নগর উন্নয়নে ৩৭৫ কোটি টাকা

প্রকল্পের অর্থায়নে জাইকা, বাস্তবায়ন করবে চসিক

মোরশেদ তালুকদার

বৃহস্পতিবার , ১২ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ at ৫:৩৩ পূর্বাহ্ণ
300

চট্টগ্রাম নগরের অবকাঠামোগত উন্নয়নে ২৩টি প্যাকেজে ৩৭৫ কোটি আট লাখ ৭৩ হাজার টাকা অর্থায়ন করবে জাপান সরকারের উন্নয়ন সংস্থা জাইকা (জাপান ইন্টারন্যাশনাল কো-অপারেশন এজেন্সি)। সড়ক সংস্কার, নালা নির্মাণ, ফুটপাত নির্মাণ এবং সড়কবাতির (এলইডি লাইট) মাধ্যমে আলোকায়নে এ অর্থ ব্যয় করা হবে। প্রকল্পগুলোর মধ্যে পাঁচটি প্যাকেজের বিপরীতে ৭৮ কোটি ৭০ লাখ ৯৭ হাজার ৩৩৫ টাকার দরপত্র আহবানের জন্য গত রোববার অনুমোদন দেয়া হয়েছে। ‘সিটি গভর্নেন্স প্রজেক্ট’ (সিজিপি) এর আওতায় স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তরের তত্ত্বাবধানে প্রকল্পগুলো বাস্তবায়ন করবে চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন (চসিক)।
জাইকা সূত্রে জানা গেছে, দরপত্র আহবানের জন্য অনুমোদন পাওয়া প্রকল্পগুলোর মধ্যে পোর্ট কানেকটিং (পিসি) রোডের ৭৫০ মিটার অংশও রয়েছে। এতে প্রাক্কলিত ব্যয় ধরা হয়েছে ২৮ কোটি ৭ লাখ ৫ হাজার ৭২৫ টাকা। এ কাজের সময়সীমা নির্ধারণ করা হয়েছে ৩৬৫ দিন। বর্তমানে পাঁচটি প্যাকেজে জাইকার অর্থায়নে পিসি রোডের উন্নয়ন কাজ করা হচ্ছে। এরমধ্যে সড়কটির নিমতলা থেকে অলংকার পর্যন্ত প্রথম প্যাকেজে ৫০ কোটি ৫৮ লাখ ৬৩ হাজার ৩৩৯ টাকা এবং দ্বিতীয় প্যাকেজে ৫০ কোটি ৮২ লাখ ৭০ হাজার ৩৩৮ টাকার কাজ চলমান আছে। তৃতীয় প্যাকেজে গত ২৬ জুন সড়কটির আনন্দিপুর পর হতে সরাইপাড়া মাজার পর্যন্ত প্রায় এক হাজার ৪৫০ মিটার অংশে ৪২ কোটি টাকায় কাজের উদ্বোধন করেন মেয়র আ.জ.ম নাছির উদ্দীন। সর্বশেষ দরপত্রের জন্য অনুমোদিত অংশটি প্যাকেজ চার হিসেবে বাস্তবায়ন করা হবে। এছাড়া প্যাকেজ-৫ এর আওতায় আলোকায়ন করা হবে সড়কটির নিমতলা থেকে সিটি গেট এলাকা পর্যন্ত।
অনুমোদন পাওয়া অপর চারটি প্যাকেজের আওতায় ২২টি সড়কে ৫০ কোটি ৬৩ লাখ ৯১ হাজার ৬১০ টাকায় জিআই পোল স্থাপনসহ এলইডি বাতি লাগানো হবে। এজন্য সময়সীমা নির্ধারণ করা হয়েছে ৩০০ দিন। এরমধ্যে ১৬ কোটি ৭৫ লাখ ১২ হাজার ৭৭৪ টাকার একটি প্যাকেজের আওতায় ভাটিয়ারী লিংক রোড, চান্দ মিয়া রোড, চকবাজার থেকে বহাদ্দারহাট, ঢাকা ট্রাংক রোডের ধনিয়ালা পাড়া থেকে অলংকার মোড় এবং জাকির হোসেন রোডের জিইসি থেকে ফয়’স লেক পর্যন্ত অংশ রয়েছে।
