প্যাট্রিস লুলুম্বা : স্বাধীন কঙ্গোর প্রতিষ্ঠাতা

মঙ্গলবার , ২ জুলাই, ২০১৯ at ৫:৫৯ পূর্বাহ্ণ
24

প্যাট্রিস লুলুম্বা স্বাধীন গণতান্ত্রিক কঙ্গো প্রজাতন্ত্রের প্রথম প্রধানমন্ত্রী এবং আফ্রিকার জাতীয়তাবাদী আন্দোলনের নেতা। লুলুম্বার নেতৃত্বে প্রবল আন্দোলনের মুখে ১৯৬০ সালে বেলজিয়ানরা কঙ্গোকে স্বাধীনতা দিতে বাধ্য হয়। আজ লুলুম্বার ৯৪তম জন্মবার্ষিকী।
প্যাট্রিস লুলুম্বার জন্ম ১৯২৫ সালের ২রা জুলাই তদানীন্তন বেলজিয়ান কঙ্গোর কাসাই প্রদেশে। তরুণ বয়সে স্বাধীন কঙ্গোর স্বপ্ন চোখে তিনি গড়ে তোলেন ‘কঙ্গোলিজ ন্যাশনাল মুভমেন্ট’ নামের একটি সংগঠন। লুলুম্বার নেতৃত্বে এই সংগঠনের তৎপরতায় ১৯৬০ সালে বেলজিয়ামের উপনিবেশ থেকে কঙ্গো স্বাধীন রাষ্ট্র হিসেবে আত্মপ্রকাশ করে। প্যাট্রিস লুলুম্বা প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্ব গ্রহণ করেন। প্রেসিডেন্ট ছিলেন সেনাবাহিনি প্রধান জোসেফ কাশাভুবু। স্বাধীনতার পরপরই দেশে উপজাতীয় কোন্দল মাথা চাড়া দিয়ে ওঠে। কাতাঙ্গা প্রদেশে শুরু হয় বিচ্ছিন্নতাবাদী আন্দোলন। প্রদেশটির মুখ্যমন্ত্রী মোশে শোম্বে কাতাঙ্গার স্বাধীনতা ঘোষণা করেন। অভ্যন্তরীণ উপজাতীয় কোন্দলের সুযোগ নিয়ে বেলজিয়ানরা পুনরায় অন্যায় হস্তক্ষেপ শুরু করে। প্রেসিডেন্ট কাশাভুবু ছিলেন মার্কিনপন্থী। গৃহযুদ্ধের এক পর্যায়ে তিনি ষড়যন্ত্রমূলকভাবে রুশপন্থী লুলুম্বাকে ক্ষমতাচ্যুত করেন।
১৯৬১ সালের ১৭ই জানুয়ারি সামরিক স্বৈরতন্ত্রীদের হাতে লুলুম্বা নির্মমভাবে নিহত হন। কিন্তু দেশপ্রেমী এই নেতার মৃত্যু সংবাদ এই বলে প্রকাশ করা হয় যে, গ্রামবাসীদের হাতে তিনি নিহত হয়েছেন। এই ষড়যন্ত্রমূলক ঘটনায় বিশ্বজুড়ে নিন্দা ও প্রতিবাদের ঝড় ওঠে। প্যাট্রিস লুলুম্বা হয়ে ওঠেন আফ্রিকার নিষ্পেষিত জনগণের সংগ্রাম আর মুক্তির প্রতীক।

x