নারীকে দেখিয়ে দিতে হবে আমি পারি, আমরা পারি

শুক্রবার , ৮ মার্চ, ২০১৯ at ৬:১৯ পূর্বাহ্ণ
16

নারী মানে একজন মা। যিনি তাঁর সন্তানকে ১০ মাস গর্ভে ধারণ করে অনেক কষ্ট সহ্য করে পৃথিবীতে নিয়ে আসেন। নারী মানে একজন বোন। যে বোন তার মায়ের অবর্তমানে ছোট ভাই-বোনদেরকে মায়ের মতো আগলে রাখেন। নারী মানে একজন স্ত্রী। যিনি তাঁর শ্বশুর-শাশুড়িকে তার মা-বাবার জায়গায় রেখে তার মা ও বাবার কথা কিছুটা হলেও ভুলে থাকতে চায়। সে তার জন্মধারণকারী মা-বাবাকে ছেড়ে ভিন্ন একটা পরিবারে সকল দুঃখ-কষ্টকে মানিয়ে নিয়ে, গুছিয়ে নিয়ে, সহ্য করে থাকার চেষ্টা করে। নারী মানে একটি মেয়ে। যে তার মা-বাবার সকল দুঃখ-কষ্টকে নিজের দুঃখ-কষ্ট মনে করে তাদের পাশে গিয়ে দাঁড়িয়ে বলে-(মা-বাবা) আমি তোমাদের সাথে আছি, সবসময় সাথে থাকব। সে তার মা-বাবার প্রত্যেকটি কথা মেনে চলার আপ্রাণ চেষ্টা করে। কিন্তু সে নারীকেই সর্বক্ষেত্রে হতে হয় অপমানিত, লজ্জিত ও লাঞ্ছিত। তবুও সে মানিয়ে নেয় সবকিছু। নারীর সাথে যদি কোনো অপরাধ সংঘটিত হয়, তবে অপরাধীর কোনো দোষ না হয়ে সব দোষ হয় নারীর। যখন সে প্রতিবাদ করার চেষ্টা করে, তখন তাকে বলা হয় নানান ধরনের অসহনীয় কথা। নারী যদি উচ্চৈঃস্বরে কথা বলে, তখন তাকে বলা হয়-বেয়াদব। ধমকের সুরে বলা হয় তোমার ব্যবহার/আচরণ ঠিক করো। কিন্তু একই জায়গায় যদি একটি পুরুষ হয়, তবে বলা হয়-বাবা তুই যা চাস তাই হবে। নারী যদি কোনো বিষয়ে উচ্চৈঃস্বরে হাসে, তখন বলা হয়-মেয়েদের এত উচ্চৈঃস্বরে হাসতে হয় না। যদি নারীর খাওয়ার প্রসঙ্গ আসে, তখন বলা হয়-আগে পুরুষদের খাওয়ানো হোক, মহিলাদের পরে খেলেও হবে এবং খেতে বসার পর বলা হয় তাড়াতাড়ি খাওয়ার কাজটি শেষ করতে হবে! নারী যদি দেরি করে বাসায় ফিরে, হাজারটা প্রশ্নের সম্মুখীন হতে হয়। পড়ালেখা শেষ হবার আগে বা পরে একটি মেয়েকে কিভাবে তাড়াতাড়ি বিয়ে দিয়ে ঘর থেকে বিদায় করা যায়, তার জন্যে অধীর অপেক্ষায় থাকেন মা-বাবা। কেন নারী বোঝাস্বরূপ? কেন এত প্রশ্ন? কেন এত লাঞ্ছনা? আমরা কি নারী না হয়ে সকলের কাছে একজন মানুষ হতে পারি না? আমাদের শরীরে কি সব মানুষের মত লাল রক্ত বইছে না? তবে কেন এত বাড়াবাড়ি? তাই নারীকে সুশিক্ষায় শিক্ষিত হতে হবে। স্বনির্ভর করে গড়ে তুলতে হবে। আত্মবিশ্বাসী ও সংগ্রামী হতে হবে। সত্যের পথে কঠিন থাকতে হবে ও দু’হাতে অনির্বাণ শিখা জ্বালাতে হবে। নিজেকে নারীর গণ্ডি থেকে বের করে মানুষ ভাবতে হবে ও প্রতিষ্ঠিত করতে হবে। নিজের পরিবর্তন নিজেকেই সাধন করতে হবে। সব মানুষকে বুঝিয়ে দিতে হবে এবং চোখে আঙ্গুল দিয়ে একদম কাছ থেকে দেখিয়ে দিতে হবে-আমি পারি, আমরা পারি, আমি পারব, আমরা পারব। ৮ মার্চ এবারের নারী দিবসে এই হোক আমাদের দৃপ্ত প্রত্যয় ও শপথ।
সৈয়দা লাইলাতুল রাহনুমা, অপর্ণাচরণ সিটি কর্পোরেশন বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়, চট্টগ্রাম।

- Advertistment -