১৩ কোটি ৬৫ লাখ ৪৩ হাজার ৭৫২ টাকার প্যাকেজটির আওতায় এলইডি লাইট লাগানো হবে পোর্ট কানেকটিং রোড, সাদার্ন মেডিকেল কলেজ রোড, নাসিরাবাদ শিল্পাঞ্চল রোড, পুরাতন রেল স্টেশন থেকে কদমতলী পর্যন্ত সড়কের দুইপাশে, হালিশহর আনন্দ বাজারের হুজুর বাড়ি থেকে সিটি কর্পোরেশনের টিজি, স্ট্যান্ড রোডের সদরঘাট থেকে বারিক বিল্ডিং এবং মাঝিরঘাট রোডের নাওয়াজ হোটেল থেকে স্ট্যান্ড রোড পর্যন্ত।
১১ কোটি ৪১ লাখ ৯৩ হাজার ৮০ টাকায় অর্ন্তভুক্ত প্যাকেজের আওতায় রয়েছে- আইস ফ্যাক্টরি রোড, অঙিজেন-কুয়াইশ সড়কের মিড আইল্যান্ড, আমবাগান সড়কের টাইগারপাস থেকে আকবর শাহ মাজার পর্যন্ত, পাহাড়তলী রোডের মিড আইল্যান্ড, হালিশহর রোডের বড়পুল থেকে হুজুর বাড়ি, শৈলবালা স্কুল সড়ক থেকে সৎআশ্রম, দুলুনিয়া ঢালা রোড, কেবি দাস রোড এবং পলিটেকনিক সড়কের পলিটেকনিক মোড় থেকে ঝাউতলা রেল গেট পর্যন্ত সড়ক।
এছাড়া ৮ কোটি ৮২ লাখ ২৫ হাজার ৭০৪ টাকার অনুমোদিত পঞ্চম প্যাকেজে ৮টি সড়ক রয়েছে। সড়কগুলো হচ্ছে- কবি নজরুল ইসলাম সড়কের কোতোয়ালী মোড় থেকে সদরঘাট, খুলশী আবাসিক এলাকা সড়ক, পুলিশ লাইন আবাসিক এলাকা সড়ক, কাতালগঞ্জ আবাসিক এলাকা সড়ক, সুগন্ধা আবাসিক এলাকা সড়ক, লেক ভেলি আবাসিক এলাকা সড়ক, জাকির হোসেন রোডের ফয়’স লেক থেকে একে খান গেট ও নুরুজ্জামান নাজির রোড।
জাইকা সূত্রে জানা গেছে, অনুমোদনের অপেক্ষায় থাকা প্যাকেজগুলোর আওতায় ৮৬টি সড়ককে ঘিরে উন্নয়ন করা হবে। এরমধ্যে কিছু সড়কে এলইডি লাইট লাগানো হবে। কিছু সড়ক সংস্কার এবং সড়কের পাশের ফুটপাত ও ড্রেন সংস্কার করা হবে।
এবিষয়ে মেয়র আ.জ.ম নাছির উদ্দীন দৈনিক আজাদীকে বলেন, জাইকার প্রস্তাবিত প্রকল্পগুলোর মধ্যে দুইদিন আগে পাঁচটির অনুমোদন পেয়েছি। বাকিগুলোও ধাপে অনুমোদন দেয়া হবে। অনুমোদন পাওয়া প্রকল্পগুলো বাস্তবায়নে ঠিকাদার নিয়োগে দ্রুত সময়ের মধ্যে দরপত্র আহবান করা হবে। অনুমোদিত প্রকল্পগুলো বাস্তবায়ন হলে শহরের গুরুত্বপূর্ণ সড়ক পোর্ট কানেকটিং রোডের পুরো অংশের সংস্কার কাজ শেষ হবে এবং বেশিরভাগ সড়ক আলোকায়নের আওতায় চলে আসবে।
উল্লেখ্য, বর্তমানে জাইকার অর্থায়নে চট্টগ্রাম মহানগরীতে ‘সিটি গর্ভনেন্স প্রজেক্ট’ (সিজিপি) এর আওতায় স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তরের তত্ত্বাবধানে দুুটি প্যাকেজে (ব্যাচ-১ ও ২) উন্নয়ন প্রকল্পের কাজ চলমান আছে। প্রকল্পগুলো বাস্তবায়ন করছে চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন। এরমধ্যে ব্যাচ- ১ এর আওতায় রয়েছে ১৫৬ কোটি ২৫ লাখ টাকার উন্নয়ন প্রকল্প। ব্যাচ-২ এর আওতায় রয়েছে ২২৬ কোটি ৯৯ লাখ টাকার উন্নয়ন প্রকল্প।

x