নাচোলের কৃষক বিদ্রোহ: আদিবাসীদের অধিকার আদায়ের সংগ্রাম

শনিবার , ৫ জানুয়ারি, ২০১৯ at ৩:৫৫ পূর্বাহ্ণ
26

চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলার নাচোলে সংঘটিত আদিবাসী সাঁওতাল কৃষকদের বিদ্রোহ ইতিহাসে নাচোল বিদ্রোহ নামে পরিচিত। এটি তেভাগা আন্দোলনেরই একটি অংশ। দীর্ঘদিন দানা বেঁধে ওঠা এই বিপ্লবের সূচনা হয় ১৯৫০ সালের ৫ জানুয়ারি নারী নেত্রী ইলা মিত্রের নেতৃত্বে। জমি ও ফসলের ওপর সাঁওতাল কৃষকদের অধিকারের দাবিতে নাচোলে বিদ্রোহের সূত্রপাত হয়। একই জমি বংশ পরম্পরায় চাষাবাদ করা সত্ত্বেও ঐ জমির ওপর সাঁওতালদের কোনো অধিকার ছিল না। উপরন্তু ধান কাটার সময় প্রতি কড়ি আড়া ধানের জন্যে ক্ষেতে কর্মরত সাঁওতাল কৃষক মাত্র তিন আড়া ধান পেত। সেই সাথে খাজনা হিসেবে জোতদারদেরকে দিয়ে দিতে হতো ফসলের অর্ধেক অংশ। এই অন্যায় ও শোষণের বিরুদ্ধে সাঁওতাল কৃষকদের সচেতন করার জন্যে এগিয়ে আসেন কমিউনিস্ট পার্টির কর্মীরা। তাঁরা কৃষক সংগ্রাম কমিটি গঠন করেন। এর নেতৃত্বে ছিলেন ইলা মিত্র। আরো ছিলেন আজহার শেখ, অনিমেষ লাহিড়ী, বৃন্দাবন সাহা প্রমুখ। উৎপাদিত ফসলের দুই তৃতীয়াংশ এবং প্রতি কুড়ি আড়া ধানের জন্যে সাত আড়া ধানের দাবিতে তাঁরা কৃষকদের সচেতন করে তোলেন। প্রথম পর্যায়ে নাচোলের চণ্ডীপুর, রাউতারা, ঘাসুরা, ধারোল, কেন্দুয়া, নাপিত পাড়া প্রভৃতি গ্রামের চাষিরা কৃষকদের খাজনা দেওয়া বন্ধ করে দেয়। বিভিন্ন স্থানে বিক্ষিপ্ত সংঘর্ষ এবং জোতদারদের ঘরবাড়ি লুঠ হয়। ইলা মিত্র সহ সকল সংগ্রামী ব্যক্তিকে গ্রেফতার করা হয়। পরবর্তীসময়ে পূর্ববঙ্গ জমিদারি অধিগ্রহণ ও প্রজাস্বত্ব আইনের আওতায় সাঁওতাল চাষীদের জমির ওপর অধিকার দেওয়া হয়। ইলা মিত্র সহ সকল বন্দি মুক্তি লাভ করেন।

x