পটিয়া ও কক্সবাজারে দুই গৃহবধূর আত্মহত্যা

পারিবারিক কলহের জের

পটিয়া ও ঈদগাঁও প্রতিনিধি

রবিবার , ১৩ অক্টোবর, ২০১৯ at ৩:৩৬ পূর্বাহ্ণ
25

পটিয়ার ধলঘাট ও কক্সবাজারের চৌফলদণ্ডীতে পারিবারিক কলহের জের ধরে চুমকি ধর (৩৫) এবং শাহানা আক্তার (২২) নামের দুই গৃহবধূ আত্মহত্যা করেছেন। গত শুক্রবার রাতে উভয় আত্মহত্যার ঘটনা ঘটে। জানা যায়, পটিয়ার ধলঘাট ইউনিয়নের গৈড়লা এলাকায় গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেন চুমকি ধর। তিনি ওই এলাকার লিটন ধরের স্ত্রী। এলাকাবাসী জানান, ওই দম্পতির ২ ছেলে ও ১ কন্যা সন্তান রয়েছে। স্বামী লিটন ধর পেশায় একজন স্বর্ণ ব্যবসায়ী। উখিয়ায় তার একটি জুয়েলারি দোকান রয়েছে। গৈড়লা ১ নম্বর ওয়ার্ড ইউপি সদস্য আবু ছৈয়দ বলেন, শুক্রবার রাত সাড়ে ১০টার দিকে স্বামী লিটন ধর আমাকে ফোন করে জানান, তার স্ত্রী চুমকি ঘরের ছাদের বিমের সঙ্গে শাড়ি পেঁচিয়ে আত্মহত্যা করেছে। খবর পেয়ে আমি ইউপি চেয়ারম্যান রণবীর ঘোষ টুটুনকে জানাই। তিনি পুলিশে খবর দিলে রাত সাড়ে ৩টার দিকে লাশটি উদ্ধার করা হয়।
স্বামী লিটন ধরের বরাত দিয়ে আবু ছৈয়দ আরো বলেন, ওই সময় ঘরের দরজা ভেতর থেকে বন্ধ ছিল। পরে টিন কেটে ভেতরে ঢুকলে চুমকিকে গলায় ফাঁস লাগানো অবস্থায় দেখা যায়। স্বামীর সাথে পারিবারিক বিষয় নিয়ে কথা কাটাকাটির জের ধরে অভিমান করে ওই গৃহবধূ আত্মহত্যা করেছে বলে জানা গেছে। পটিয়া থানার ওসি (তদন্ত) মো. জাব্বারুল ইসলাম বলেন, শনিবার সকালে লাশটি ময়নাতদন্তের জন্য মর্গে প্রেরণ করা হয়েছে। এ ব্যাপারে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।
অন্যদিকে কক্সবাজার সদরের চৌফলদণ্ডীতে শুক্রবার রাত সাড়ে ৮টার দিকে আত্মহত্যা করেন শাহেনা। তিনি সাত মাসের অন্তঃসত্ত্বা ছিলেন। তিনি ওই ইউনিয়নের ৫ নম্বর ওয়ার্ডের ছৈয়দ নুরের কন্যা। স্থানীয়রা ও পুলিশ জানায়, প্রেমের সম্পর্ক থেকে পার্শ্ববর্তী ফয়েজ উদ্দিনের ছেলে ফয়সালকে করে বিয়ে করেন শাহেনা। তারা প্রায় ১০ মাস সংসার করেন। পরে পারিবারিক কলহের জের ধরে বাবার বাড়িতে চলে যান শাহানা। সেখানেই বাড়ির সদস্যদের অগোচরে ঘরের বিমের সঙ্গে ওড়না পেঁচিয়ে আত্মহত্যা করেন। খবর পেয়ে তার লাশটি উদ্ধার করে পুলিশ। ঈদগাঁও তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জ (ওসি) আসাদুজ্জামান বলেন, ওই গৃহবধূ কী কারণে আত্মহত্যা করেছে, তা তাৎক্ষণিকভাবে জানা যায়নি। ভিকটিমের পরিবার মামলা করলে তদন্ত পূর্বক আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

x