তোড়জোর। নির্বাচন কমিশনের তফসিল অনুযায়ী প্রার্থীদের মনোনয়ন ফরম নেয়া ও জমা দেয়ার জন্য সময় ১১দিন।
এই ব্যাপারে চট্টগ্রাম জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মোঃ মুনীর হোসাইন খান আজাদীকে গতকাল রাত সাড়ে ৯টায় জানান, তফসিল ঘোষণা হয়েছে। নির্বাচন কমিশন সচিবালয় থেকে মনোনয়ন ফরম চলে আসছে। আগামীকাল (আজ) শুক্রবার হলেও নির্বাচন অফিস খোলা থাকবে। তবে এখনো রিটার্নিং অফিসার নিয়োগ হয়নি। রাতের মধ্যেই হয়তো এই ব্যাপারে নির্দেশনা আসবে। মনোনয়ন ফরম নির্বাচন অফিস, জেলা প্রশাসক ও বিভাগীয় কমিশনার অফিসে পাওয়া যাবে।
ঘোষিত তফসিল অনুযায়ী এই নির্বাচনে মনোনয়নপত্র জমা দেওয়া যাবে ১৯ নভেম্বর পর্যন্ত। মনোনয়নপত্র বাছাই ২২ নভেম্বর। মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের শেষ তারিখ ২৯ নভেম্বর। আগামী ২৩ ডিসেম্বর একাদশ জাতীয় সংসদের ভোট গ্রহণের জন্য প্রায় সকল কাজই সম্পন্ন করেছে নির্বাচন কমিশন।
চট্টগ্রামে ১৬ সংসদীয় আসনে ভোট গ্রহণের জন্য ১৮৯৯ টি ভোট কেন্দ্র ও ১০ হাজার ৬৮৩ বুথ (ভোট কক্ষ) চূড়ান্ত করেছে চট্টগ্রাম জেলা নির্বাচন অফিস। একই সাথে ১৬ সংসদীয় আসনে ভোট গ্রহণের জন্য ৩৭ হাজার ৪৪০জন ভোট গ্রহণ কর্মকর্তা (প্রিসাইডিং, সহকারী প্রিসাইডিং ও পোলিং অফিসার) নিয়োগের কাজও শেষ করেছে জেলা নির্বাচন অফিস। এখন ভোট গ্রহণ কর্মকর্তাদের প্যানেল তৈরির কাজ চলছে বলে জানা গেছে। এই ব্যাপারে চট্টগ্রাম জেলা নির্বাচন অফিসের উচ্চমান সহকারী আবুল খায়ের আজাদীকে জানান, মনোনয়ন ফরম আনার জন্য আমাদের কর্মকর্তা গেছেন। রাতের মধ্যেই চলে আসবে। শুক্রবার থেকে মনোনয়ন ফরম পাওয়া যাবে। ফরমের সাথে সংশ্লিষ্ট সংসদীয় আসনের ভোটারের সিডিও পাওয়া যাবে। এই সিডি থেকে ভোটার লিস্ট প্রিন্ট করবেন সংশ্লিষ্ট প্রার্থীরা।
নির্বাচনের প্রস্তুতির অংশ হিসেবে প্রথমে সংসদীয় আসনের সীমানা পুনঃনির্ধারণের পাশাপাশি চূড়ান্ত ভোটার তালিকা প্রকাশ করছে নির্বাচন কমিশন। এরপর ভোটকেন্দ্র চূড়ান্ত করা, সংসদীয় আসন ভিত্তিক ভোটার তালিকার সিডি চূড়ান্ত করা এবং ভোটগ্রহণ কর্মকর্তা নিয়োগের পর প্যানেল তৈরি করা হচ্ছে।
.

x